বাংলা নিউজ > ভোটযুদ্ধ > পুরভোটের লড়াই > পুলিশি নজরদারিতেই পুরভোট চাইছে রাজ্য সরকার, কমিশনের কাছে বার্তা নবান্নের
ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্যে পিটিআই

পুলিশি নজরদারিতেই পুরভোট চাইছে রাজ্য সরকার, কমিশনের কাছে বার্তা নবান্নের

  • আসন্ন ১০৮টি পুরসভার ভোটে কেন্দ্রীয় বাহিনী মোতায়েন করার দাবি জানিয়েছে বিজেপি।

চার পুরনিগমের ভোটে অশান্তির অভিযোগ তুলে আদালতের দ্বারস্থ হয়েছে বিরোধী দল বিজেপি। এই আবহে তাদের তাদের দাবি যাতে আসন্ন ১০৮ পুরসভার ভোটে কেন্দ্রীয় বাহিনী মোতায়েন করা হয়। কলকাতা হাই কোর্ট এই বিষয়ে রাজ্য সরকার ও কমিশনকে হলফনামা জমা দিয়ে নিজেদের ভাবনাচিন্তার কথা জানাতে বলেছে। এই পরিস্থিতিতে রাজ্য নির্বাচন কমিশন নাকি রাজ্যের কাছে তাদের ভাবনার কথা জানতে চেয়েছে। জবাবে নবান্নের তরফে নাকি কমিশনকে জানানো হয়েছে যে রাজ্য চায় পুলিশের অধীনেই পুরভোট হোক।

রাজ্য সরকারের বক্তব্য, আগের পুরভোটগুলিতে রাজ্য পুলিশ ভালো কাজ করেছে। কিছু বিক্ষিপ্ত ঘটনা ঘটলেও পুলিশের অধীনে শান্তিপূর্ণ ভাবে ভোট অনুষ্টিত হয়েছে। এই আবহে কেন্দ্রীয় বাহিনী দিয়ে ভোট করানোর কোনও প্রয়োজনীয়তা চোখে পড়ছে না রাজ্যের। তাই ১০৮ পুরসভাতে রাজ্য পুলিশ মোতায়েন করেই ভোট করাতে চাইছে রাজ্য সরকার।

এই পরিস্থিতিতে হলফনামায় রাজ্য ও কমিশনকে তাদের এই ইচ্ছের কথা জানাতে হবে উচ্চ আদালতকে। জবাবে আদালত কী নির্দেশ দেয়, তার দিকে নজর থাকবে সবার। উল্লেখ্য, চার পুরনিগমের নির্বাচনে সন্ত্রাসের অভিযোগ তুলে উচ্চ আদালতে ৪টি পৃথক মামলা দায়ের করেছে বিজেপি। নিজেদের দাবির প্রেক্ষিতে বিজেপির পক্ষ থেকে বিভিন্ন ধরনের নথি পেশ করা হয় উচ্চ আদালতে। বিজেপির দাবি, মৃত মানুষের ভোট পড়েছে পুরনিগমের নির্বাচনে। চার বছর আগে প্রয়াত সঙ্গীতশিল্পী দ্বিজেন মুখোপাধ্যায়ের নামে ভোট পড়ে বিধাননগরে। এদিকে আসানসোলে বিজেপি প্রার্থীরা আক্রান্ত বলে দাবি করে গেরুয়া শিবির। সেখানে বোমাবাজি হয়েছে। তাছাড়া চন্দনগর ও শিলিগুড়িতে বিভিন্ন ঘটনা ঘটেছে বলে অভিযোগ।

বন্ধ করুন