বড় খবর

করোনা পরীক্ষায় গোটা দেশে সবার পিছনে পশ্চিমবঙ্গ, তাই কি আক্রান্তের সংখ্যা এত কম?

ফাইল ছবি
ফাইল ছবি

  • প্রতি ১০ লক্ষ জনসংখ্যায় করোনা পরীক্ষা হয়েছে আনুমানিক ২১ জনের। যা গোটা ভারতে সব থেকে কম।

গোটা দেশে হু হু করে বাড়ছে করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা। সবার ওপরে রয়েছে মহারাষ্ট্র। সেখানে ১৫০০ পর করেছে আক্রান্তের সংখ্যা। শুধু মুম্বই শহরেই করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ১০০০ পার করেছে। সেই তুলনায় আপাতদৃষ্টিতে পশ্চিমবঙ্গের অবস্থা অনেকটা ভাল। রাজ্য সরকারের পরিসংখ্যান অনুসারে শুক্রবার পর্যন্ত রাজ্যে করোনায় আক্রান্ত অবস্থায় চিকিৎসাধীনের সংখ্যা মাত্র ৮৯। তবে তাতে নিশ্চিন্ত হওয়ার অবকাশ নেই। কারণ পরিসংখ্যান বলছে, গোটা দেশে করোনা পরীক্ষায় সবার পিছনে পশ্চিমবঙ্গ। বিশেষজ্ঞদের মতে, সেই জন্যই প্রতিফলিত হচ্ছে না প্রকৃত সংখ্যা।

শুক্রবার নবান্নে স্বরাষ্ট্রসচিব রাজীব সিনহা জানিয়েছেন, ওই দিন পর্যন্ত পশ্চিমবঙ্গে করোনা পরীক্ষা হয়েছে ২০৯৫টি। পশ্চিমবঙ্গের আনুমানিক জনসংখ্যা প্রায় ১০ কোটি। সেই হিসাবে প্রতি ১০ লক্ষ জনসংখ্যায় করোনা পরীক্ষা হয়েছে আনুমানিক ২১ জনের। যা গোটা ভারতে সব থেকে কম।

দেশে করোনা পরীক্ষায় সব থেকে এগিয়ে কেন্দ্র শাসিত অঞ্চল লাদাখ। সেখানে প্রতি ১০ লক্ষ জনসংখ্যাপিছু প্রায় ২১১১ জনের করোনা পরীক্ষা হয়েছে। যদিও লাদাখের জনসংখ্যা পশ্চিমবঙ্গের তুলনায় নগন্য।

গোটা দেশে করোনাভাইরাস পরীক্ষার পরিসংখ্যান। (প্রতি ১০ লক্ষ জনসংখ্যা পিছু)
গোটা দেশে করোনাভাইরাস পরীক্ষার পরিসংখ্যান। (প্রতি ১০ লক্ষ জনসংখ্যা পিছু)


বড় রাজ্যগুলির মধ্যে সবার আগে রয়েছে দিল্লি। সেখানে প্রতি ১০ লাখে প্রায় ৫৯৪ জনের পরীক্ষা হয়েছে। তার পর রয়েছে বাম শাসিত কেরল। সেখানে প্রতি ১০ লক্ষ জনসংখ্যায় ৩৬৫.৫ জনের করোনা পরীক্ষা হয়েছে। এর পর রয়েছে গোয়া। সেখানে প্রতি ১০ লাখে প্রায় ২৩৬ জনের করোনা পরীক্ষা হয়েছে। উত্তর প্রদেশে প্রতি ১০ লাখে ৪২ জনের, বিহারে ৪৮.৪ জনের, ঝাড়খণ্ডে ৪৩.৬ জনের, অসমে ৭৫.৩ জনের, ওড়িশায় ৬৭.৭ জনের করোনা পরীক্ষা হয়েছে।

দেশে সব থেকে বেশি করোনা আক্রান্ত রাজ্য মহারাষ্ট্রে প্রতি ১০ লক্ষে করোনা পরীক্ষা হয়েছে ২৭৩.৮ জনের। সেখানে পশ্চিমবঙ্গে ১০ লক্ষ জনসংখ্যা পিছু করোনা পরীক্ষার সংখ্যা মাত্র ২০.৭। যা গোটা ভারতবর্ষে সর্বনিম্ন। WHO-র নির্দেশিকা অনুসারে যত বেশি সংখ্যায় সম্ভব COVID 19-এর পরীক্ষা করতে হবে। যত বেশি পরীক্ষা হবে, রোগ নিয়ন্ত্রণে আসবে তত দ্রুত।


বিরোধী বিজেপির দাবি, করোনায় আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা গোপন করতে পরীক্ষা করাচ্ছে না মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকার। এই নিয়ে শুক্রবার এক টুইট করেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়। তাতে বেশ কয়েকটি নথি তুলে ধরে তিনি দাবি করেছেন, নাইসেডের কলকাতা ডিপোয় করোনাভাইরাস পরীক্ষার ২৮৫০০ কিট মজুত রয়েছে। এসএসকেএম হাসপাতালে রয়েছে ২,২০০ কিট, মেদিনীপুর মেডিক্যালে পাঠানো হয়েছে ১,২০০ কিট। বেলেঘাটা নাইসেডের কাছে রয়েছে ৩,৫৬৭টি কিট। উত্তরবঙ্গ মেডিক্যাল কলেজে রয়েছে ১,২০০ কিট। মালদা মেডিক্যালে রয়েছে ১,০০০ কিট। এছাড়া কলকাতার স্কুল অফ ট্রপিক্যাল মেডিসিনে মজুত রয়েছে ১,২০০ কিট। এই পরিসংখ্যান দিয়ে বাবুল অভিযোগ করেছেন, পর্যাপ্ত কিট থাকলেও করোনা নির্ণয়ে পরীক্ষা করাচ্ছে না রাজ্য সরকার। করোনা রোগীদের লালারসের নমুনা নাইসেডে পাঠানোই হচ্ছে না।


বন্ধ করুন