বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > করোনামুক্ত হয়ে দেবীদুর্গার কাছে প্রার্থনা দিলীপ ঘোষের, ফোন করে খোঁজ নিলেন মমতা
রাজ্য বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষ। ছবি সৌজন্য : পিটিআই (PTI)
রাজ্য বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষ। ছবি সৌজন্য : পিটিআই (PTI)

করোনামুক্ত হয়ে দেবীদুর্গার কাছে প্রার্থনা দিলীপ ঘোষের, ফোন করে খোঁজ নিলেন মমতা

সেপ্টেম্বর মাসে হুগলির ধনেখালিতে ভরা জনসভায় দিলীপ ঘোষ ঘোষণা করেছিলেন যে করোনা বলে কিছু নেই।

করোনামুক্ত রাজ্য বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষ। মঙ্গলবার তাঁকে ছুটি দিল হাসপাতাল। তার আগে সোমবার সন্ধেয় দিলীপ ঘোষকে ফোন করে তাঁর শরীরস্বাস্থ্যের খবর নেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বরাবরই একে–অপরকে রাজনৈতিকভাবে আক্রমণ করলেও তার মাঝে এভাবেই সৌজন্যতার ছাপ রাখলেন তৃণমূল সুপ্রিমো রাজ্যের প্রশাসনিক প্রধান মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

গত শুক্রবার ৫৬ বছর বয়সী এই বিজেপি নেতার কোভিড রিপোর্ট পজিটিভ এলে তাঁকে ভর্তি করানো হয় সল্টলেকের আমরি হাসপাতালে। ১০২ ডিগ্রি জ্বর ছিল তাঁর। অনেকটা বেশি কাশিও হচ্ছিল। তাই তাঁকে ভর্তি রাখা হয় হাসপাতালের এইচডিইউ বিভাগে।

এদিন হাসপাতাল থেকে ছুটি পাওয়ার পর দিলীপ ঘোষ সাংবাদিকদের জানান, তাঁর কোভিড রিপোর্ট নেগেটিভ এসেছে। অন্যান্য শারীরিক পরীক্ষার রিপোর্টও ভাল। এখন তিনি একেবারে সুস্থ। তিনি এদিন বলেন, ‘‌অন্য কোনও শারীরিক জটিলতা আর নেই। আমি এখন ঠিক আছি। আমি সবাইকে আশ্বস্ত করতে চাই যে আমার স্বাস্থ্য বিষয়গুলি নিয়ে উদ্বিগ্ন হওয়ার কোনও কারণ নেই। যাঁরা আমার খোঁজ নিয়েছেন আমি সকলকে ধন্যবাদ জানাই। সকলে সাবধানে থাকুন।’‌

এদিন তিনি আরও বলেন, ‘সারা পৃথিবীকে, সকল মানুষকে করোনামুক্ত করার জন্য ‌আমি দেবীদুর্গার কাছে প্রার্থনা করছি।’‌ উল্লেখ্য, সেপ্টেম্বর মাসে হুগলির ধনেখালিতে ভরা জনসভায় দিলীপ ঘোষ ঘোষণা করেছিলেন যে করোনা বলে কিছু নেই। তিনি মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে কটাক্ষ করে বলেছিলেন, ‘‌করোনা চলে গিয়েছে। কিন্তু দিদিমণি আমাদের সভা–মিছিল করতে দেবে না বলে লকডাউন করছেন।’‌ তার আগে করোনা সারাতে গোমূত্র পান করার নিদানও দিয়ে ছিলেন বিজেপি–র রাজ্য সভাপতি।

এদিকে, এদিন দিলীপ ঘোষের ছুটির সময় হাসপাতাল চত্বরে ছিলেন বিজেপি নেতা রাজু বন্দ্যোপাধ্যায়। তাঁর অভিযোগ, এদিন ছুটির সময় আমাদের করোনাজয়ী শীর্ষ নেতাকে অভিনন্দন জানানোর জন্য হাসপাতালের বাইরে দলের কর্মীদের হাজির থাকতে দেয়নি পুলিশ।

বন্ধ করুন