বাংলা নিউজ > কর্মখালি > Unlock 4: স্কুলে প্রবেশাধিকার ৯ম-১২শ শ্রেণির পড়ুয়াদের, ছাড় ITI ট্রেনিংয়ে
প্রশিক্ষণে ছাড় দেওয়া হয়েছে ন্যাশনাল স্কিল ডেভেলপমেন্ট কর্পোরেশন এবং রাজ্য স্কিল ডেভেলপমেন্ট মিশন অথবা কেন্দ্রীয় ও রাজ্য সরকারি দফতর অনুমোদিত প্রতিষ্ঠানগুলিতে।
প্রশিক্ষণে ছাড় দেওয়া হয়েছে ন্যাশনাল স্কিল ডেভেলপমেন্ট কর্পোরেশন এবং রাজ্য স্কিল ডেভেলপমেন্ট মিশন অথবা কেন্দ্রীয় ও রাজ্য সরকারি দফতর অনুমোদিত প্রতিষ্ঠানগুলিতে।

Unlock 4: স্কুলে প্রবেশাধিকার ৯ম-১২শ শ্রেণির পড়ুয়াদের, ছাড় ITI ট্রেনিংয়ে

  • ছাড় দেওয়া হয়েছে IIT, NIESBUD, IIE এবং তাদের প্রশিক্ষণ সংস্থাগুলিকে।

কন্টেনমেন্ট জোনগুলির বাইরে স্বাভাবিক জীবনযাত্রা ফিরিয়ে আনার উদ্দেশে শনিবার ‘আনলক ৪’ পর্ব ঘোষাণা করে বেশ কিছু নিষেধাজ্ঞা শিথিল করলেও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের তালিকায় স্থান পায়নি শিক্ষাকেন্দ্র। 

এ দিন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক প্রকাশিত বিবৃতিতে জানানো হয়েছে, ১ সেপ্টেম্বর থেকে বলবৎ হতে চলা ‘আনলক ৪’ পর্বেও স্কুল, কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়-সহ সমস্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান আপাতত বন্ধ থাকবে। শিক্ষা ব্যবস্থা চালু রাখতে অনলাইন পঠনপাঠনে গুরুত্ব আরোপ করা হয়েছে।

বিবৃতিতে জানানো হয়েছে, রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল প্রশাসনের সঙ্গে সবিস্তারে আলোচনার পরে সিদ্ধান্তের জেরে আগামী ৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত সমস্ত স্কুল, কলেজ, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও কোচিং সেন্টারে নিয়মিত ক্লাস এখন বন্ধ থাকবে। তবে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রকের নির্দেশাবলী সাপেক্ষে ২১ সেপ্টেম্বর থেকে শিক্ষাকেন্দ্রে কর্মীদের হাজিরার ক্ষেত্রে কিছু কিছু ছাড় দেওয়া হয়েছে।

১) রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে অনলাইন ক্লাস পরিচালনা এবং টেলি কাউন্সেলিং সংক্রান্ত কাজের জন্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলিতে একসঙ্গে ৫০% পর্যন্ত কর্মীর উপস্থিতি অনুমোদন করা হয়েছে। 

২) কন্টেনমেন্ট এলাকার বাইরে নবম থেকে দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্ররা শিক্ষকদের থেকে পরামর্শ নিতে স্বেচ্ছায় স্কুলে হাজিরা দিতে পারবে। তবে তার জন্য অভিভাবকের সই করা লিখিত অনুমতি আবশ্যিক করা হয়েছে।

৩) ন্যাশনাল স্কিল ট্রেনিং ইনস্টিটিউশন (এনএসটিআই) এবং আইটিআইগুলিতে স্কিল ও আঁত্রেপ্রেনারশিপ ট্রেনিং চালু থাকবে। একই ভাবে প্রশিক্ষণ চলবে ন্যাশনাল স্কিল ডেভেলপমেন্ট কর্পোরেশন এবং রাজ্য স্কিল ডেভেলপমেন্ট মিশন অথবা কেন্দ্রীয় ও রাজ্য সরকারি দফতর অনুমোদিত প্রতিষ্ঠানগুলিতে। 

এই পর্বে ছাড় দেওয়া হয়েছে ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট ফর আঁত্রেপ্রেনারশিপ অ্যান্ড স্মল বিজনেস ডেভেলপমেন্ট (NIESBUD), ইন্ডিয়ান ইনস্টিটিউট অফ আঁত্রেপ্রেনারশিপ (IIE) এবং তাদের প্রশিক্ষণ সংস্থাগুলিকেও।

এ ছাড়াও ছাড় দেওয়া হয়েছে উচ্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোয় নথিভুক্ত রিসার্চ স্কলার, প্রযুক্তি ও পেশাগত প্রোগ্রামের অন্তর্ভুক্ত স্নাতকোত্তর পড়ুয়াদের, যাঁদের ক্ষেত্রে পরীক্ষাগার ব্যবহার ও গবেষণামূলক কাজ জরুরি। তবে তার জন্য সংশ্লিষ্ট এলাকার কোভিড পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের অনুমতি উচ্চ শিক্ষা দফতরের অনুমোদন আবশ্যিক বলে জানানো হয়েছে।

বন্ধ করুন