বাড়ি > বাংলার মুখ > কলকাতা > করোনায় আক্রান্ত হয়ে কলকাতায় শহিদ তরুণ চিকিৎসক
প্রতীকি ছবি
প্রতীকি ছবি

করোনায় আক্রান্ত হয়ে কলকাতায় শহিদ তরুণ চিকিৎসক

  • হাসপাতাল সূত্রে জানা গিয়েছে, করোনা সংক্রমণের পর থেকেই শারীরিক অবস্থার অবনতি হচ্ছিল নীতিশ কুমারের। তাঁর ফুসফুসের কার্যক্ষমতা খুব কমে গিয়েছিল।

করোনাভাইরাসের সংক্রমণে ফের কলকাতায় মৃত্যু হল এক চিকিৎসকের। প্রয়াত চিকিৎসক নীতিশ কুমারের বয়স হয়েছিল মাত্র ৩৬ বছর। রবীন্দ্রনাথ টেগোর হাসপাতেলে হৃদরোগের চিকিৎসক ছিলেন তিনি। 

জানা গিয়েছে, সম্প্রতি ভিনরাজ্যে নিজের বাড়ি গিয়েছিলেন ওই চিকিৎসক। বাড়ি থেকে ফেরার পর তাঁর শরীরে করোনার উপসর্গ দেখা দেয়। পরীক্ষা করলে ফল আসে পজিটিভ। এর পর তাঁকে RN টেগোর হাসপাতালেই ভর্তি করা হয়।  সেখানে মঙ্গলবার দুপুর ৩টে নাগাদ মৃত্যু হয় তাঁর। 

হাসপাতাল সূত্রে জানা গিয়েছে, করোনা সংক্রমণের পর থেকেই শারীরিক অবস্থার অবনতি হচ্ছিল নীতিশ কুমারের। তাঁর ফুসফুসের কার্যক্ষমতা খুব কমে গিয়েছিল। যার ফলে ভেন্টিলেশনে চলে যান তিনি। এর পর তাঁকে একমো যন্ত্রের সাহায্যে কৃত্রিম শ্বাসকার্যে রাখা হয়। কিন্তু শেষ রক্ষা হল না।

করোনার বিরুদ্ধে লড়াইয়ে সবার সামনের সারিতে রয়েছেন চিকিৎসকরা। তাই তাঁদের সংক্রমিত হওয়ার সম্ভাবনাও বেশি। ইতিমধ্যে কলকাতায় মৃত্যু হয়েছে একাধিক সরকারি ও বেসরকারি চিকিৎসকের। সুস্থও হয়ে উঠেছেন অনেকে। তবে মহামারিকালে চিকিৎসকের মৃত্যু নিঃসন্দেহে দ্বিগুণ বিষাদের কারণ। 

 

বন্ধ করুন