বাংলা নিউজ > ভোটযুদ্ধ > পুরভোটের লড়াই > বিজেপির মনোনয়নপত্র জমা নিয়ে রণক্ষেত্র দিনহাটা, লাঠিচার্জ করতে হল পুলিশকে
ন্ধুমার বাধে এসডিও অফিস চত্বরে।

বিজেপির মনোনয়নপত্র জমা নিয়ে রণক্ষেত্র দিনহাটা, লাঠিচার্জ করতে হল পুলিশকে

  • তাঁদেরকে সঙ্গে নিয়েই এসডিও অফিসে বিজেপি প্রার্থীরা ঢুকে যান। তখনই অশান্তি শুরু হয়।

বিজেপির মনোনয়নপত্র জমাকে ঘিরে ধুন্ধুমার পরিস্থিতি তৈরি হল দিনহাটায়। বিজেপি প্রার্থীদের মনোনয়নে বাধা দেওয়ার অভিযোগ তৃণমূল কংগ্রেসের বিরুদ্ধে। তৃণমূল কংগ্রেসের বিরুদ্ধে মনোনয়ন বাধা দেওয়ার অভিযোগ তুলেছে বিজেপি। এই অভিযোগ ঘিরে ধুন্ধুমার বাধে এসডিও অফিস চত্বরে। পরিস্থিতি সামাল দিতে লাঠিচার্জ করে পুলিশ।

বুধবার মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার শেষ দিন। আজ দিনহাটা মহকুমাশাসক অফিসে মনোনয়নপত্র জমা দিতে যান বিজেপি প্রার্থী। তাঁর সঙ্গে ছিলেন শীতলকুচি বিধায়ক এবং কোচবিহার দক্ষিণ কেন্দ্রের বিধায়ক মিহির গোস্বামী। অভিযোগ তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতীরা বিজেপি প্রার্থীদের মনোনয়ন জমা দিতে বাধা দেন। ফলে বচসা শুরু হয়। পুলিশ ও তৃণমূল কংগ্রেস কর্মী–সমর্থকদের সঙ্গে বচসায় জড়িয়ে পড়ে বিজেপি কর্মীরা। তাতে ব্যাপক উত্তেজনা দেখা দেয়। বিজেপি প্রার্থীদের সঙ্গে ছিলেন বিধায়ক ও তাঁদের নিরাপত্তারক্ষীরা। তাঁদেরকে সঙ্গে নিয়েই এসডিও অফিসে বিজেপি প্রার্থীরা ঢুকে যান। তখনই অশান্তি শুরু হয়।

উল্লেখ্য, গতকালই উদয়ন গুহ বলে দিয়েছিলেন দিনহাটায় ১৬–০ হবে। তাহলে কী সেই ছবি দেখতে পাওয়া যাচ্ছে?‌ তৃণমূল কর্মী–সমর্থকরা বিজেপি প্রার্থীদেরও মনোনয়নপত্র জমা দিতে বাধা দেন বলে অভিযোগ উঠেছে। পরিস্থিতি উত্তপ্ত হয়ে ওঠে। হাতাহাতি পর্যন্ত হয়। এসডিও অফিসের সামনে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। ঘটনাস্থলে পৌঁছয় দিনহাটা থানার পুলিশ। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনার চেষ্টা করে পুলিশ। কিন্তু তাতে কাজ না হওয়ায় লাঠিচার্জ করতে হয় পুলিশকে।

এই বিষয়ে তৃণমূল কংগ্রেস বিধায়ক উদয়ন গুহ বলেন, ‘‌রাজ্য নির্বাচন কমিশন যেখানে ভোট করাচ্ছে, রাজ্য পুলিশ যেখানে নির্বাচন করানোর দায়িত্বে, সেখানে কেন্দ্রীয় বাহিনীর নিরাপত্তা নিয়ে কীভাবে মনোনয়ন জমা দিতে পারেন বিজেপি প্রার্থীরা? এটা তো বেআইনি। পুলিশ এটাকে কীভাবে অনুমতি দিচ্ছে? সশস্ত্র কেন্দ্রীয় বাহিনী কীভাবে ঢুকল এসডিও অফিসে? এটা হতে পারে না।’‌

বন্ধ করুন