বাংলা নিউজ > কর্মখালি > Railway Jobs: ১.৪ লাখ শূন্যপদ পূরণের জন্য পরীক্ষা রেলের, এক বছরের মধ্যে দেওয়া হবে নিয়োগপত্র
১.৪ লাখ শূন্যপদ পূরণের জন্য পরীক্ষা রেলের, এক বছরের মধ্যে দেওয়া হবে নিয়োগপত্র। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য টুইটার)
১.৪ লাখ শূন্যপদ পূরণের জন্য পরীক্ষা রেলের, এক বছরের মধ্যে দেওয়া হবে নিয়োগপত্র। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য টুইটার)

Railway Jobs: ১.৪ লাখ শূন্যপদ পূরণের জন্য পরীক্ষা রেলের, এক বছরের মধ্যে দেওয়া হবে নিয়োগপত্র

  • এক বছরের মধ্যে সফল প্রার্থীরা হাতে নিয়োগপত্র পেয়ে যাবেন বলে আশ্বাস দেওয়া হয়েছে।

প্রায় ১.৪ লাখ শূন্যপদ পূরণের জন্য মঙ্গলবার (১৫ ডিসেম্বর) থেকে পরীক্ষা নিতে শুরু করল ভারতীয় রেল। ২১ টি রেলওয়ে রিক্রুটমেন্ট বোর্ডের (আরআরবি) মাধ্যমে তিন দফায় সেই নিয়োগ পরীক্ষা নেওয়া হবে। 

করোনাভাইরাস বিধি মেনে আগামী ১৫ ডিসেম্বর (মঙ্গলবার) থেকে ১৮ ডিসেম্বর পর্যন্ত প্রথম দফার পরীক্ষা চলবে। সেই পর্যায়ে আইসোলেটেড এবং মিনিস্টেরিয়াল ক্যাটেগরির পরীক্ষা হচ্ছে। দ্বিতীয় দফায় ২৮ ডিসেম্বর থেকে পরীক্ষা শুরু হবে। তা চলবে সম্ভবত নয়া বছরের মার্চ পর্যন্ত। এনটিপিসি ক্যাটেগরির প্রার্থীদের সেই পরীক্ষা হবে। আগামী জুনে তৃতীয় দফায় লেভেল-১ ক্যাটেগরির পরীক্ষা হবে। সবমিলিয়ে তিন দফায় ২.৪৪ কোটি প্রার্থী পরীক্ষায় বসতে চলেছেন।

রেল মন্ত্রকের তরফে জানানো হয়েছে, প্রার্থীদের নিজের রাজ্যেই পরীক্ষাকেন্দ্র দেওয়ার চেষ্টা করছে আরআরবি। যাতে এক রাতের যাতায়াতেই পরীক্ষাকেন্দ্রে পৌঁছাতে পারেন তাঁরা। মহিলা এবং বিশেষভাবে সক্ষম প্রার্থীদের নিজেদের রাজ্যেই আসন পড়েছে। তা সত্ত্বেও পরীক্ষার্থীদের একাংশের ভিনরাজ্যে যেতে হবে। সেজন্য প্রয়োজনমতো রেলের তরফে বিশেষ ট্রেনের বন্দোবস্ত করা হবে বলে জানানো হয়েছে। সংশ্লিষ্ট রাজ্য সরকারগুলিকেও আবেদন জানানো হয়েছে।

পরীক্ষার্থীদের কী কী নিয়ম মেনে চলতে হবে, দেখে নিন একনজরে -

১) প্রার্থীদের বাধ্যতামূলকভাবে মাস্ক পরতে হবে।

২) পরীক্ষায় বসার জন্য একটি ঘোষণাপত্রে (সেলফ ডিক্ল্যারেশন ফর্ম) স্বাক্ষর করতে হবে। তাতে লেখা থাকবে যে ওই প্রার্থী পরীক্ষায় বসার জন্য শারীরিকভাবে ফিট। রেলওয়ে বোর্ডের মানব-সম্পদের ডিরেক্টর জেনারেল আনন্দ এস খাতি বলেন, ‘প্রত্যেক প্রার্থীর পক্ষে যেহেতু রোগের (করোনার) নেগেটিভ সার্টিফিকেট প্রদান করা সম্ভব নয়, তাই পরীক্ষায় বসার জন্য তাঁদের একটি ঘোষণাপত্রে স্বাক্ষর করতে হবে। জানাতে হবে, তাঁরা পরীক্ষায় বসার জন্য ফিট এবং কোভিড পজিটিভ নয়। সেজন্য প্রার্থীদের একটি ফর্ম প্রদান করা হবে।’

৩)  থার্মোগান দিয়ে প্রার্থীদের শরীরের তাপমাত্রা মাপা হবে। যদি কোনও প্রার্থীর শরীরের তাপমাত্রা নির্দিষ্ট সীমার বেশি থাকে, তাহলে পরীক্ষার দিন পালটে দেওয়া হবে।

রেলের তরফে জানানো হয়েছে, নির্দিষ্ট সময় পরবর্তী পর্যায়ের পরীক্ষার দিন ঘোষণা করা হবে। একইসঙ্গে এক বছরের মধ্যে সফল প্রার্থীরা হাতে নিয়োগপত্র পেয়ে যাবেন বলে আশ্বাস দেওয়া হয়েছে।

বন্ধ করুন