বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > Nabanna Abhijan: ‘পেট্রোল কোথা থেকে পেল?’ পুলিশের গাড়িতে আগুন নিয়ে ‘বহিরাগত’ আখ্যা দিলীপের
দিলীপ ঘোষ (HT_PRINT)

Nabanna Abhijan: ‘পেট্রোল কোথা থেকে পেল?’ পুলিশের গাড়িতে আগুন নিয়ে ‘বহিরাগত’ আখ্যা দিলীপের

  • তার আরও প্রশ্ন, ‘যখন গাড়িতে আগুন লাগিয়ে দেওয়া হয়েছিল তখন পুলিশই বা কোথায় ছিল? তাদের কেন পুলিশ ধরছে না?’ দিলীপের বক্তব্য, এর পিছনে ষড়যন্ত্র রয়েছে। চক্রান্ত করে বিজেপিকে ফাঁসাতে চাইছে বলে তার অভিযোগ। তার দাবি, তাদের শান্তিপূর্ণ নবান্ন অভিযানে অশান্তি ছড়ানোর চেষ্টা করেছে শাসক দল। 

মঙ্গলবার বিজেপির নবান্ন অভিযানকে কেন্দ্র করে রণক্ষেত্র চেহারা নিয়েছিল বিভিন্ন এলাকায়। পুলিশ কর্মীদের মারধরের পাশাপাশি এমজি রোডে পুলিশের গাড়িতে পেট্রোল ঢেলে আগুন লাগিয়ে দেওয়া হয়। বিজেপির পতাকা হাতে ওই গাড়িতে আগুন ধরিয়ে দিতে দেখা যায় কয়েকজনকে। সেই অভিযোগ প্রথম থেকে অস্বীকার করে আসছে বিজেপি। এ ঘটনা প্রসঙ্গে যারা পুলিশের গাড়িতে আগুন ধরিয়ে ছিল তারা বিজেপি কর্মী নয় বলে দাবি করলেন বিজেপির সর্বভারতীয় সহ-সভাপতি দিলীপ ঘোষ। আজ ইকোপার্কে প্রাতঃভ্রমণে বেরিয়ে দিলীপ ঘোষ প্রশ্ন তোলেন, ‘যারা পুলিশের গাড়িতে আগুন ধরিয়েছিল তারা কোথা থেকে পেল পেট্রোল?’

আরও পড়ুন: ‌সুকান্ত মজুমদারকে দু’‌বার ফোন করলেন অমিত শাহ, কী কথা হল দু’‌জনের মধ্যে?

আজ সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে দিলীপ ঘোষ বলেন, ‘ রাস্তা দিয়ে হাজার হাজার লোক বিজেপির পতাকা নিয়ে যাচ্ছিল। যারা আগুন লাগিয়েছে তারা বিজেপির লোক নয়, বহিরাগত।’ তার আরও প্রশ্ন, ‘যখন গাড়িতে আগুন লাগিয়ে দেওয়া হয়েছিল তখন পুলিশই বা কোথায় ছিল? তাদের কেন পুলিশ ধরছে না?’ দিলীপের বক্তব্য, এর পিছনে ষড়যন্ত্র রয়েছে। চক্রান্ত করে বিজেপিকে ফাঁসাতে চাইছে বলে তার অভিযোগ। তার দাবি, তাদের শান্তিপূর্ণ নবান্ন অভিযানে অশান্তি ছড়ানোর চেষ্টা করেছে শাসক দল।

প্রসঙ্গত, গতকাল পুলিশের গাড়িতে আগুন লাগার ঘটনার পরেই বিজেপির রাজ্য সভাপতি সুকান্ত মজুমদার এই ঘটনার সঙ্গে তৃণমূলের যোগ রয়েছে বলে অভিযোগ করেছিলেন। তার দাবি, পুলিশই গাড়িতে আগুন লাগিয়েছিল। বিজেপি বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ করছে তৃণমূল। বিজেপি শান্তিপূর্ণভাবে আন্দোলন করেছে। যদিও তার উত্তর দিতে ছাড়েননি তৃণমূলের মুখপাত্র কুণাল ঘোষ। তিনি বলেছিলেন, ‘কারা আগুনে লাগিয়েছে তা সবাই দেখেছে। কারা অশান্তি করেছে তাও দেখেছে। আসলে এদের কোনও নীতি নেই।’

বন্ধ করুন