বাংলা নিউজ > ভোটযুদ্ধ > পুরভোটের লড়াই > CPIM-এর মিছিলে হামলা, থানার ভিতরেই লাঠি উঁচিয়ে মারধরের চেষ্টা,অভিযোগ TMC-র দিকে

CPIM-এর মিছিলে হামলা, থানার ভিতরেই লাঠি উঁচিয়ে মারধরের চেষ্টা,অভিযোগ TMC-র দিকে

CPIM-র মিছিলে হামলা, থানার ভিতরেই লাঠি উচিয়ে মারধরের চেষ্টা, অভিযোগ TMC-র দিকে। প্রতীকী ছবি।

বুধবার ১২ নম্বর ওয়ার্ডের সিপিএম প্রার্থী সুদীপ্তা ঘোষের সমর্থনে প্রচার মিছিল করেন সিপিএম কর্মী-সমর্থকরা।

পুরভোটের আগে উত্তপ্ত হয়ে উঠল কোচবিহারের মাথাভাঙ্গা পুরসভা। সিপিএমের মিছিলে বাঁশ,লাঠি নিয়ে হামলার অভিযোগ উঠল তৃণমূলের বিরুদ্ধে। পুরসভার ১২ নম্বর ওয়ার্ডে ঠিক মাথাভাঙ্গা থানার সামনে এই ঘটনা ঘটে। পুলিশ হামলাকারীদের ধমক দিলেও কাজ হয়নি শেষে হামলাকারীদের ওপর লাঠিচার্জ করলে সেখান থেকে পালিয়ে যায় দুষ্কৃতীরা। এই ঘটনায় হামলার অভিযোগ উঠেছে তৃণমূলের বিরুদ্ধে।

বুধবার ১২ নম্বর ওয়ার্ডের সিপিএম প্রার্থী সুদীপ্তা ঘোষের সমর্থনে প্রচার মিছিল করেন সিপিএম কর্মী-সমর্থকরা। তাদের মিছিলে আচমকাই দুষ্কৃতীরা হামলা চালায়। দলীয় পতাকা কেড়ে নেওয়া হয়। প্রাণ বাঁচাতে মাথাভাঙ্গা থানার ভেতরে ঢুকে যান সিপিএম কর্মী-সমর্থকরা। তারপরেও সিপিএম কর্মী সমর্থকদের পিছু ধাওয়া ছাড়েনি দুষ্কৃতীরা। তারাও থানার ভেতর ঢুকে গিয়ে লাঠি উঁচিয়ে তাদের মারধরের চেষ্টা করে পুলিশের সামনেই।

পুরসভার তিন নম্বর ওয়ার্ডের সিপিএম প্রার্থী সৌমিত্র দাস বলেন, ‘এই প্রচার মিছিল শান্তিপূর্ণভাবে করা হচ্ছিল। আচমকা পিছন থেকে তৃণমূলের গুন্ডা বাহিনী আমাদের মিছিলে হামলা করে। ৫০ জন মত দুষ্কৃতী ছিল। আমরা থানার ভিতরে চলে আসার পরেও ওরা আমাদের কর্মী সমর্থকদের মারধর করেছে।’ এই ঘটনায় তিনি তৃণমূলের বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলেছেন।

অন্যদিকে,পরোক্ষভাবে এই অভিযোগকেই স্বীকার করেছেন কোচবিহারের তৃণমূল চেয়ারম্যান উদয়ন গুহ। তিনি বলেন, ‘ভোটের আগে এসব হয়। তবে সিপিএম যে ভাষাতে কথা বোঝে অনেক সময় সেই ভাষাতেই সিপিএমের সঙ্গে কথা বলতে হয়। মাথাভাঙ্গায় হয়তো সেই ভাষাতেই কথা হয়েছে।’

বন্ধ করুন