বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > রাজ্যে ‘‌দেশনায়ক দিবস’‌ নেতাজি জন্মজয়ন্তী হোক জাতীয় ছুটি, ফের দাবি জানালেন মমতা
পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ফাইল ছবি
পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ফাইল ছবি

রাজ্যে ‘‌দেশনায়ক দিবস’‌ নেতাজি জন্মজয়ন্তী হোক জাতীয় ছুটি, ফের দাবি জানালেন মমতা

  • মুখ্যমন্ত্রী এদিন আক্ষেপ করে বলেন, ‘‌আমি আজ বলতে বাধ্য হচ্ছি, নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসুকে নিয়ে যে মূল্যায়ন করা উচিত ছিল তা স্বাধীন ভারতবর্ষে আমরা করতে পারিনি। এটা আমাদের দুঃখ রয়ে গিয়েছে।’‌

নেতাজির জন্মদিনে জাতীয় ছুটির দাবিতে ফের কেন্দ্রের বিরুদ্ধে সরব হলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এ বছর নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসুর ১২৫তম জন্মবার্ষিকী উদ্‌যাপন করতে চলেছে পশ্চিমবঙ্গ সরকার। আর তা কীভাবে করা হবে সেই ব্লু প্রিন্ট তৈরির উদ্দেশে সোমবার নবান্নে বিশিষ্ট ব্যক্তিদের সঙ্গে বৈঠক করেন মমতা। সেখানেই তিনি ফের নেতাজির জন্মদিবসকে জাতীয় ছুটি হিসেবে ঘোষণা করার দাবি জানান।

মমতা এদিন বলেন, ‘‌আমি কেন্দ্রের কাছে এর আগেও চিঠি দিয়ে জানিয়েছে, আর এবারও চিঠি দিয়েছি এই দাবি করে যে নেতাজির জন্মদিবসকে জাতীয় ছুটি হিসেবে ঘোষণা করা উচিত। এটা খুব একটা বড় কাজ নয়। আমাদের এখানে আমরা ছুটি দিই। আমি তাই আজ দাবি জানাচ্ছি, নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসুর ১২৫তম জন্মদিবসটাকে জাতীয় ছুটি হিসেবে ঘোষণা করা হোক। এবং একইসঙ্গে সারা পৃথিবীর প্রতিটি কোণে যেখানে ভারতীয় দূতাবাস রয়েছে সেখানে এই দিনটি উদ্‌যাপন করা হোক।’‌

নেতাজিকে ‘‌দেশনায়ক’‌ উপাধি দিয়েছিলেন বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর। সে কথা উল্লেখ করে মমতা এদিন ঘোষণা করেন, ‘‌এ বছর পশ্চিমবঙ্গে নেতাজি জন্মজয়ন্তী দেশনায়ক দিবস হিসেবে পালিত হবে।’‌ কিন্তু এ সব নিয়ে কেন্দ্রের আপাতত কোনও ভূমিকার ব্যাপারে তিনি জানতে পারেননি বলে এদিন বলেন মুখ্যমন্ত্রী।তাঁর কথায়, ‘‌ভারতের মধ্যে বাংলায় প্রথম নেতাজির ১২৫তম জন্মবার্ষিকী উদ্‌যাপন নিয়ে আমরা কমিটি তৈরি করেছি। আমরা ভেবেছিলাম যে ভারত সরকার আগে থেকেই এ নিয়ে কমিটি করবে। কিন্তু তা এখনও করেনি। হয়তো দেরি করে করবে। জানি না। আমাদের কাছে এ ব্যাপারে কোনও তথ্য নেই। করুক। কারণ, নেতাজি শুধু বাংলার নয়, নেতাজি সারা ভারতবর্ষের, সারা পৃথিবীর।’‌

মুখ্যমন্ত্রী এদিন আক্ষেপ করে বলেন, ‘‌আমি আজ বলতে বাধ্য হচ্ছি, নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসুকে নিয়ে যে মূল্যায়ন করা উচিত ছিল তা স্বাধীন ভারতবর্ষে আমরা করতে পারিনি। এটা আমাদের দুঃখ রয়ে গিয়েছে। এবং আমাদের দুঃখ রয়ে গিয়েছে, যে নেতাজির জন্মদিন কবে বলতে পারলেও আমরা এটা বলতে পারি না যে তাঁর মৃত্যুদিন কবে। এটা অবিশ্বাস্য হলেও বিস্ময়।’‌

উল্লেখ্য, এদিন বৈঠকে ভার্চুয়ালি ও সশরীরে উপস্থিত ছিলেন নোবেলজয়ী অর্থনীতিবিদ অভিজিৎ বিনায়ক বন্দ্যোপাধ্যায়, যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য সুরঞ্জন দাস, কলকাতার আর্চ বিশপ ফেলিক্স রাজ, সন্ধ্যা মুখোপাধ্যায়, সুগত বসু, অর্থমন্ত্রী অমিত মিত্র, ব্রাত্য বসু, শুভাপ্রসন্ন, রুদ্রপ্রসাদ সেনগুপ্ত, জয় গোস্বামী, সুবোধ সরকার প্রমুখ।

বন্ধ করুন