বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > Summer Vacation: বন্ধ হল প্রাইভেট স্কুলের দরজাও, সরকারি নির্দেশে ল্যাপটপের সামনে ফিরল পড়ুয়ারা
বৃহস্পতিবার এক নির্দেশিকা জারি করে বিকাশ ভবনের তরফে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে, রাজ্যের প্রাইভেট স্কুলগুলি অফলাইনে ক্লাস করাতে পারবে না। (HT_PRINT)
বৃহস্পতিবার এক নির্দেশিকা জারি করে বিকাশ ভবনের তরফে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে, রাজ্যের প্রাইভেট স্কুলগুলি অফলাইনে ক্লাস করাতে পারবে না। (HT_PRINT)

Summer Vacation: বন্ধ হল প্রাইভেট স্কুলের দরজাও, সরকারি নির্দেশে ল্যাপটপের সামনে ফিরল পড়ুয়ারা

  • Summer Vacation: বৃহস্পতিবার এক নির্দেশিকা জারি করে বিকাশ ভবনের তরফে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে, রাজ্যের প্রাইভেট স্কুলগুলি অফলাইনে ক্লাস করাতে পারবে না। এর আগে সরকারি নির্দেশে ২ মে থেকে রাজ্যের সরকারি স্কুলগুলিতে গরমের ছুটি দেওয়া হয়েছে। এই ছুটি চলবে ১৫ জুন পর্যন্ত।

তীব্র দাবদাহের কারণে গরমের ছুটি এগিয়ে এনেছিল রাজ্য সরকার। সেই মতো সরকারি স্কুল ছুটি দিয়ে দেওয়া হয়েছে। তবে বেসরকারি স্কুলগুলি দিব্যি অফলাইন ক্লাস জারি রেখেছিল। এই আবহে গতকাল এক নির্দেশিকা জারি করে বিকাশ ভবনের তরফে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে, রাজ্যের প্রাইভেট স্কুলগুলি অফলাইনে ক্লাস করাতে পারবে না। যদি প্রয়োজন হয়, সেক্ষেত্রে অনলাইন ক্লাস জারি রাখা যাবে বলে জানানো হয়েছে।

জানা গিয়েছে, স্কুলের অফলাইন ক্লাস বন্ধের বিষয়ে আলোচনা করতে বৃহস্পতিবার নবান্নে গিয়েছিলেন বিভিন্ন বেসরকারি স্কুলের কর্তৃপক্ষ। সেখানে সরকারের তরফে স্কুল কর্তৃপক্ষকে প্রশ্ন করা হয়, কেন স্কুল খোলা রয়েছে? তারপরই একাধিক স্কুল অনলাইন ক্লাসের বিজ্ঞপ্তি জারি করে গতকালই। উল্লেখ্য, ২ মে থেকে ১৫ জুন পর্যন্ত রাজ্যের সরকারি স্কুলগুলিতে গরমের ছুটি দেওয়া হয়েছে। অথচ বেসরকারি স্কুলগুলিতে অফলাইনে ক্লাস হচ্ছে। এই আবহে কড়া পদক্ষেপ সরকারের। স্কুল শিক্ষা দফতরের নির্দেশ, সমস্ত স্কুলকেই সরকারি নির্দেশ মেনে অফলাইন ক্লাস বন্ধ করতে হবে।

আরও পড়ুন: নিম্নচাপে পরিণত হচ্ছে ঘূর্ণাবর্ত, বাংলার কোথায় কবে বৃষ্টি, জানাল আবহাওয়া দফতর

এদিকে বিভিন্ন শিক্ষক সংগঠনও এই দীর্ঘ ছুটির প্রতিবাদে আন্দোলনে নেমেছে। আদালতের দ্বারস্থ হয়েছে বঙ্গীয় প্রাথমিক শিক্ষক সমিতি। স্কুলে গরমের ছুটি কমানোর দাবিতে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এবং শিক্ষামন্ত্রী ব্রাত্য বসুর কাছেও আর্জি জানিয়েছেন স্কুল শিক্ষকদের একাংশ। শিক্ষকদের বক্তব্য, দীর্ঘ ২ বছর ধরে করোনা পরিস্থিতি এবং লকডাউনের ফলে স্কুল বন্ধ ছিল। যার ফলে পড়াশোনায় পড়ুয়াদের অনেক ক্ষতি হয়েছে এবং স্কুল থেকে অনেক পড়ুয়া বিমুখ হয়ে পড়ছে। তার উপরে গত কয়েকদিনের কালবৈশাখীর দাপটে তাপমাত্রা অনেকটাই নেমেছে। আগামী দিনেও কালবৈশাখীর সম্ভাবনা রয়েছে। ফলে খুব একটা বেশি গরম পড়বে না। এই অবস্থায় স্কুল ছুটির সিদ্ধান্ত প্রত্যাহারের আবেদন জানানো হয়েছে বিভিন্ন মহল থেকে।

বন্ধ করুন