বাংলা নিউজ > ভোটের লড়াই > পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভা নির্বাচন ২০২১ > জেলায় কাউকে কাজ করতে দেয় না শুভেন্দু:‌ বিজেপি থেকে তৃণমূলে ফিরে বললেন সিরাজ খান
তৃণমূল ভবনে সিরাজ খান, পার্থ চট্টোপাধ্যায় ও সৌমেন মহাপাত্র। ছবি সৌজন্য : টুইটার
তৃণমূল ভবনে সিরাজ খান, পার্থ চট্টোপাধ্যায় ও সৌমেন মহাপাত্র। ছবি সৌজন্য : টুইটার

জেলায় কাউকে কাজ করতে দেয় না শুভেন্দু:‌ বিজেপি থেকে তৃণমূলে ফিরে বললেন সিরাজ খান

  • এদিন পার্থ বিজেপি–কে কটাক্ষ করে বলেন, ‘‌কৈলাস বিজয়বর্গীয় খুব ঘটা করে সিরাজকে হাত তুলিয়ে বিজেপি–তে নিয়ে গিয়েছিলেন। আমরাও আজ তাঁকে হাত তুলিয়ে দলে ফিরিয়ে নিলাম।’‌

‌‘‌ভুল বুঝতে পেরে’‌ বিজেপি ছেড়ে ফের পুরনো দলে ফিরলেন সিরাজ খান। রবিবার তৃণমূল ভবনে দলের পতাকা হাতে তুলে নিয়ে শুভেন্দু অধিকারীর বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগরে দিলেন শুভেন্দু–ঘনিষ্ঠ বলে পরিচিত পূর্ব মেদিনীপুরের এই নেতা। ২৫ নভেম্বর মেচেদায় বিজেপি–র সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক কৈলাস বিজয়বর্গীয়র উপস্থিতিতে গেরুয়া শিবিরে যোগ দিয়েছিলেন পূর্ব মেদিনীপুরের জেলা পরিষদের খাদ্য কর্মাধ্যক্ষ সিরাজ খান। আর তার ৫৫ দিনের মাথায় ফের রাজ্যের শাসকদলে প্রত্যাবর্তন হল তাঁর।

রবিবার সিরাজের হাতে তৃণমূলের দলীয় পতাকা তুলে দেন দলের মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায় ও পূর্ব মেদিনীপুর জেলা তৃণমূলের নবনিযুক্ত সভাপতি সৌমেন মহাপাত্র। পুরনো সৈনিককে দলে ফিরে পেয়ে এদিন পার্থ বিজেপি–কে কটাক্ষ করে বলেন, ‘‌কৈলাস বিজয়বর্গীয় খুব ঘটা করে সিরাজকে হাত তুলিয়ে বিজেপি–তে নিয়ে গিয়েছিলেন। আমরাও আজ তাঁকে হাত তুলিয়ে দলে ফিরিয়ে নিলাম। সিরাজ আমাদের ছিল, আমাদের আছে, আমাদের থাকবে।’‌

শুভেন্দু অধিকারী বিজেপি–তে যোগ দেওয়ার অনেক আগেই গেরুয়া শিবিরে নাম লিখিয়েছিলেন সিরাজ। সে সময় তিনি বলেছিলেন, ‘‌শুভেন্দু অধিকারীর আশীর্বাদ পেয়েছি।’‌ আর এদিন তৃণমূলে যোগ দিয়ে শুভেন্দু ও অধিকারী পরিবারের বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগরে দিলেন তিনি। বললেন, ‘‌জেলায় উন্নয়নমূলক কাজ করতে গিয়ে বাধা দেওয়া হচ্ছিল। একজন ছিল সে এখন বিজেপি–তে চলে গিয়েছে।’‌

এর পরই শুভেন্দুর নাম নিয়ে সিরাজ খান বলেন, ‘‌আমি মৎস্যচাষের সঙ্গে যুক্ত। ‘‌ময়না’‌ মডেল আমার হাতে তৈরি। আমি মৎস্য কর্মাধ্যক্ষ ছিলাম। কিন্তু দিয়ে দেওয়া হল খাদ্য কর্মাধ্যক্ষের দায়িত্ব।’‌ সিরাজের আরও অভিযোগ, ‘‌জেলায় কাউকে কাজ করতে দেয় না শুভেন্দু। পিংলায় সৌমেনবাবুকে সরিয়ে দেওয়া হল। ২০১১, ২০১৬–তে আমাকে টিকিট দেবে বলেও টিকিট দেয়নি শিশির অধিকারী, শুভেন্দুরা। বঞ্চিত করেছে আমাকে।’‌

নভেম্বের বিজেপি–তে যোগ দিয়ে রাজ্যে আমলাতান্ত্রিক প্রশাসন চলছে বলে অভিযোগ করেছিলেন সিরাজ। সেই প্রসঙ্গে এদিন তিনি বলেন, ‘‌মানুষের জন্য মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যে ভাবে কাজ করে চলেছেন তা নিয়ে কোনও প্রশ্নই উঠতে পারে না। কিন্তু সে সময় কিছু আমলা ভুল কাজ করেছে। সেটাই আমি বলেছি।’‌

এদিকে, এদিন তৃণমলে ফিরে বিজেপি–কে আক্রমণ করে সিরাজ বললেন, ‘‌আমার ভুল আমি বুঝতে পেরেছি। বিজেপি–তে গেলে আমি কাজ করতে পারব না। ওটা খুব বড় পার্টি, বড় বড় মানুষের দল। আমার তৃণমূল গরিব মানুষের জন্য ভাবে, গরিব মানুষের জন্য করে। আমি সেই গরিব মানুষের জন্য কাজ করব।’‌

বন্ধ করুন