বাংলা নিউজ > ভোটযুদ্ধ ২০২১ > অসম বিধানসভা নির্বাচন ২০২১ > অসমে বিজেপি প্রার্থীর গাড়িতে EVM! অবিলম্বে ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি কংগ্রেসের
গাড়িতে উদ্ধার ইভিএম। (ছবি সৌজন্য ভিডিয়ো)
গাড়িতে উদ্ধার ইভিএম। (ছবি সৌজন্য ভিডিয়ো)

অসমে বিজেপি প্রার্থীর গাড়িতে EVM! অবিলম্বে ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি কংগ্রেসের

  • বিজেপি প্রার্থীর গাড়িতে কীভাবে ভোটযন্ত্র নিয়ে যাওয়া হচ্ছে, তা নিয়ে প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে।

দ্বিতীয় দফার ভোটের শেষে অসমের এক বিজেপি প্রার্থীর গাড়ি থেকে উদ্ধার হল ইভিএম। তা নিয়ে শুরু হয়েছে রাজনৈতিক তরজা। বিজেপি প্রার্থীর গাড়িতে কীভাবে ভোটযন্ত্র নিয়ে যাওয়া হচ্ছে, তা নিয়ে প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে। ঘটনায় নির্বাচন কমিশনের ভূমিকা নিয়েও প্রশ্ন তোলেন বিরোধীরা।

গতরাতে পাথরকান্দি বিধানসভা কেন্দ্রে একটি ইভিএম নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল। সেই ইভিএমে ভোটগ্রহণ হয়েছিল। সেই সময় একদল জনতা সেই গাড়ি ধরে ফেলেন। স্থানীয়রা জানান, গাড়িটি আদৌও নির্বাচন কমিশনের নয়। বরং পাথরকান্দির বিজেপি প্রার্থী কৃষেন্দু পালের গাড়ি সেটি। সেই ঘটনার একটি স্বল্পদৈর্ঘ্যের ভিডিয়োও ছড়িয়ে পড়ে। তার জেরে স্বভাবতই রাজনৈতিক তরজা শুরু হয়।

অসম প্রদেশ কংগ্রেসের সভাপতি রিপুণ বোরা বলেন, 'আমাদের আশা যে এই ঘটনায় অবিলম্বে ব্যবস্থা নেবে নির্বাচন কমিশন এবং এটা কীভাবে হয়েছে, তা ব্যাখ্যা করবে। অবিলম্বে যদি ভোটলুঠ এবং ইভিএমের রিগিং বন্ধ করা না হয়, নির্বাচন বয়কটের বিষয়টি বিবেচনা করবে কংগ্রেস।' তোপ দেগেছেন কংগ্রেস নেত্রী প্রিয়াঙ্কা গান্ধী বঢরাও। টুইটারে তিনি বলেন, ‘যখনই ব্যক্তিগত গাড়িতে ইভিএম নিয়ে যাওয়া হয়, তাতে প্রতিবারই কয়েকটি একইরকম বিষয় থাকে। ১) গাড়িটি সাধারণত বিজেপি প্রার্থী বা তাঁদের সহযোগীদের হয়। ২) ভিডিয়োগুলিকে ব্যতিক্রমী ঘটনা হিসেবে উল্লেখ করা হয় এবং ভিডিয়োটি ভুল বলে খারিজ করে দেওয়া হয়। ৩) যাঁরা এরকম ভিডিয়ো প্রকাশ্যে আনেন, তাঁদের চক্রান্তকারী হিসেবে তুলে ধরার জন্য নিজেদের গণমাধ্যমকে কাজে লাগায় বিজেপি। কিন্তু সত্যিটা হল যে একাধিকবার এরকম ঘটনা সামনে আসছে এবং কিছু করা হচ্ছে না।’

বিষয়টি নিয়ে কমিশনের তরফে সরকারিভাবে কিছু জানানো হয়নি। তবে সূত্র উদ্ধৃত করে সংবাদসংস্থা এএনআই জানিয়েছে, ইভিএম নিয়ে যাওয়ার পথে নির্বাচন কমিশনের সরকারি গাড়ি খারাপ হয়ে যায়। রাস্তা দিয়ে যাওয়া একটি গাড়িতে নির্বাচন আধিকারিকরা উঠে যান। যা পরে বিজেপি প্রার্থীর গাড়ি বলে জানা যায়। তারইমধ্যে অজ্ঞাতপরিচয় ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের করা হয়েছে। যাঁরা গাড়ির উপর হামলা চালিয়েছেন (বলে অভিযোগ)। ঘটনার তদন্ত চলছে। একইসঙ্গে ওই সূত্রের দাবি, জনতার হামলার সময় ইভিএমে কোনওরকম পরিবর্তন করা হয়নি। আপাতত তা প্রশাসনের হেফাজতে আছে।

বন্ধ করুন