রেশন নেই কেন? পথে বসলেন দিলীপ

  • সঙ্গে রয়েছেন বিজেপি নেতা সুব্রত চট্টোপাধ্যায় ও সায়ন্তন বসু। সোশ্যাল ডিসট্যান্সিংয়ের বিধি মেনে মাস্ক পরে তাঁরা অনশন করছেন বলে জানিয়েছেন বিজেপি নেতারা।
পশ্চিমবঙ্গে রেশন দুর্নীতির প্রতিবাদে অনশনে বসল বিজেপি। রবিবার বিধাননগরে নিজের বাসভবনের সামনে অনশনে বসেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। সঙ্গে রয়েছেন বিজেপি নেতা সুব্রত চট্টোপাধ্যায় ও সায়ন্তন বসু। সোশ্যাল ডিসট্যান্সিংয়ের বিধি মেনে মাস্ক পরে তাঁরা অনশন করছেন বলে জানিয়েছেন বিজেপি নেতারা।
1/3পশ্চিমবঙ্গে রেশন দুর্নীতির প্রতিবাদে অনশনে বসল বিজেপি। রবিবার বিধাননগরে নিজের বাসভবনের সামনে অনশনে বসেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। সঙ্গে রয়েছেন বিজেপি নেতা সুব্রত চট্টোপাধ্যায় ও সায়ন্তন বসু। সোশ্যাল ডিসট্যান্সিংয়ের বিধি মেনে মাস্ক পরে তাঁরা অনশন করছেন বলে জানিয়েছেন বিজেপি নেতারা।
এপ্রিলের শুরু থেকেই পশ্চিমবঙ্গে রেশন দুর্নীতি নিয়ে সরব হয়েছে বিজেপি। তাদের দাবি, রাজ্যের মানুষ ঠিক মতো রেশন সামগ্রী পাচ্ছেন না। রেশন সামগ্রী লুঠ করছে শাসকদল তৃণমূলের নেতারা। তার পর তা পছন্দ মতো লোককে ত্রাণের নামে বিলি করছেন। যার ফলে ন্যায্য পাওনা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন বহু মানুষ।
2/3এপ্রিলের শুরু থেকেই পশ্চিমবঙ্গে রেশন দুর্নীতি নিয়ে সরব হয়েছে বিজেপি। তাদের দাবি, রাজ্যের মানুষ ঠিক মতো রেশন সামগ্রী পাচ্ছেন না। রেশন সামগ্রী লুঠ করছে শাসকদল তৃণমূলের নেতারা। তার পর তা পছন্দ মতো লোককে ত্রাণের নামে বিলি করছেন। যার ফলে ন্যায্য পাওনা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন বহু মানুষ।
এর প্রতিবাদে রবিবার বেলা ১১টা থেকে ১টা পর্যন্ত বিধাননগরে দিলীপ ঘোষের বাড়ির সামনে অনশনে বসেন বিজেপি নেতারা। দিলীপবাবু বলেন, ‘রাজ্যে রেশন ব্যবস্থায় নৈরাজ্য চলছে। এখনো মানুষ খাবার পাচ্ছেন না। সারা দিন তাদের রেশন দোকানের সামনে দাঁড়িয়ে থাকতে হচ্ছে। ওদিকে নিজেদের মর্জি মতো রেশন সামগ্রী বিলি করে বেচ্ছানে তৃণমূল নেতারা।’ অবিলম্বে এই অব্যবস্থার অবসানের দাবি জানিয়েছেন তিনি। একই সঙ্গে দিলীপবাবু, বিজেপি বিধায়ক ও সাংসদদের ত্রাণ বিলিতে প্রশাসনিক বাধা দেওয়ার অভিযোগ তুলেছেন। বলেছেন, রেশন দুর্নীতির জেরেই রাজ্যের বিভিন্ন
3/3এর প্রতিবাদে রবিবার বেলা ১১টা থেকে ১টা পর্যন্ত বিধাননগরে দিলীপ ঘোষের বাড়ির সামনে অনশনে বসেন বিজেপি নেতারা। দিলীপবাবু বলেন, ‘রাজ্যে রেশন ব্যবস্থায় নৈরাজ্য চলছে। এখনো মানুষ খাবার পাচ্ছেন না। সারা দিন তাদের রেশন দোকানের সামনে দাঁড়িয়ে থাকতে হচ্ছে। ওদিকে নিজেদের মর্জি মতো রেশন সামগ্রী বিলি করে বেচ্ছানে তৃণমূল নেতারা।’ অবিলম্বে এই অব্যবস্থার অবসানের দাবি জানিয়েছেন তিনি। একই সঙ্গে দিলীপবাবু, বিজেপি বিধায়ক ও সাংসদদের ত্রাণ বিলিতে প্রশাসনিক বাধা দেওয়ার অভিযোগ তুলেছেন। বলেছেন, রেশন দুর্নীতির জেরেই রাজ্যের বিভিন্ন
অন্য গ্যালারিগুলি