ছবিটি প্রতীকী।
ছবিটি প্রতীকী।

সুখবর! ৪০% বাড়ছে রাজ্য সরকারী কর্মীদের বেসিক পেনশন

২১ জানুয়ারি ২০২০ তারিখে প্রকাশিত বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, ২০১৬ সালের পর যে সমস্ত রাজ্য সরকারি কর্মচারী অবসর গ্রহণ করেছেন, তাঁদের ক্ষেত্রে অবসরকালীন ভাতা, পারিবারিক পেনশন ও গ্রাচুয়িটিতে বিশেষ সংশোধন কার্যকর করা হবে।

রাজ্য সরকারী কর্মচারীদের বেসিক পেনশন বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিল পশ্চিমবঙ্গ সরকার। মঙ্গলবার এই তথ্য পাওয়া গিয়েছে অর্থ মন্ত্রক প্রকাশিত বিজ্ঞপ্তিতে।

২১ জানুয়ারি ২০২০ তারিখে প্রকাশিত বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, ২০১৬ সালের পর যে সমস্ত রাজ্য সরকারি কর্মচারী অবসর গ্রহণ করেছেন, তাঁদের ক্ষেত্রে অবসরকালীন ভাতা, পারিবারিক পেনশন ও গ্রাচুয়িটিতে বিশেষ সংশোধন কার্যকর করা হবে।

যে সমস্ত রাজ্য সরকারি কর্মী সংশোধিত বেতন কাঠামোর অধীনে এসেছেন, পশ্চিমবঙ্গ রোপা আইন [WBS (ROPA) Rules, 2019] অনুসারে তাঁরা বেসিক পেনশনে সর্বোচ্চ ৪০% পর্যন্ত বৃদ্ধি পাবেন। এই বর্ধিত পেনশন তাঁদের অবসর গ্রহণের দিন থেকে কার্যকর হবে।

এর আগেই নির্দেশ জারি করা হয় যে, ই-পেনশনের জন্য vide SED, W.B. Memo No.-62/55E/17 এবং No.-64SSE/17 তারিখ ১৭.৪.২০১৭-এর নির্দেশিকা মেনে আবেদনের ফর্ম ভরতে হবে।



লিখিত আবেদনপত্র পেনশন মঞ্জুর কর্তৃপক্ষ, জেলা স্কুল পরিদর্শক এবং সেই সঙ্গে জয়েন্ট ডিরেক্টর অফ অ্যাকাউন্ট (জেডিএ), ডেপুটি অ্যাসিস্ট্যান্ট ডিরেক্টর অফ অ্যাকাউন্ট (ডিডিএ) এবং অ্যাডিশনাল ডিরেক্টর (এডিএ) মারফত যাচাই, সেই কারণে প্রতি স্তরে কঠোর ভাবে সময়সীমা মেনে চলতে কার্যকাল শেষ হওয়ার তিন বছর আগে এই প্রক্রিয়া শুরু করতে হবে। অফলাইনে আবেদন ফর্ম ভরতির নিয়মাবলীর ক্ষেত্রে মনে রাখতে হবে:

• পেনশন ফর্ম ভরতির ক্ষেত্রে মাধ্যমিক স্কুলের প্রধান শিক্ষক বা শিক্ষিকা অথবা অ্যাডমিনিস্ট্রেটর কিংবা টিচার ইনচার্জ এবং প্রাথমিক স্কুলের সাব-ইন্সপেক্টর পদে অবসর নিলে অবসরের ৪ বছর বাকি রয়েছে, এমন কর্মীর নাম, জন্মতারিখ এবং অবসরের তারিখ-সহ ফরম্যাট মেনে রেজিস্টার তৈরি করতে হবে। সেই সঙ্গে পেনশন রেজিস্ট্রার বহাল রাখতে হবে। প্রতি বছর ১ জানুয়ারি থেকেই রেজিস্ট্রার তৈরির কাজ শুরু করতে হবে। ১৫ জানুয়ারির মধ্যে তার একটি কপি পেনশন মঞ্জুর কর্তৃপক্ষ এবং স্কুলের জেলা ইনস্পেক্টরের কাছে জমা দিতে হবে।

• সংশ্লিষ্ট স্কুল কর্তৃপক্ষকে কর্মীদের অবসরের ৪২ মাস আগে আগাম নোটিশ দিতে হবে। নোটিশে পেনশন সংক্রান্ত সমস্ত নথি এবং সার্ভিস বুক, কোনও কর্মী অতিরিক্ত পরিমাণ টাকা অগ্রিম নিলে তা মাসিক বেতনের সঙ্গে যুক্ত করার সেলফ ডিক্লেয়ারেশন ফর্ম ইত্যাদি ভরতি করে অবসরের অন্তত ৪৫ মাস আগে জমা করার কথা উল্লেখ থাকবে।

• নিয়োগের নির্দেশ, পদ এবং নিয়োগের অনুমোদন, সাবজেক্ট অথবা গ্রুপ যেখানে একজন কর্মচারী বর্তমানে নিযুক্ত, শিক্ষাগত যোগ্যতার পূর্ণাঙ্গ তথ্য এবং কাজে যুক্ত হওয়ার পরে অর্জিত শিক্ষাগত যোগ্যতার মান বাড়াতে কোনও পরীক্ষা দিলে সেই পরীক্ষার শেষ তারিখ, কর্মস্থলে পদোন্নতি হয়ে থাকলে সেই সংক্রান্ত পে অ্যান্ড সার্ভিসে পরিবর্তন, ইনক্রিমেন্ট অপশন যা পেনশন স্কিম-এর আওতাধীন, যা রোপা রুল এবং পে ফিক্সেশন-এর অপশনের নির্দেশিকায অনুযায়ী কার্যকর হয়েছে, এমন সমস্ত বিষয় সময় ও ক্রম অনুসারে রেজিস্ট্রারের অন্তর্ভুক্ত করতে হবে।

• পেনশন মঞ্জুর কর্তৃপক্ষ এই সমস্ত নথি নির্ধারিত তালিকা অনুযায়ী বিবেচনা করে দেখে এবং নিশ্চয়তা দেওয়ার পরে তা সংশ্লিষ্ট কর্মীর অবসরের ৩৯ মাস আগে ফের যাচাইয়ের জন্য জেডিএ, ডিডিএ, এডিএ-এর কাছে পাঠানো হবে।

• চূড়ান্ত যাচাই পদ্ধতিতে কোনও ভুল ধরা পড়লে ২ মাসের মধ্যে তা পেনশন মঞ্জুর কর্তৃপক্ষের কাছে সংশোধনের জন্য ফেরত পাঠাতে হবে।

• জেডিএ, ডিডিএ, এডিএ-এর পুনর্বিবেচনার পরে পেনশন সংক্রান্ত সমস্ত নথি নিয়ে যদি কোনও আপত্তি থাকে তাহলে তা ২ মাসের মধ্যে সংশোধন করে পেনশন মঞ্জুর কর্তৃপক্ষের কাছে পাঠাতে হবে। এই বিষয়ে কর্মীদের থেকে কোনও তথ্য জানতে চাওয়া হলে ১৫ দিনের মধ্যে সংশ্লিষ্ট কর্মীকেও তা জানাতে হবে।

বন্ধ করুন