রাজ্যগুলিকে আগামী দু'দিন র‌্যাপিড টেস্ট বন্ধের নির্দেশ (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য এপি)
রাজ্যগুলিকে আগামী দু'দিন র‌্যাপিড টেস্ট বন্ধের নির্দেশ (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য এপি)

COVID-19 Updates: আগামী দু'দিন র‌্যাপিড টেস্ট কিট ব্যবহার নয়, রাজ্যগুলিকে নির্দেশ ICMR-এর

রাজস্থান জানিয়েছে, আইসিএমআরের নির্দেশিকা মেনেই টেস্ট করা হচ্ছিল।

আরটি-পিসিআরের পজিটিভ কেসের সঙ্গে র‌্যাপিড অ্যান্টিবডি টেস্টে অনেকটা পার্থক্য নিয়ে অভিযোগ এসেছিল। সেজন্য দেশের সব রাজ্যগুলিকে আগামী দু'দিন র‌্যাপিড টেস্ট কিট ব্যবহার বন্ধের নির্দেশ দিল ইন্ডিয়ান কাউন্সিল অফ মেডিক্যাল রিসার্চ (আইসিএমআর)।

আরও পড়ুন : COVID-19 Updates: রাজ্যে কম টেস্টের অভিযোগ থেকে NICED-র ত্রুটিপূর্ণ কিট পরিবর্তন, একনজরে পুরো ঘটনাবলী

মঙ্গলবার সাংবাদিক বৈঠকে আইসিএমআরের তরফে রমন আর গঙ্গাখেদকর জানান, সোমবার একটি রাজ্য থেকে র‌্যাপিড টেস্ট নিয়ে অভিযোগ জমা পড়েছিল। রাজ্যের নাম অবশ্য উল্লেখ করেননি তিনি। তবে আজই রাজস্থানের তরফে জানানো হয়, ফলাফলে সন্তুষ্ট না হওয়ায় আপাতত র‌্যাপিড টেস্ট বন্ধ রাখা হচ্ছে।

আরও পড়ুন : প্লাজমা চিকিৎসায় উন্নতি দিল্লির করোনা আক্রান্তের, পরপর দুটি টেস্ট নেগেটিভ

কংগ্রেস শাসিত রাজ্যের স্বাস্থ্যমন্ত্রী রঘু শর্মা বলেন, 'আমরা ১৬৮ জন করোনা আক্রান্তের র‌্যাপিড টেস্ট করেছিলাম। মাত্র ৫.৪ শতাংশের রিপোর্ট পজিটিভ এসেছে। তাই আমরা আপাতত টেস্ট বন্ধের সিদ্ধান্ত নিয়েছি এবং আইসিএমআরের পরামর্শ চেয়েছি।'

আরও পড়ুন : COVID-19 Updates: তিন হাজার কর্মী বিশিষ্ট লোকসভায় প্রথম করোনা আক্রান্তের হদিশ

মন্ত্রী জানান, সোয়াই মান সিং মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালের মেডিসিন ও মাইক্রোবায়োলজি বিভাগের চিকিৎসকরা র‌্যাপিড টেস্টের কার্যকারিতা খুঁটিয়ে দেখেছিলেন। কিন্তু ফলাফলে সন্তুষ্ট হতে পারেননি চিকিৎসকরা। মন্ত্রীর কথায়, 'তাঁরা টেস্ট বন্ধের পরামর্শ দেন। আমরা আইসিএমআরকে জানিয়েছি, তাদের প্রোটোকল মেনেই র‌্যাপিড টেস্ট করা হয়েছিল।'

আরও পড়ুন : Covid-19: করোনার বিরুদ্ধে লড়াইয়ের জন্য পশ্চিমবঙ্গকে ৩৪৬১ কোটি দিল কেন্দ্র

সেই সিদ্ধান্তের কয়েক ঘণ্টা পর গঙ্গাখেদকর বলেন, 'সোমবার একটি রাজ্য থেকে অভিযোগ আসে যে, সেখানে (র‌্যাপিড অ্যান্টিবডি টেস্টে) চিহ্নিতকরণ কম হচ্ছে। আজ আরও তিনটি রাজ্যের সঙ্গে কথা বলা হয়েছে। আরটি-পিসিআরের পজিটিভ কেসের সঙ্গে রক্তের এই পরীক্ষার উপর টেস্টে অনেকটা পার্থক্য আসছিল। কোথাও ছয় শতাংশ, কোথাও আবার ৭১ শতাংশ পজিটিভ আসছিল। এই পার্থক্যটা ভালো নয়। কারণ যখন ওই পার্থক্য বেশি হয়, তখন আমাদের বিষয়টি খতিয়ে দেখতে হয়।'

আরও পড়ুন : করোনা চিকিৎসায় মোটা খরচ, টান পড়ছে সরকারি কোষাগারে

গঙ্গাখেদকর জানান, এটি ফার্স্ট জেনারেশন এলাইজা টেস্ট হলেও তদন্ত করা হবে। মাত্র সাড়ে তিন মাস রোগের প্রকোপ শুরু হওয়ায় টেস্ট প্রক্রিয়া এখনও অপরিশোধিত। ধীরে ধীরে তার শোধন করা হবে। তা সত্ত্বেও বিষয়টি এড়িয়ে যাওয়ার পক্ষপাতী নয় আইসিএমআর। সেজন্য আগামী দু'দিন আইসিএমআরের অন্তর্গত আটটি প্রতিষ্ঠান টেস্ট কিট নিয়ে পরীক্ষা চালাবে। খতিয়ে দেখা হবে কিটগুলি। গঙ্গাখেদকর বলেন, 'আগামী দু'দিন রাজ্যগুলিকে এই কিট ব্যবহার না করার পরামর্শ দিচ্ছি। দু'দিন পর আমরা পরিষ্কার নির্দেশিকা জারি করার জায়গায় থাকব। ওই (কিটের) ব্যাচে কোনও সমস্যা থাকলে তা উৎপাদনকারী সংস্থাকে জানানো হবে ও তা পরিবর্তন করা হবে।'

আরও পড়ুন : করোনার প্রতিষেধক বেরোলেও ব্যবহার করবেন না জকোভিচ!

উল্লেখ্য, র‌্যাপিড অ্যান্টিবডি টেস্ট চূড়ান্ত নয়। কারণ করোনা আক্রান্তের শরীরে তৎক্ষণাৎ অ্যান্টিবডি নাও তৈরি হতে পারে। কারণ সুস্থ হয়ে ওঠা আক্রান্তদের শরীরে আবার অ্যান্টিবডি থাকতে পারে। তাই আরটি-পিসিআরের মাধ্যমেই চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

বন্ধ করুন