হেমন্ত সোরেনের শপথগ্রহণের কয়েক ঘণ্টা আগেই তীব্র বিস্ফোরণ ঘটল খুন্তি জেলায়। ছবি সৌজন্যে পিটিআই। (PTI)
হেমন্ত সোরেনের শপথগ্রহণের কয়েক ঘণ্টা আগেই তীব্র বিস্ফোরণ ঘটল খুন্তি জেলায়। ছবি সৌজন্যে পিটিআই। (PTI)

হেমন্তের শপথের আগেই ঝাড়খণ্ডে মাওবাদী বিস্ফোরণ, মিলল পোস্টার

  • রবিবার ভোরে ঝাড়খণ্ডের খুন্তি জেলায় গ্রাম সমবায় ভবন বিস্ফোরণে উড়িয়ে দিল মাওবাদী জঙ্গিরা। ঘটনাস্থলে পৌঁছে তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।

মুখ্যমন্ত্রী পদে হেমন্ত সোরেনের শপথগ্রহণের ঠিক আগে রবিবার ভোরে ঝাড়খণ্ডের খুন্তি জেলায় গ্রাম সমবায় ভবন বিস্ফোরণে উড়িয়ে দিল মাওবাদী জঙ্গিরা।

পুলিশ জানিয়েছে, সেলদা গ্রামের ওই সমবায় ভবনের এক বড় অংশ বিস্ফোরণে ধ্বংস হয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে পাওয়া গিয়েছে মাওবাদী কিছু পোস্টার যাতে লেখা ‘স্কুল থেকে পুলিশ ক্যাম্প সরাও’ এবং ‘স্কুলছাত্রদের ভবিষ্যত্ নিয়ে খেলা বন্ধ কর’-এর মতো স্লোগান।

বিস্ফোরণের ফলে কোনও হতাহতের খবর পাওয়া যায়নি। ঘটনাস্থলে পৌঁছে তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ। খুন্তির ডেপুটি সুপারিটেন্ডেন্ট আশিস মাহলি জানিয়েছেন, ‘প্রাথমিক তদন্তে বিস্ফোরণের পিছনে মাওবাদীদের হাত রয়েছে বলে মনে হচ্ছে। আমরা গ্রামবাসীদের সঙ্গে কথা বলছি।’

ডেপুটি সুপারের দাবি, ওই অঞ্চলে এখন অবৈধ গাঁজা চাষের মরশুম শুরু হয়েছে। বেআইনি গাঁজা চাষ রুখতে গ্রামের সমবায় কেন্দ্রে পুলিশ শিবির তৈরি করার জন্য কিছু দিন আগে গ্রামবাসীদের সঙ্গে পুলিশের আলোচনা হয়েছিল।

মাহলি বলেন, ‘গত বছর অবৈধ গাঁজা চাষ দমন অভিযানে আমরা দেখেছি, ওই চাষের সঙ্গে মাওবাদী জঙ্গিরা যুক্ত রয়েছে। খুন্তি ও সংলগ্ন এলাকা থেকে ওই অভিযানে আমরা দুই কুইন্টালের বেশি গাঁজা বাজেয়াপ্ত করেছিলাম।’

উল্লেখ্য, ঝাড়খণ্ডের চাতরার পরেই অবৈধ গাঁজা চাষের জন্য পরিচিতি তৈরি হয়েছে খুন্তির। এই বেআইনি ব্যবসায় জড়িত সিপিআই (মাওবাদী) এবং পিপলস লিবারেশন ফ্রন্ট (পিএলএফ) গোষ্ঠী। গ্রামবাসীদের অবৈধ গাঁজা চাষ করার জন্য তারা টোপ দেয় বলে অভিযোগ। গাঁজা বিক্রির মাধ্যমে মোটা টাকা আয় করে জঙ্গি গোষ্ঠীগুলি।

২০১৮ সালে খুন্তিতে প্রায ৩ হাজার একর জমিতে ফলানো গাঁজাখেত নষ্ট করে ঝাড়খণ্ড পুলিশ।

বন্ধ করুন