বাড়ি > কর্মখালি > সোশ্যাল মিডিয়াই নবীনদের মধ্যে ডেকে আনছে স্ট্রেস, দাবি গবেষণায়
সোশ্যাল মিডিয়ায় বুঁদ হয়ে থাকার ফলে নবীনদের মধ্যে স্ট্রেসের মাত্রা বাড়ছে।
সোশ্যাল মিডিয়ায় বুঁদ হয়ে থাকার ফলে নবীনদের মধ্যে স্ট্রেসের মাত্রা বাড়ছে।

সোশ্যাল মিডিয়াই নবীনদের মধ্যে ডেকে আনছে স্ট্রেস, দাবি গবেষণায়

  • সোশ্যাল মিডিয়ায় বুঁদ হয়ে থাকার ফলে স্ট্রেসের মাত্রা বাড়তে পারে।

করোনাভাইরাস সংক্রমণের কারণে গৃহবন্দি অবস্থায় মোবাইল এখন বড় কাছের সঙ্গী। আর যুব সমাজের এক বড় অংশের কাছে সোশ্যাল মিডিয়াই হয়ে দাঁড়িয়েছে অন্যতম বিচরণক্ষেত্র। সাম্প্রতিক গবেষণা বলছে, সোশ্যাল মিডিয়ায় বুঁদ হয়ে থাকার ফলে স্ট্রেসের মাত্রা বাড়তে পারে।

দিল্লির লেডি শ্রীরাম কলেজ এবং অল ইন্ডিয়া ইনস্টিটিউট অফ মেডিকেল সায়েন্সেসের (AIIMS) অধ্যাপকরা সম্প্রতি যৌথ ভাবে মধ্য ও উচ্চ মধ্যবিত্ত যুবক-যুবতীদের নিয়ে একটি সমীক্ষা করেন। দেখা গিয়েছে, তাঁরা গড়ে প্রতিদিন ৬.৫ ঘণ্টা সোশ্যাল মিডিয়াতে সময় ব্যয় করছেন। এখানকার কনটেন্টগুলি যুবমনে বিশেষ ছাপ ফেলছে।

লেডি শ্রী রাম কলেজের অধ্যাপক কণিকা আহুজা, অনিশা জুনেজা এবং AIIMS-এর চিকিৎসক যতন পাল সিং বালহারা এই গবেষণা করেছেন ৩০০ জনেরও বেশি ১৮-২৫ বছর বয়েসি কলেজ শিক্ষার্থীদের নিয়ে। এর মধ্যে ১৮৫ জন মহিলা এবং ১২৩ জন পুরুষ। ২৭৪ জন স্নাতক কোর্সে এবং ৩৪ জন স্নাতকোত্তর স্তরের পড়ুয়া।

সমীক্ষায় দেখা গিয়েছে, সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রতিদিন গড়ে তাঁরা ৬.৭৫ ঘণ্টা ব্যয় করছেন এবং প্রতিদিন গড়ে ৩.৩৫ ঘণ্টা বিরতি দিচ্ছেন।

আহুজা বলেন, শিক্ষার্থীরা পড়াশোনা, পরীক্ষা ও প্লেসমেন্ট- সব কিছু নিয়েই অনিশ্চিত ভবিষ্যতের সম্মুখীন। চূড়ান্ত বছরের স্নাতক এবং স্নাতকোত্তর শিক্ষার্থীরা সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্থ। কারণ লকডাউনের জন্য অনেক সংস্থা চাকরির অফারগুলি ফিরিয়ে নিচ্ছে। Covid-19 এর কারণে যত বেশি এই সব চাপ বাড়ছে, ততই সোশ্যাল মিডিয়ার ব্যবহার বাড়ছে যা তাঁদের সুস্থ থাকার অন্তরায় হয়ে দাঁড়াচ্ছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে যে, সাধারণ শিক্ষার্থীরা আর্থিক সমস্যা, পড়াশোনার চাপ, উদ্ভূত পরিস্থিতির সঙ্গে মানিয়ে নেওয়া, ভৌগোলিক পরিবেশ, সম্পর্ক, জীবন যাপনে পরিবর্তন এবং টাইম ম্যানেজমেন্ট ইত্যাদি নিয়ে এমনিতেই চাপে থাকেন। লকডাউন পরিস্থিতি সেই চাপ আরও বাড়িয়ে তুলেছে।

গবেষণায় উল্লেখ করা হয়েছে যে, অভূতপূর্ব এই পরিস্থিতিতে সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মগুলি হাত ধোয়া এবং সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা, স্বাস্থ্যকর আচরণ নিয়ে যে অস্পষ্টতা আছে তা দূর করতে সাহায্য করবে বলে আশা করা হচ্ছে। তবে সোশ্যাল মিডিয়া জনস্বাস্থ্য সম্পর্কে যতটা সচেতনতা ছড়াচ্ছে, তেমনই ঘৃণা ও অশান্তি ছড়াতেও ব্যবহৃত হচ্ছে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন গবেষকরা।

 

বন্ধ করুন