বাংলা নিউজ > ভোটযুদ্ধ ২০২১ > অসম বিধানসভা নির্বাচন ২০২১ > হেমন্তের প্রচারে নিষেধাজ্ঞা জারি কমিশনের, প্রতিপক্ষকে হুমকি দেওয়ার জের
প্রচারে হেমন্ত বিশ্বশর্মা
প্রচারে হেমন্ত বিশ্বশর্মা

হেমন্তের প্রচারে নিষেধাজ্ঞা জারি কমিশনের, প্রতিপক্ষকে হুমকি দেওয়ার জের

  • অসমে তৃতীয় তথা শেষ দফার ভোট হবে ৬ এপ্রিল। অর্থাৎ কমিশনের এই নির্দেশের ফলে হিমন্ত আর এই ভোটে প্রচারেই নামতেই পারবেন না।

প্রতিপক্ষ রাজনৈতিক নেতাকে হুমকি দেওয়ার অভিযোগে ৪৮ ঘণ্টার জন্য ভোট প্রচার করতে পারবেন না অসম বিজেপির দাপুটে নেতা তথা মন্ত্রী হেমন্ত বিশ্বশর্মা। শুক্রবার এই নির্দেশ দিয়েছে নির্বাচন কমিশন। এই নির্দেশ মধ্যরাত থেকে কার্যকর হবে। অসমে তৃতীয় তথা শেষ দফার ভোট হবে ৬ এপ্রিল। অর্থাৎ কমিশনের এই নির্দেশের ফলে হিমন্ত আর এই ভোটে প্রচারেই নামতেই পারবেন না।

শুক্রবার অসমের অর্থ তথা স্বাস্থ্য মন্ত্রীর নির্বাচনী প্রচারের উপর ৪৮ ঘণ্টার নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে নির্বাচন কমিশন। নির্বাচনী প্রচারে কেন্দ্রীয় সংস্থাকে কাজে লাগিয়ে তিনি বিরোধী দলের নেতাকে জেলে ঢুকিয়ে দেবেন বলে হুমকি দিয়েছিলেন। যার জেরে তাঁকে ব্যান করেছে কমিশন। অসমে জোট বেঁধে নির্বাচনে লড়ছে কংগ্রেস ও বরোল্যান্ড পিপলস ফ্রন্ট। ওই দলেরই নেতা হাগরামা মহিলারিকে হেমন্ত হুমকি দিয়েছিলেন। তিনি বলেছিলেন, কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা এনআইএ–কে কাজে লাগিয়ে জেলে পাঠাবেন বিরোধী এই নেতাকে। এই মন্তব্যের কারণেই তাঁর প্রচারে দু’দিনের জন্য নিষিদ্ধ করেছে কমিশন।

উল্লেখ্য, নির্বাচন মিটে গেলেই হাগরামার বিরুদ্ধে মামলার তদন্ত হবে বলেও হুমকি দেন বিজেপির এই দাপুটে নেতা। এই হুমকির প্রেক্ষিতেই বিজেপির হেভিওয়েট নেতার বিরুদ্ধে কমিশনের দ্বারস্থ হয় কংগ্রেস। এই অবস্থায় অসম বিজেপির প্রধান তারকা প্রার্থীর উপর নিষেধাজ্ঞা জারি হওয়ায় বেশ কিছুটা ধাক্কা খেয়েছে বিজেপি। কারণ আগামী ৪ এপ্রিল তাঁর নিষেধাজ্ঞার মেয়াদ শেষ হলেও তখন আর প্রচার করতে পারবেন না হেমন্ত।

এটাই তৃতীয় তথা শেষ দফার নির্বাচন। এখানে জালুকবাড়ি কেন্দ্র থেকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন স্বয়ং হেমন্ত বিশ্বশর্মা। আগামী ৬ এপ্রিল অসমের ৪০টি আসনে নির্বাচন হবে। তার আগে এই ধাক্কা কার্যত চাপে ফেলে দিল বিজেপি এবং শর্মাকে বলে মনে করছেন রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকরা। কারণ এই বিষয়ে নির্বাচন কমিশনের সচিব অজয় কুমার ভার্মা বলেন, ‘‌কমিশন হেমন্ত বিশ্বশর্মার এই ধরনের বক্তব্যের তীব্র বিরোধিতা করছে। তাই কমিশন সংবিধানের ৩২৪ ধারা অনুযায়ী ব্যবস্থা নিয়েছে।’‌

ঠিক কী বলেছিলেন হেমন্ত বিশ্বশর্মা?‌ গত ২৮ মার্চ এক নির্বাচনী সভা থেকে হিমন্ত ওই বিরোধী নেতাকে হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেন, ‘‌যদি হাগরামা মহিলারি বেশি বাড়াবাড়ি করেন তবে উনি জেলে যাবেন, সোজা কথা। ইতিমধ্যেই প্রচুর প্রমাণ ওঁর বিরুদ্ধে রয়েছে। এই মামলাটি এনআইএ’‌র অধীনে রয়েছে। কাউকে অশান্তি বাঁধাতে দেওয়া হবে না।’‌

বন্ধ করুন