বাংলা নিউজ > কর্মখালি > NAAC অনুমোদন মেলেনি, বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ে দূরশিক্ষায় ভরতি বন্ধ
আগামী শিক্ষাবর্ষে বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ে দূরশিক্ষায় ভর্তি হতে পারবেন না শিক্ষার্থীরা।
আগামী শিক্ষাবর্ষে বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ে দূরশিক্ষায় ভর্তি হতে পারবেন না শিক্ষার্থীরা।

NAAC অনুমোদন মেলেনি, বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ে দূরশিক্ষায় ভরতি বন্ধ

  • রেগুলারের পাশাপাশি ডিস্ট্যান্স কোর্সেও পঠনপাঠন চালানোর জন্য NAAC-এর মূল্যায়নে ৪ এর মধ্যে ৩.২৬ নম্বর পেতেই হয়৷ কিন্তু বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ের দূরশিক্ষা বিভাগ মূল্যায়নের এই মান পেরোতে পারেনি৷

আগামী শিক্ষাবর্ষে বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ে দূরশিক্ষায় ভর্তি হতে পারবেন না পড়ুয়ারা৷ 

সম্প্রতি কেন্দ্রের অনুমতিপ্রাপ্ত কোন কোন বিশ্ববিদ্যালয় দুর শিক্ষা দিতে পারবে, তার তালিকা প্রকাশ করেছে UGC৷ সেখানে বাংলার দুই বিশ্ববিদ্যালয়ের নাম থাকলেও, নাম নেই বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ের৷ 

ইতিমধ্যে বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষে ভর্তির বিজ্ঞপ্তি প্রকাশিত হয়েছে৷ এই অবস্থায় UGC’র এই তালিকা দেখে হতবাক বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ৷ এই অবস্থায় কী করবেন, তাই নিয়ে দুশ্চিন্তায় পড়েছে কর্তৃপক্ষ৷

কিছু দিন আগেই দূরশিক্ষা বিভাগের অধিকর্তা পদে দায়িত্ব পান বিশ্ববিদ্যালয়ের গণিতের অধ্যাপক অরিজিৎ ঘোষাল৷ অতিরিক্ত দায়িত্ব হিসাবেই এই পদ দেওয়া হয় তাঁকে৷ দূরশিক্ষা বিভাগে কোনও স্থায়ী অধিকর্তা এখনও নেই৷ তবে এই বিষয়ে কোনও মন্তব্য করতে চাননি তিনি৷ অরিজিৎবাবু বলেন, ‘এই বিষয়ে যা বলার উপাচার্যই বলবেন৷’

এই বিষয়ে একেবারেই অবগত ছিলেন না বলে জানিয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য নিমাইচন্দ্র সাহা৷ তিনি বলেন, ‘এই বিষয়টি কেউই জানতাম না৷ কোথায় কী ত্রুটি হয়েছে, তা খতিয়ে দেখতে দূরশিক্ষা বিভাগের আধিকারিকদের সঙ্গে বৈঠক করা হবে। আলোচনার পরেই কোনও স্থির সিদ্ধান্তে পৌঁছতে পারব৷’

প্রসঙ্গত, রেগুলারের পাশাপাশি ডিস্ট্যান্স কোর্সেও পঠনপাঠন চালানোর জন্য ন্যাশনাল অ্যাসেসমেন্ট অ্যান্ড অ্যাক্রেডিটেশন কাউন্সিল (NAAC)-এর মূল্যায়নে ৪ এর মধ্যে ৩.২৬ নম্বর পেতেই হয়৷ কিন্তু বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ের দূরশিক্ষা বিভাগ মূল্যায়নের এই মান পেরোতে পারেনি৷ 

জানা গিয়েছে, ২০১৬ সালে ন্যাক-এর পর্যবেক্ষক দল এসে বিশ্ববিদ্যালয়ের দূরশিক্ষা বিভাগের পরিকাঠামো, পাড়াশোনার পরিবেশ সহ একাধিক বিষয় খতিয়ে দেখে৷ কিন্তু বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ের দূরশিক্ষা বিভাগকে নিয়ে সন্তোষ প্রকাশ করেননি তাঁরা৷ তাঁদের রিপোর্টের ভিত্তিতেই দূরশিক্ষার এই তালিকা তৈরি করেছে ইউজিসি৷ খুব স্বাভাবিক ভাবেই NAAC এর অনুমোদন না মেলায় সেই তালিকা থেকে বাদ গিয়েছে বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ের নাম৷ 

দূরশিক্ষা বিভাগের এক অধ্যক্ষের কথায়, ‘২০১৬ সালে যখন NAAC এসেছিল, তখন এখানে চূড়ান্ত খারাপ পরিস্থিতি৷ চাকরি পাইয়ে দেওয়া নিয়ে চরম দুর্নীতি চলছে৷ পড়াশোনার পরিবেশ ছিল না৷ এই পরিস্থিতি দেখে ক্ষোভ প্রকাশ করেছিল NAAC-এর টিমও৷’ 

পাঁচ বছর অন্তর এই মূল্যায়ন করা হয়৷ অর্থাৎ ২০২১ সালে ফের NAAC-এর মূল্যায়ন হবে৷ কিন্তু কোন মাসে হবে, তা জানা নেই৷ ফলে এতজন কর্মী অধ্যাপক কী করবেন, তা নিয়ে তৈরি হয়েছে ধোঁয়াশা৷ 

বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ের কলা বিভাগের প্রতিটি বিষয়ই দূরশিক্ষা বিভাগে পড়ানো হয়৷ বিজ্ঞান শাখার গণিতও দূরশিক্ষা বিভাগের অন্তর্গত৷ এ ছাড়াও ডিসস্ট্যান্সে বি-এড কোর্স করানো হয়৷ কিন্তু আগামী শিক্ষাবর্ষে যে সব ছাত্রছাত্রী বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির আশায় বসেছিলেন, তাঁদের যে সমস্যার মুখে পড়তে হবে তা বলাই বাহূল্য। 

বন্ধ করুন