বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > শুরুতেই কি 'প্রাক্তন' দিলীপের উলটো পথ ধরলেন বঙ্গ বিজেপির নয়া সভাপতি সুকান্ত?
সুকান্ত মজুমদার।
সুকান্ত মজুমদার।

শুরুতেই কি 'প্রাক্তন' দিলীপের উলটো পথ ধরলেন বঙ্গ বিজেপির নয়া সভাপতি সুকান্ত?

গত বিধানসভা ভোটের পর হঠাৎ উত্তরবঙ্গ নিয়ে পৃথক রাজ্য গঠনের দাবি তোলেন আলিপুরদুয়ারের বিজেপি সাংসদ জন বারলা।

‌উত্তরবঙ্গ থেকেই বাংলা ভাগের দাবি উঠেছিল। দাবি উঠেছিল বিজেপির অন্দর থেকেই। এবার সেই দাবির উল্টো পথেই হাঁটলেন উত্তরবঙ্গ থেকে নির্বাচিত সাংসদ তথা রাজ্যের নতুন বিজেপি সভাপতি সুকান্ত মজুমদার। তাঁর মতে, উত্তরবঙ্গ–দক্ষিণবঙ্গ বলে কিছু হয় না। পশ্চিমবঙ্গ একটাই।

গত বিধানসভা নির্বাচনের পর থেকেই বিজেপির রাজ্য সভাপতি বদল নিয়ে জোর জল্পনা শুরু হয়েছিল। শেষ পর্যন্ত গতকাল বিজেপির নতুন রাজ্য সভাপতির দায়িত্ব দেওয়া হয় বালুরঘাটের সাংসদ সুকান্ত মজুমদারকে। নতুন দায়িত্ব পাওয়ার পর বালুরঘাটের সাংসদের কাছে বাংলাকে ভাগ করে পৃথক উত্তরবঙ্গ রাজ্য গঠন নিয়ে প্রশ্ন উঠে আসে। সেই প্রসঙ্গে বিজেপির নতুন রাজ্য সভাপতির বক্তব্য, ‘‌পশ্চিমবঙ্গকে আমি একসঙ্গে দেখতে চাই। উত্তরবঙ্গ, দক্ষিণবঙ্গের কোনও ভেদাভেদ নেই। আলাদা করে উত্তরবঙ্গ, দক্ষিণবঙ্গ বলে কিছু হয় না।’‌

উল্লেখ্য, গত বিধানসভা ভোটের পর হঠাৎ উত্তরবঙ্গ নিয়ে পৃথক রাজ্য গঠনের দাবি তোলেন আলিপুরদুয়ারের বিজেপি সাংসদ জন বারলা। জন বারলা এই দাবি তোলার পাশাপাশি উত্তরবঙ্গে কয়েকজন বিধায়ক উত্তরবঙ্গ নিয়ে পৃথক রাজ্য গঠনের প্রস্তাবে সমর্থন করেন। যদি বিজেপির প্রাক্তন রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ বিজেপির মধ্যে থেকে উঠে আসা এই প্রস্তাবে সমর্থন করেননি। তিনি আলিপুরদুয়ারের সাংসদকে এই দাবি থেকে বিরত থাকার কথাও বলেন। পরে অবশ্য দিলীপ দাবি করেছিলেন, আজ যদি উত্তরবঙ্গ, জঙ্গলমহল আলাদা রাজ্যের দাবি তোলে, তাহলে তার সম্পূর্ণ দায় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের। তাঁরা যদি পৃথক রাজ্যের দাবি তুলে থাকেন, তাহলে তা অবৈধ নয়।

বন্ধ করুন