বাড়ি > বাংলার মুখ > কলকাতা > ত্রাণে দুর্নীতি হলে ছেড়ে কথা বলবে না সরকার, সর্বদল বৈঠকের পর বললেন মমতা
নবান্নে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ফাইল ছবি
নবান্নে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ফাইল ছবি

ত্রাণে দুর্নীতি হলে ছেড়ে কথা বলবে না সরকার, সর্বদল বৈঠকের পর বললেন মমতা

  • মুখ্যমন্ত্রী জানান, ‘আমফানের ত্রাণ নিয়ে দুর্নীতির জন্য ইতিমধ্যে দলের ৪ জন জনপ্রতিনিধিকে বহিষ্কার করেছে তৃণমূল।’ তাঁর আহ্বান, এব্যাপারে সমস্ত দলকে একজোট হয়ে কাজ করতে হবে।

আমফানের ক্ষতিপূরণ নিয়ে দুর্নীতি হলে ছেড়ে কথা বলবে না রাজ্য সরকার। বুধবার নবান্নে সাংবাদিক বৈঠকে একথা বললেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এদিন তিনি বলেন, ‘আমফানের ত্রাণ নিয়ে স্বজনপোষণ হলে কড়া পদক্ষেপ করবে প্রশাসন।’ এই মর্মে বিডিও ও জেলাশাসকদের নির্দেশ দিয়েছেন তিনি। 

এদিন মমতা বলেন, ‘আমফানের ত্রাণ নিয়ে স্বজনপোষণ মেনে নেবে না সরকার। কেউ বঞ্চিত হয়ে থাকলে ৭ দিনের মধ্যে তার নাম তালিকায় ঢোকাতে হবে। কেউ বঞ্চিত মনে করলে তিনি সাদা কাগজে আবেদন করে বিডিও বা জেলাশাসককে জমা দিতে পারেন। আমি তাঁদের তালিকায় নাম সংযোজনের অধিকার দিলাম।’

মুখ্যমন্ত্রী জানান, ‘আমফানের ত্রাণ নিয়ে দুর্নীতির জন্য ইতিমধ্যে দলের ৪ জন জনপ্রতিনিধিকে বহিষ্কার করেছে তৃণমূল।’ তাঁর আহ্বান, এব্যাপারে সমস্ত দলকে একজোট হয়ে কাজ করতে হবে। 

সঙ্গে মুখ্যমন্ত্রীর আবেদন, আমফানের ত্রাণ নিয়ে অভিযোগ থাকলে বিডিও অফিসে ভাঙচুর করবেন না। প্রশাসনকে জানান, পদক্ষেপ করা হবে। 

বলে রাখি, ঘূর্ণিঝড় আমফানে ক্ষতিগ্রস্ত বাড়ির মালিকদের ২০,০০০ টাকা করে ক্ষতিপূরণ ঘোষণা করেছে রাজ্য সরকার। অভিযোগ, সেই ক্ষতিপূরণ চলে যাচ্ছে শাসকদলের নেতা, পঞ্চায়েত প্রধান, পঞ্চায়েত সদস্য ও তাঁদের ঘনিষ্ঠদের পকেটে। বুধবারের বৈঠকে এই নিয়ে মুখ্যমন্ত্রীর কাছে অভিযোগ জানান বিরোধীরা। তাঁরা বলেন, এতে একদিকে সরকারের পয়সাও খরচ হচ্ছে অন্যদিকে বদনামও হচ্ছে। 

 

বন্ধ করুন