বাড়ি > বাংলার মুখ > কলকাতা > ‘স্বাস্থ্যসাথী’ না-পসন্দ, WBHS চেয়ে একজোট বাংলার শিক্ষকরা
৩ বছর কাটতে না-কাটতেই মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ঘোষিত স্বাস্থ্যসাথী প্রকল্প থেকে নাম প্রত্যাহার করে নিয়েছেন বহু শিক্ষক।
৩ বছর কাটতে না-কাটতেই মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ঘোষিত স্বাস্থ্যসাথী প্রকল্প থেকে নাম প্রত্যাহার করে নিয়েছেন বহু শিক্ষক।

‘স্বাস্থ্যসাথী’ না-পসন্দ, WBHS চেয়ে একজোট বাংলার শিক্ষকরা

  • অভিষেকের ৩ বছর কাটতে না-কাটতেই 'স্বাস্থ্যসাথী' প্রকল্প নিয়ে মোহভঙ্গ হচ্ছে শিক্ষক মহলের।

WBHS চাই, ‘স্বাস্থ্যসাথী’ চাই না। সম্প্রত এই দাবিতে একজোট হয়েছে পশ্চিমবঙ্গের সমস্ত শিক্ষক সংগঠন। 

স্বাস্থ্যবিমা নিয়ে শিক্ষক শিক্ষিকাদের দীর্ঘ দিনের দাবি আশার আলো দেখেছিল ৩ বছর আগে। কলকাতায় নজরুল মঞ্চে আয়োজিত শিক্ষক দিবসের অনুষ্ঠানে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় স্কুল শিক্ষক-শিক্ষিকাদের জন্য ‘স্বাস্থ্যসাথী’ প্রকল্প ঘোষণা করেছিলেন । কিন্তু ৩ বছর কাটতে না কাটতেই সেই প্রকল্পে মোহভঙ্গ হচ্ছে শিক্ষক মহলের। প্রকল্পে নথিভুক্ত শিক্ষক-শিক্ষিকাদের অধিকাংশেরই জেলায় জেলায় নাম প্রত্যাহার করতে শুরু করেছেন।

সমীক্ষায় দেখা গিয়েছে, প্রায় ৯৮% অর্থাৎ শিক্ষক-শিক্ষিকাদের সংখ্যাগরিষ্ঠ অংশ 'ওয়েস্ট বেঙ্গল হেল্থ স্কিম'-এর পক্ষে আর মাত্র ২% শিক্ষক-শিক্ষিকা ‘স্বাস্থ্যসাথীর’ পক্ষে নিজেদের মতামত প্রদান করেছেন। সম্প্রতি পূর্ব বর্ধমান জেলাতেও ১১১ জন শিক্ষক-শিক্ষিকা করোনা আবহের মধ্যেও এই প্রকল্প থেকে নিজেদের নাম প্রত্যাহার করেছেন। তাই প্রশ্ন স্বাভাবিক ভাবেই ওঠে যে, কেন এই সরকারি স্বাস্থ্য পরিষেবা শিক্ষকমহলে জায়গা করে নিতে পারেনি? 

শিক্ষক-শিক্ষিকাদের মতে এর এক বড় কারণ বৈষম্য। যে ‘স্বাস্থ্যসাথী’ প্রকল্প অসংগঠিত ক্ষেত্রের কর্মচারীদের বিনা প্রিমিয়ামে পরিষেবা দেয়, তার সুবিধা নিতে শিক্ষক- শিক্ষিকাদের চিকিৎসা ভাতার টাকা কেটে নেওয়া হয়। আবার ওই একই ভাতার বিনিময়ে কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের স্থায়ীপদে কর্মরত শিক্ষক-শিক্ষিকারা ওয়েস্ট বেঙ্গল হেল্থ স্কিমের সুবিধা ভোগ করলেও স্কুল শিক্ষকরা কিন্তু তা থেকে বঞ্চিত। তাই প্রাথমিক থেকে হাইস্কুল সর্বত্রই শিক্ষক-শিক্ষিকাদের মধ্যে এই বৈষম্য নিয়ে অসন্তোষ সৃষ্টি হচ্ছে।

এ ছাড়া, স্বাস্থ্যসাথী প্রকল্পে নথিভুক্ত শিক্ষক-শিক্ষিকাদের কেউ কেউ ভালো পরিষেবা পেলেও অধিকাংশেরই এই সুবিধা পেতে গিয়ে হাসপাতালের মনোভাব ও ব্যবহারের কারণে হয়রানির শিকার হতে হচ্ছে। তাঁদের মতে, ওয়েস্ট বেঙ্গল হেল্থ স্কিম-এর সুবিধা অনেক বেশি। রাজ্য ও রাজ্যের বাইরে গুরুত্বপূর্ণ চিকিৎসা প্রতিষ্ঠানে চিকিৎসা পরিষেবার সুযোগ পাওয়া থেকে শুরু করে ও পি ডি চিকিৎসা, রিইমবার্সমেন্ট ও সম্প্রতি করোনা চিকিৎসার মতো সুবিধা এতে পাওয়া যায়। স্বাস্থ্যসাথী-তে থাকার কারণে এই উন্নত মানের স্বাস্থ্য পরিষেবা থেকে বঞ্চিত শিক্ষকরা।

তাই শিক্ষকদের দাবি, চিকিৎসা ভাতার বিনিময়ে যদি কোনও স্বাস্থ্যবিমার পরিষেবা সরকারি তরফে দেওয়া হয় তবে তা রাজ্য সরকারি কর্মচারী ও স্থায়ীপদে কর্মরত কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের মতো ‘ওয়েস্ট বেঙ্গল হেল্থ স্কিম’-ই দেওয়া হোক। বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন শিক্ষক সংগঠনের তরফে এ বিষয়ে দাবি করা হলেও বর্তমানে আবার শিক্ষকমহলে এই নিয়ে জোরদার দাবি উঠছে। 

বন্ধ করুন