HT বাংলা থেকে সেরা খবর পড়ার জন্য ‘অনুমতি’ বিকল্প বেছে নিন
বাংলা নিউজ > কর্মখালি > ভালো ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজে স্ট্রিম পিছু পড়ুয়ার উর্ধ্বসীমা শিথিল করার প্রস্তাব

ভালো ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজে স্ট্রিম পিছু পড়ুয়ার উর্ধ্বসীমা শিথিল করার প্রস্তাব

AICTE: এর ফলে ভারতের শীর্ষ কলেজগুলিতে আরও বেশি ছাত্রছাত্রী পড়ার সুযোগ পাবেন। এবং কলেজগুলোও নিজের ক্যাম্পাস বাড়াতে পারবে।

প্রতীকী ছবি

২০২৪-২৫ শিক্ষাবর্ষ থেকে ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের বিভিন্ন শাখায় আসন সংখ্যার উপরে বিধিনিষেধ অপসারণের প্রস্তাব দিল অল ইন্ডিয়া কাউন্সিল ফর টেকনিক্যাল এডুকেশন (এআইসিটিই)।  এই পদক্ষেপটি আরও বেশি শিক্ষার্থীকে শীর্ষ ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজগুলিতে ভর্তি হওয়ার সুযোগ দেবে বলে মনে করছে এআইসিটিই। প্রসঙ্গত, বর্তমানে অনেক ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজে আসন ফাঁকা থাকে। যদিও ভালো কলেজে সুযোগ না পেয়ে হতাশা গ্রাস করে অনেক ছাত্র ছাত্রীদের। তাদের দুঃখ কিছুটা লাঘব হবে বলে আশা করা যাচ্ছে। 

বর্তমানে একটি কলেজের প্রতি শাখায় সর্বোচ্চ ২৪০টি আসন রয়েছে। এ প্রসঙ্গেএআইসিটিই বলেছে, 'জাতীয় শিক্ষা নীতি (এনইপি) ২০২০ এবং গ্রস এনরোলমেন্ট রেশিও বাড়ানোর জন্য দেশের বিদ্যমান প্রতিষ্ঠানগুলিতে অনুমোদিত ভর্তি সংখ্যার উর্ধ্ব সীমাটি সরিয়ে নেওয়া হবে এবং আসন সংখ্যা বাড়ানো যাবে।

আরও পড়ুন: আট মাসে স্বাস্থ্য দফতরের ৬০০০ নিয়োগ! পরিষেবায় ‘বড়’ বদল আসতে পারে এবার

তবে কোনও প্রতিষ্ঠানে যদি কমপক্ষে তিনটি কোর্স থাকে তবেই সেই প্রতিষ্ঠানে আসন বৃদ্ধির অনুমতি দেওয়া হবে বলে জানা গিয়েছে।  এর ফলে ভারতের শীর্ষ কলেজগুলিতে আরও বেশি ছাত্রছাত্রী পড়ার সুযোগ পাবেন। তবে পরিকাঠামোগত যাবতীয় শর্তাবলি পূর্ণ হলে তবেই আসন সংখ্যা বৃৃদ্ধির অনুমতি দেওয়া হবে। একই সঙ্গে অতিরিক্ত পড়ুয়া ভর্তি করতে গেলে যে সংখ্যক শিক্ষক লাগবে, সেই সংক্রান্ত অগ্রিম ব্যবস্থা করে রাখতে হবে কলেজগুলিকে। বিশেষজ্ঞ কমিটির ভিজিটের পরেই মিলবে সবুজ সঙ্কেত। 

আরও পড়ুন: ইন্টেলিজেনস ব্যুরোয় এসিআইও নিয়োগ হবে, কীভাবে আবেদন করবেন, বেতন কত, জেনে নিন

এই প্রস্তাবে শিক্ষার মান আরও বাড়বে বলে মনে করছেন রাজলক্ষ্মী গ্রুপ অফ ইনস্টিটিউশনের ভাইস চেয়ারম্যান অভয় মেগানাথন। এই প্রসঙ্গে এসআরএম কলেজের ডিরেক্টর বি চিদম্বররাজন জানান ‘আমরা চূড়ান্ত অনুমোদনের জন্য অপেক্ষা করব, যদিও প্রস্তাবিত পদক্ষেপটি শীর্ষ স্থানীয় কলেজ এবং মাঝারি স্তরের কলেজগুলির মধ্যে ব্যবধান বাড়িয়ে তুলবে।’

আরও পড়ুন: পশ্চিমবঙ্গ পাবলিক সার্ভিস কমিশন পরীক্ষার পরিবর্তিত তারিখ কবে? জেনে নিন এখনই

মাঝারি কলেজগুলিতে ভর্তি কমে গেলে এইসব কলেজে শিক্ষার মান আরও কমে যাবে। ' তাই দেশের সমস্ত নামী দামি প্রতিষ্ঠানে আসন সংখ্যার উপর বিধিনিষেধ সরালে আরও বেশি সংখ্যক মেধাবীরা ভাল প্রতিষ্ঠানে পড়ার সুযোগ পাবে। তবে যে সব কলেজ ইতিমধ্যেই ধুঁকছে ছাত্র-ছাত্রীর অভাবে, তাদের ব্যবসা আরও বেশি প্রভাবিত হবে এই নিয়ম চালু হলে বলে অনেকের আশঙ্কা। শেষ পর্যন্ত এই প্রস্তাব শিক্ষামন্ত্রক গ্রিন সিগন্যাল দেয় কিনা, সেটা এখনও অনিশ্চিত। তবে যদি বাস্তবায়িত হয়, ভারতের ইঞ্জিনিয়ারিং শিক্ষায় যে এটি যুগান্তকারী পরিবর্তন হতে চলেছে, তা বলাই বাহুল্য। 

কর্মখালি খবর