বাড়ি > কর্মখালি > করোনাকালে ফি বেড়েছে কি না, জানতে চেয়ে বেসরকারি স্কুলে নোটিশ ত্রিপুরা সরকারের
স্কুলগুলি ফি বাড়িয়ে থাকলে তার পিছনের কারণ কী, তার ব্যাখ্যাও চাওয়া হয়েছে।
স্কুলগুলি ফি বাড়িয়ে থাকলে তার পিছনের কারণ কী, তার ব্যাখ্যাও চাওয়া হয়েছে।

করোনাকালে ফি বেড়েছে কি না, জানতে চেয়ে বেসরকারি স্কুলে নোটিশ ত্রিপুরা সরকারের

  • করোনা অতিমারীর মধ্যে শিক্ষার্থীদের জন্য ফি বাড়ানো হয়েছে কি না, তা পরিষ্কার করে জানাতে বলা হয়েছে নোটিশে।

রাজ্যের ১১ টি বেসরকারি বিদ্যালয়ে নোটিশ পাঠালো ত্রিপুরা সরকার। করোনা অতিমারীর মধ্যে তারা শিক্ষার্থীদের জন্য ফি বাড়িয়েছে কি না, তা পরিষ্কার করে জানাতে বলা হয়েছে নোটিশে। সেই সঙ্গে যদি স্কুলগুলি ফি বাড়িয়ে থাকে তবে তার পিছনের কারণ কী, তার ব্যাখ্যাও চাওয়া হয়েছে।

করোনা আবহে ফি বৃদ্ধি বৃদ্ধি রোধে ৩৪৩টি বেসরকারি বিদ্যালয়ের কাছে কঠোর নির্দেশ পাঠিয়েছিল রাজ্য শিক্ষা বিভাগ। ৬ মে সরকার ও বিভিন্ন স্কুল কর্তৃপক্ষের যৌথ সভায় করোনা ও লকডাউনের কারণে ফি বৃদ্ধি বন্ধের সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।

শিক্ষামন্ত্রী রতন লাল নাথ সাংবাদিকদের বলেন, আমরা ১১ টি বেসরকারি বিদ্যালয়ে সংশ্লিষ্ট জেলা শিক্ষা আধিকারিকদের মাধ্যমে নোটিশ পাঠিয়েছি। আমরা বেসরকারি স্কুলগুলিকে এবার শিক্ষার্থীদের ফি না বাড়ানোর অনুরোধ করেছি।

শিক্ষামন্ত্রী উল্লেখ করেন, সরকারের নির্দেশ থাকা সত্ত্বেও ১১ টি বেসরকারি বিদ্যালয়ের বিরুদ্ধে ফি বাড়ানোর অভিযোগ পেয়েছে সরকার। তিনি সতর্ক করে বলেন, অন্য বিদ্যালয়গুলির যদি এরমধ্যে ফি বৃদ্ধি করেছে বলে খবর পাওয়া যায় তবে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেবে সরকার।

শিক্ষামন্ত্রী জানিয়েছেন, লকডাউনের সময় এক টাকাও ফি বাড়ানো উচিত নয়। অভিভাবকরা ইতিমধ্যে মারাত্মক অবস্থায় রয়েছেন। এই অবস্থায় স্কুলগুলিকে তাদের ফি বাড়াতে দিতে পারি না। সরকারের নির্দেশ অমান্য করলে আমরা লঙ্ঘনকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেব।

ত্রিপুরায় বর্তমানে ৩৪৩ টি বেসরকারি স্কুল ছাড়াও সরকারি ও সরকারি অনুমোদন প্রাপ্ত ৪,৩৯৮টি স্কুল রয়েছে। রাজ্য জুড়ে এই বিদ্যালয়ে পাঁচ লক্ষ শিক্ষার্থী পড়াশোনা করে। এর মধ্যে প্রায় ১.২৩ লক্ষ শিক্ষার্থী বেসরকারি বিদ্যালয়ে পড়াশুনো করে ।

বন্ধ করুন