বাংলা নিউজ > ভোটের লড়াই > পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভা নির্বাচন 2021 > ৩৬ ঘণ্টার মধ্যে ক্ষমা না চাইলে আইনি ব্যবস্থা, শুভেন্দুকে নোটিস পাঠালেন অভিষেক
অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় ও শুভেন্দু অধিকারী। ফাইল ছবি
অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় ও শুভেন্দু অধিকারী। ফাইল ছবি

৩৬ ঘণ্টার মধ্যে ক্ষমা না চাইলে আইনি ব্যবস্থা, শুভেন্দুকে নোটিস পাঠালেন অভিষেক

  • তোলাবাজ ভাইপো শব্দটি নিয়ে আপত্তি ডায়মন্ড হারবারের সাংসদের। 

এতদিন শুধু ছিল মাঠে-ময়দানে রাজনীতির বাকযুদ্ধ। এবার লড়াই গড়াল আইনি মঞ্চে। শুভেন্দু অধিকারীকে আইনি নোটিস পাঠালেন তৃণমূল সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। 'তোলাবাজ ভাইপো’ বলার জন্যে আইনি পদক্ষেপ নিলেন অভিষেক। ৩৬ ঘণ্টার মধ্যে নিঃশর্ত ক্ষমা না চাইলে মানহানি মামলা করার হুঁশিয়ারি দিয়েছেন তিনি। 

প্রসঙ্গত, বেশ কিছু দিন ধরেই শুভেন্দু অধিকারী তোলাবাজ ভাইপোর কথা বলছিলেন। ইঙ্গিতটি কার দিকে তা বলার অপেক্ষা রাখে না। জবাবে অভিষেক চ্যালেঞ্জ করে ছিলেন যে সাহস থাকলে নাম নিয়ে দেখাতে। এরপরই মমতার ভাইপোর নাম নিয়ে তাঁকে তোলাবাজ বলে অভিহিত করেন শুভেন্দু। পূর্ব মেদিনীপুরের খেজুরিতে এই কথা বলেন সদ্য় বিজেপিতে যোগ দেওয়া নেতা। তারপরেই আর দেরি করেন নি, উকিলের নোটিস দিয়ে দিলেন অভিষেক। 

আইনজীবী সঞ্জয় বসু এদিন তাঁর মক্কেল অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের হয়ে শুভেন্দু অধিকারীকে চিঠি পাঠিয়েছেন। কার্যত রাজনৈতিক বক্তব্যের মতোই সেই আইনি নোটিস। তাতে বলা হয়েছে যে শুভেন্দু নিজের কুকর্মের থেকে নজর সরানোর জন্য মিথ্যে ও অপমানজনক অভিযোগ করছেন। শুভেন্দু দিবাস্বপ্ন দেখছেন ও তদন্তকারীদের ভয় পাচ্ছেন, সেই কথাও বলা হয়েছে। 

 শুভেন্দু অধিকারীর নাম যে নারদা ও সারাদা কাণ্ডেও উঠেছিল, সেই কথা লেখা আছে এই চিঠিতে। প্রসঙ্গত, দীর্ঘদিন একসঙ্গে রাজনীতি করেছেন অভিষেক ও শুভেন্দু। কিন্তু দলে অভিষেকের উত্থান মেনে নিতে পারেননি একদা ক্ষমতাশালী মন্ত্রী। সেই কারণেই দল ছাড়েন পরিবারতন্ত্রের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করছেন, সেই যুক্তি দেখিয়ে। তবে যতদিন দলে ছিলেন, তিনিও অভিষেকের বিরুদ্ধে কামান দাগেননি। তেমন শুভেন্দুর নারদা বা সারদার যোগ নিয়ে কথা বলেননি অভিষেক। 

 

বন্ধ করুন