বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > বিজ্ঞানের ছাত্র না হলে গরুর দুধে সোনা বুঝবেন না, দিলীপের তত্ত্বে সায় সুকান্তর
দিলীপ ঘোষ এবং সুকান্ত মজুমদার। (ফাইল ছবি, এএনআই এবং টুইটার)
দিলীপ ঘোষ এবং সুকান্ত মজুমদার। (ফাইল ছবি, এএনআই এবং টুইটার)

বিজ্ঞানের ছাত্র না হলে গরুর দুধে সোনা বুঝবেন না, দিলীপের তত্ত্বে সায় সুকান্তর

  • সুকান্ত মজুমদারের দাবি,  একটা খাবার খেলে আয়রন বাড়ে। তার মানে এই নয় যে, আয়রন দিয়ে টিএমটি বার বানিয়ে আপনি বাড়ি বানাবেন।

২০১৯ সাল। বর্ধমানে গাভীকল্যাণ সমিতির সভায় উপস্থিত হয়েছিলেন বিজেপির তৎকালীন রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। আচমকাই করে বসলেন সেই বিশেষ মন্তব্য। সেদিন দিলীপ ঘোষ বলেছিলেন, গরুর দুধে সোনার ভাগ থাকায় রং হলুদ হয়। দেশি গরুর কুঁজে থাকে স্বর্ণনাড়ি। আর সভা শেষ না হওয়ার আগেই নেটপাড়াতে একেবারে ঝড়ের গতিতে ছড়িয়ে পড়েছিল সেই সোনা তত্ত্বের কথা। এখনও দিলীপ ঘোষের কথা উঠলে সেই সোনার কথাও তোলেন অনেকে। এবার সেই দিলীপ ঘোষের জায়গায় রাজ্য সভাপতির চেয়ারে বসার পরই পূর্বসূরীর সেই সোনা তত্ত্বের ব্যাখ্যা দিলেন নবনিযুক্ত রাজ্য সভাপতি সুকান্ত মজুমদার। তিনি গৌড়বঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয়ের উদ্ভিদবিদ্যার অধ্যাপক হিসাবেও দায়িত্ব সামলেছেন। এবার সেই সুকান্ত মজুমদারই কার্যত দিলীপ ঘোষের সোনা তত্ত্বের পাশে দাঁড়ালেন।

কলকাতায় সাংবাদিক বৈঠকে তিনি বলেন,  ‘সেই সময় একটি জার্নালে ভারতীয় গরুর দুধে সোনা পাওয়া নিয়ে একটা পেপার বেরিয়েছিল। আমিও সেটা পড়েছিলাম। একটা খাবার খেলে আয়রন বাড়ে। তার মানে এই নয় যে, আয়রন দিয়ে টিএমটি বার বানিয়ে আপনি বাড়ি বানাবেন। সোনা পাওয়া যায় মানে গয়না বানানো যায় এমন নয়। অতিরঞ্জিত করে আমাদের যারা রাজনৈতিক বিরোধী তারা অন্যভাবে প্রকাশ করেছেন। বিজ্ঞানের ছাত্র না হলে বোঝা মুশকিল।’ কার্যত বাংলায় ব্য়াটিং করতে নেমে এভাবেই সোনা তত্ত্ব নিয়ে দিলীপ ঘোষের মন্তব্য়ের পাশে দাঁড়ালেন সুকান্ত মজুমদার। আর এসব শুনে তৃণমূলের সাংসদ সুখেন্দুশেখর রায়ের সরস মন্তব্য, ওদের পুরো দলটাই গরু বিজ্ঞানীদের দল।  

 

বন্ধ করুন