বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > Nabanna march: ২০২৪-এর শিক্ষা দেবো! তৃণমূলকে হুঁশিয়ারি বিজেপির কেন্দ্রীয় তথ্য অনুসন্ধানী দলের
মীনাদেবী পুরোহিতের বাড়িতে পাঁচ সদস্যের প্রতিনিধি দল। (টুইটার)

Nabanna march: ২০২৪-এর শিক্ষা দেবো! তৃণমূলকে হুঁশিয়ারি বিজেপির কেন্দ্রীয় তথ্য অনুসন্ধানী দলের

  • পাঁচ সদস্যের এই কমিটিতে রয়েছেন প্রাক্তন পুলিশকর্তা তথা রাজ্যসভার বিজেপি সাংসদ ব্রিজলাল, লোকসভার বিজেপি সাংসদ কর্নেল রাজ্যবর্ধন সিংহ রাঠৌর, লোকসভার সাংসদ অপরাজিতা সারেঙ্গি, রাজ্যসভার সাংসদ সমীর ওরাও এবং পঞ্জাবের বিজেপি নেতা সুনীল জাখর।

নবান্ন অভিযানের দিন হিংসার ঘটনার তদন্তে শনিবার কলকাতা এলো বিজেপির পাঁচ সদস্যের কেন্দ্রীয় তথ্য অনুসন্ধানী দল (Fact Finding team)। এই প্রতিনিধি দল প্রথমে মেডিক্যাল কলেজে গিয়ে আহত বিজেপি কর্মীদের সঙ্গে দেখা করেন। পরে তাঁরা যান আহত বিজেপি কাউন্সিলার মীনাদেবী পুরোহিতের বাড়িতে। পরে তাঁরা কড়া ভাষায় তৃণমূলকে আক্রমণ করে বলেন, ২০২৪-এ এর জবাব মিলবে।

পাঁচ সদস্যের এই কমিটিতে রয়েছেন প্রাক্তন পুলিশকর্তা তথা রাজ্যসভার বিজেপি সাংসদ ব্রিজলাল, লোকসভার বিজেপি সাংসদ কর্নেল রাজ্যবর্ধন সিংহ রাঠৌর, লোকসভার সাংসদ অপরাজিতা সারেঙ্গি, রাজ্যসভার সাংসদ সমীর ওরাও এবং পঞ্জাবের বিজেপি নেতা সুনীল জাখর।

দলের সদস্য ব্রিজলাল বলেন, ‘‘ বাংলায় জঙ্গলরাজ চলছে। কাটমানি, তোলাবাজির রাজত্ব চলছে। কোটি কোটি টাকার দুর্নীতি সামনে এসেছে।’’ তিনি পার্থ চট্টোপাধ্যায় এবং অনুব্রতের মণ্ডলের নাম উল্লেখ করে বলেন, ‘‘বাংলার মানুষ সব দেখছে। এখানে গণতন্ত্রের নামে তামাশা চলছে। ২০২৪-এর নির্বাচনে বাংলার মানুষ উচিত শিক্ষা দেবেন।’’

নবান্ন অভিযানের পর বিজেপি কর্মীদের গ্রেফতারি প্রসঙ্গে বলেন, ‘‘যাঁরা এই অভিযানে অংশ নেননি তাঁদের গ্রেফতার করা হচ্ছে।’’

প্রসঙ্গত, গত মঙ্গলবার বিজেপির নবান্ন অভিযানকে কেন্দ্র করে উতপ্ত হয়ে ওঠে কলকাতা এবং হাওড়া। এই কর্মসূচিতে বেশ কয়েকজন বিজেপি কর্মী আহত হন। অন্য দিকে বেশ কয়েকজন পুলিশ কর্মীও আহত হয়েছেন।এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে রাজ্যে রাজনৈতিক চাপানউতোর অব্যাহত। মঙ্গলবারের ‘হিংসার’ ঘটনার তদন্তে একটি পাঁচ সদস্যের তদন্তকারী দল ঘোষণা করে বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব। এই তথ্যানুসন্ধানী দলের মন্তব্যের তীব্র সমালোচনা করেছে তৃণমূল।

বন্ধ করুন