বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > প্রেমিককে বাড়িতে ডেকে স্বামীকে খুন করলেন বধূ, সারা রাত শুয়ে রইলেন মৃতদেহের পাশে
প্রতীকি ছবি

প্রেমিককে বাড়িতে ডেকে স্বামীকে খুন করলেন বধূ, সারা রাত শুয়ে রইলেন মৃতদেহের পাশে

  • নিহত যুবকের নাম আজমল হোসেন (২৩)। ২ মাস আগে মেরিনার (১৯) সঙ্গে বিয়ে হয়েছিল তার। নিহতের পরিবারের সদস্যদের অভিযোগ, বিয়ের পর থেকে কেবলই মোবাইল ফোনে ব্যস্ত থাকতেন বধূ। স্বামী ও শ্বশুরবাড়ির লোকেরা বারণ করলেও কাজ হয়নি।

বিয়ের ২ মাসের মধ্যে বিবাহবহির্ভূত সম্পর্কের জেরে প্রেমিকের সঙ্গে হাত মিলিয়ে স্বামীকে খুনের অভিযোগ উঠল স্ত্রীর বিরুদ্ধে। মালদার হরিশ্চন্দ্রপুর থানার পুরাতন রাঙাইপুর গ্রামের ঘটনা। অভিযুক্ত স্ত্রী মারিনা খাতুনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। অভিযুক্ত প্রেমিক আবু কালাম পলাতক।

নিহত যুবকের নাম আজমল হোসেন (২৩)। ২ মাস আগে মেরিনার (১৯) সঙ্গে বিয়ে হয়েছিল তার। নিহতের পরিবারের সদস্যদের অভিযোগ, বিয়ের পর থেকে কেবলই মোবাইল ফোনে ব্যস্ত থাকতেন বধূ। স্বামী ও শ্বশুরবাড়ির লোকেরা বারণ করলেও কাজ হয়নি। শুক্রবার সকালে মারিনা জানায়, স্বামী আজমল ঘুম থেকে উঠছেন না। পরিবারের লোকেরা এসে দেখেন, বিছানায় পড়ে রয়েছে আজমলের নিথর দেহ। গলায় কালসিঁটে দাগ। ঘটনা বুঝতে দেরি হয়নি তাদের।

সঙ্গে সঙ্গে তাঁরা পুলিশে খবর দেন। হরিশ্চন্দ্রপুর থানার আধিকারিকরা গিয়ে মেরিনাকে চেপে ধরতেই সব সত্যি বলে দেয় সে। জানায়, রাতে স্বামী ঘুমিয়ে পড়লে ফোনে মেসেজ করে প্রেমিক আবু কালামকে ডাকে সে। প্রেমিক শ্বশুবাড়ি পৌঁছে তাকে জানায়। এর পর চুপিসাড়ে তাকে দরজা খুলে দেয় মেরিনা। ২ জনে মিলে গলায় ওড়নার ফাঁস দিয়ে খুন করে ঘুমন্ত আজমলকে। এর পর পালায় প্রেমিক কামাল। আর দরজা বন্ধ করে স্বামীর মৃতদেহের পাশে শুয়ে পড়ে সে। সকালে বাড়ির লোকেদের জানায় স্বামী ঘুম থেকে উঠছে না।

তিনি জানিয়েছেন, কামালের সঙ্গে দীর্ঘদিনের সম্পর্ক ছিল তার। কিন্তু সেই সম্পর্ক মেনে নেয়নি বধূর বাপের বাড়ির লোকেরা। আজমলের সঙ্গে তাঁর বিয়ে দেয় তারা। কিন্তু বিয়ের পরও নিয়মিত কামালের সঙ্গে যোগাযোগ ছিল তার। 

এর পর অভিযুক্ত স্ত্রীকে গ্রেফতার করে পুলিশ। তাঁর প্রেমিকের খোঁজে তল্লাশি চলছে। দেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তে পাঠিয়েছেন আধিকারিকরা। ঘুম পাড়ানোর জন্য আজমলকে কিছু খাওয়ানো হয়েছিল কি না তা জানার চেষ্টা চলছে। খুনি বউমার শাস্তি চেয়েছে শ্বশুরবাড়ির সদস্যরা।

 

বন্ধ করুন