বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > শপথ নিয়ে কী বললেন নতুন মন্ত্রীরা, দেখে নিন এক ক্লিকে

শপথ নিয়ে কী বললেন নতুন মন্ত্রীরা, দেখে নিন এক ক্লিকে

শপথ নিচ্ছেন নতুন মন্ত্রীরা।

আবার রয়েছে প্রদীপ মজুমদার, বিপ্লব রায়চৌধুরীর মতো প্রবীণও। এর মধ্যে অধিকাংই জীবনে প্রথমবার পেয়েছেন মন্ত্রিত্বের স্বাদ। শপথ নিয়ে কী বললেন নতুন মন্ত্রীরা?

বুধবার বিকেলে রাজ্যে মন্ত্রী হিসাবে শপথ নিয়েছেন ৮ জন। তালিকায় রয়েছেন বাবুল সুপ্রিয়, স্নেহাসিশ চক্রবর্তীর মতো তরুণ মুখ। আবার রয়েছে প্রদীপ মজুমদার, বিপ্লব রায়চৌধুরীর মতো প্রবীণও। এর মধ্যে অধিকাংই জীবনে প্রথমবার পেয়েছেন মন্ত্রিত্বের স্বাদ। শপথ নিয়ে কী বললেন নতুন মন্ত্রীরা?

স্নেহাশিস চক্রবর্তী

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যখন যে দায়িত্ব দিয়েছেন গুরুত্ব দিয়ে তা পালন করেছি। এবার সরকারে দায়িত্ব দিয়েছেন। কী দায়িত্ব দেবেন জানি না। তবে যে দায়িত্বই দেবেন সেটা পালন করব।

তবে পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের গ্রেফতারির পর রাজ্য মন্ত্রিসভার ভাবমূর্তি যখন তলানিতে তখন মন্ত্রিত্ব কতটা চ্যালেঞ্জিং? এই প্রশ্নের উত্তর এড়িয়েছেন তিনি।

বাংলাদেশে শৈলকুপার হিন্দু বাড়িতে হামলা, অভিযোগ দায়ের হয়েছে থানায়

উদয়ন গুহ

মুখ্যমন্ত্রী আস্থা রেখেছেন, ভরসা রেখেছেন। এই আস্থার পূর্ণ মর্যাদা দেব। কাজ করার চেষ্টা করি। গ্রামে গঞ্জে ঘুরি। এসব দেখে মুখ্যমন্ত্রীর মনে হয়েছে যে আমাকে দিয়ে কাজ হতে পারে। কার সুপারিশে মন্ত্রী হয়েছি জানি না। তবে আমাকে মুখ্যমন্ত্রীই মন্ত্রিত্ব দিয়েছেন। কোন দফতর পাব জানি না। তবে যে দফতরই পাই চ্যালেঞ্জের মোকাবিলা করব।

বিপ্লব রায়চৌধুরী

মন্ত্রী হওয়া তো মুখ্যমন্ত্রীর সীমাবদ্ধতার মধ্যে করতে হয়। ফলে সবাইকে মন্ত্রী করা সম্ভব নয়। মন্ত্রী হওয়া খুব চ্যালেঞ্জিং। এই চ্যালেঞ্জিং কাজটাকে সফল করতে হবে।

প্রদীপ মজুমদার

মুখ্যমন্ত্রীর সমস্ত জনকল্যাণমূলক প্রকল্প আমরা রূপায়িত করার চেষ্টা করে এসেছি। তাতে মানুষ উপকৃত হয়েছেন। তার প্রতিফলন আমরা ২১-এ দেখেছি। উনি আমার দায়িত্ব আরও বাড়িয়েছেন। ওনার নির্দেশেই আমরা মানুষের উপকারে ব্রতী হব। আগেও দায়িত্ব নিয়ে কাজ করছি, এখনও তাই করব।

বাবুল সুপ্রিয়

ভগ্ন হৃদয় আর বিতৃষ্ণা নিয়ে গত ৩ অগাস্টের রাত শেষ হয়েছিল। আজ ৩ অগাস্ট। আজ একটা বৃত্ত সম্পূর্ণ হল। আমার গোটা পরিবার খুব আঘাত পেয়েছিল। তখন আমি সবে আমার মাকে হারিয়েছিলাম।

৩০ টাকা কেজি টমাটোর দাম কমে হল ৩! ডাস্টবিনে সবজি ফেলছেন কৃষকরা

পার্থ ভৌমিক

আগে রাজনীতির ক্ষেত্রে ছিলাম। এখন এটা অন্য ক্ষেত্র। পার্থক্যটা এটাই। রাজনীতিতে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যা করতে বলেছেন করেছি। অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের রণকৌশল পালন করেছি। এটা নতুন ক্ষেত্র। কিন্তু কাজটা একই। ওনারা যেটা বলবেন সেটা যথাযথভাবে পালন করা। দফতর নিয়ে উৎসাহ নেই। দলনেত্রী যে দায়িত্ব দেবেন পালন করব।

বিরবাহা হাঁসদা

ভালো লাগছে নতুন দায়িত্ব পেয়ে। মনপ্রাণ দিয়ে কাজ করতে চাই। যেভাবে নেত্রী ও অভিষেক স্যার বলবেন, মানুষের দরজায় দরজায় গিয়ে কাজ করতে চাই।

 

বন্ধ করুন