বাংলা নিউজ > কর্মখালি > ৩০ নভেম্বর পর্যন্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখা যেতে পারে, ঘোষণা কেন্দ্রের
৩০ নভেম্বর পর্যন্ত কোনও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান পুনরায় খোলা যাবে না, ঘোষণা কেন্দ্রীয় সরকারের।
৩০ নভেম্বর পর্যন্ত কোনও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান পুনরায় খোলা যাবে না, ঘোষণা কেন্দ্রীয় সরকারের।

৩০ নভেম্বর পর্যন্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখা যেতে পারে, ঘোষণা কেন্দ্রের

  • আনলক ৫ সংক্রান্ত ৩০ সেপ্টেম্বরের আদেশটি ৩০ নভেম্বর পর্যন্ত বহাল থাকবে।

করোনাভাইরাস সংক্রমণের প্রকোপ এখনও নিয়ন্ত্রণে আসেনি। তাই ৩০ নভেম্বর পর্যন্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখা যেতে পারে। এমনই জানিয়েছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক।

রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে স্কুল, কলেজগুলি গ্রেডের ভিত্তিতে এবং শিক্ষা প্রতিষ্ঠান পরিচালক কমিটির সঙ্গে পরামর্শক্রমে কেস-টু-কেস ভিত্তিতে প্রতিষ্ঠান ফের খোলা যেতে পারে। অর্থাৎ ৩০ সেপ্টেম্বরের আদেশটি ৩০ নভেম্বর পর্যন্ত বহাল থাকছে।

৩০ সেপ্টেম্বর জারি করা আনলক ৫ অনুসারে কোনও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানই শিক্ষার্থীদের নিয়মিত উপস্থিতির জন্য বাধ্য করতে পারে না। সেই সঙ্গে যারা অনলাইন মোডে পড়াশোনা চালিয়ে যেতে চায় তাদের অবশ্যই অনুমতি দিতে হবে।

নির্দেশিকায় বলা হয়েছে, ১৫ অক্টোবরের পর স্কুল ও কোচিং ইনস্টিটিউটগুলি পুনরায় খোলার ক্ষেত্রে প্রতিষ্ঠানগুলির ম্যানেজমেন্ট এবং পরিস্থিতি বিবেচনা করে রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের সরকার সিদ্ধান্ত নেবে।

পূর্ববর্তী নির্দেশেও স্পষ্ট করে দেওয়া হয়েছিল যে অনলাইন এবং দূর শিক্ষাকে অগ্রাধিকার দিয়ে তা অব্যাহত রাখা হবে এবং এই পদ্ধতিতে শিক্ষাদানে উৎসাহ দেওয়া হবে। নির্দেশে বলা হয়, ‘যেখানে স্কুলগুলি অনলাইন ক্লাসের আয়োজন করছে এবং কিছু শিক্ষার্থী শারীরিকভাবে স্কুলে পড়াশোনা করার পরিবর্তে অনলাইনে ক্লাসে পড়াশুনো পছন্দ করেছে, সে ক্ষেত্রে তাদের এই পদ্ধতিটি অনুসরণ করার অনুমতি দেওয়া যেতে পারে।’

অক্টোবরের দ্বিতীয় ভাগের মতোই নভেম্বরেও শিক্ষার্থীরা বাবা মার লিখিত অনুমতি নিয়ে স্কুলে নিয়মিত যেতে পারে। এবং এক্ষেত্রে কখনই উপস্থিতি বাধ্যতামূলক করতে পারবে না স্কুলগুলি। কেন্দ্রীয় শিক্ষা মন্ত্রকের দেওয়া SOPর ওপর ভিত্তি করে রাজ্যগুলি স্বাস্থ্য, সুরক্ষার ক্ষেত্রে নিজস্ব নিয়ম বিধি জারি করতে পারবে বলে জানানো হয়েছে।

নির্দেশিকায় বলা হয়েছে, কলেজ ও উচ্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার দিনক্ষণের ক্ষেত্রে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের সঙ্গে আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নিতে পারবে।

গবেষক, বিজ্ঞান বিভাগের স্নাতকোত্তর পড়ুয়া এবং প্রযুক্তি শাখার যেসব শিক্ষার্থী র ল্যাবরেটরি ও পরীক্ষামূলক কাজ করতে হয় তাঁরা কলেজ, বিশ্ব বিদ্যালয়ের যেতে পারবেন। সেক্ষেত্রে কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধানের অনুমতি লাগবে।

বন্ধ করুন