ছবিটি প্রতীকী।
ছবিটি প্রতীকী।

স্ত্রীকে খুন করার পরে কাটামুণ্ড হাতে জাতীয় সঙ্গীত গেয়ে আত্মসমর্পণ

  • স্ত্রীকে হত্যা করে তাঁর শরীর থেকে মুণ্ড বিচ্ছিন্ন করে কাটা মাথা হাতে হেঁটে এসে থানায় আত্মসমর্পণ করে অখিলেশ।আত্মসমর্পণ করলেও স্ত্রীয়ের মুণ্ড কিছুতেই হাতছাড়া করতে চায়নি সে।

স্ত্রীকে খুন করার পরে তাঁর মাথা কেটে নিয়ে সটান থানায় হাজির হয়ে আত্মসমর্পণ করল যুবক। উত্তরপ্রদেশের বরাবাঁকির ঘটনায় স্তম্ভিত নিরাপত্তাকর্মীরা।

পুলিশ জানিয়েছে, জাহাঙ্গিরাবাদ থানার অন্তর্গত বাহাদুপরপুর গ্রামের বাসিন্দা অখিলেশ রাওয়াতের সঙ্গে তার স্ত্রীর প্রায়ই ঝগড়া বাধত। শনিবার তা চৃড়ান্ত পর্যায়ে পৌঁছলে ক্ষিপ্ত অখিলেশ তার স্ত্রীকে হত্যা করে। তার পরে তাঁর শরীর থেকে মুণ্ড বিচ্ছিন্ন করে কাটা মাথা হাতে হেঁটে এসে থানায় আত্মসমর্পণ করে।

আত্মসমর্পণ করলেও স্ত্রীয়ের মুণ্ড কিছুতেই হাতছাড়া করতে চায়নি সে। উলটে পুলিশ জোর করে তা নিতে গেলে আচমকা জাতীয় সঙ্গীত গেয়ে ওঠে এবং ‘ভারতমাতা কি জয়’ স্লোগান দিতে শুরু করে ওই যুবক। কয়েক মিনিট ধস্তাধস্তির পরে অবশেষে উদ্ধার করা যায় শরীর থেকে বিচ্ছিন্ন মৃতার মুণ্ড।

স্ত্রীকে হত্যার দায়ে গ্রেফতার করা হয়েছে অখিলেশ রাওয়াতকে। এ দিকে বীভত্স এই ঘটনার কথা ছড়িয়ে পড়লে এলাকাজুড়ে তীব্র আতঙ্ক সৃষ্টি হয়।

পুলিশ সুপারিন্টেন্ডেন্ট অরবিন্দ চতুর্বেদী জানিয়েছেন, ঘটনার মূলে রয়েছে ঘরোয়া ঝগড়া। ধৃতের বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধির একাধিক ধারায় মামলা দায়ের করেছে পুলিশ। পাশাপাশি, হত্যাকাণ্ডে অনুসন্ধানে নেমেছেন গোয়েন্দারা।

বন্ধ করুন