বাংলা নিউজ > ভোটের লড়াই > পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভা নির্বাচন 2021 > শুরুতেই শাহের আস্থা অর্জন, শুভেন্দুর সঙ্গে বাংলার ভোটের বৈঠকে ডাক পেলেন রাজীব
রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়। (ফাইল ছবি, সৌজন্য পিটিআই)
রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়। (ফাইল ছবি, সৌজন্য পিটিআই)

শুরুতেই শাহের আস্থা অর্জন, শুভেন্দুর সঙ্গে বাংলার ভোটের বৈঠকে ডাক পেলেন রাজীব

  • মঙ্গলবার রাজ্য বিজেপি নেতাদের দিল্লিতে বৈঠকে ডাকলেন অমিত শাহ।

মঙ্গলবার রাজ্য বিজেপি নেতাদের দিল্লিতে বৈঠকে ডাকলেন অমিত শাহ। সেখানে আসন্ন বিধানসভা নির্বাচন নিয়ে কৌশল সাজানো হবে বলে সূত্রের খবর। বিজেপি সূত্রে খবর, সোমবারই রাজ্য নেতাদের দিল্লিতে ডাকা হয়েছে। তবে বৈঠক মঙ্গলবার। অমিত শাহের বাসভবনে। বাংলার নির্বাচন নিয়ে আলোচনায় এই প্রথম অমিত শাহের বাড়ির বৈঠকে ডাক পেয়েছেন শুভেন্দু অধিকারী। ওই বৈঠকে রাজ্য বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষ, সাধারণ সম্পাদক (সংগঠন) অমিতাভ চক্রবর্তী ছাড়াও থাকার কথা বাংলার দায়িত্বপ্রাপ্ত কেন্দ্রীয় নেতা শিবপ্রকাশ, কৈলাস বিজয়বর্গীয় এবং মুকুল রায়েদের। থাকবেন সদ্য বিজেপিতে যোগ দেওয়া রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়ও।

শনিবার ও রবিবারের বঙ্গ সফরে পশ্চিমবঙ্গের সাংগঠনিক পরিস্থিতি নিয়ে রাজ্য নেতৃত্বের সঙ্গে বৈঠক করার কথা ছিল শাহের। কিন্তু সেই সফর বাতিল হয়ে যাওয়ার পর মঙ্গলবারের বৈঠক গুরুত্বপূর্ণ বলেই মনে করা হচ্ছে। বাতিল হয়ে যাওয়া সফরের পরিবর্তে অমিত কবে রাজ্যে আসবেন, কোথায় সভা বা রোড–শো করা যেতে পারে, সে সব বিষয়েও আলোচনা হতে পারে ওই বৈঠকে। তবে মতুয়াদের মন রাখতে তড়িঘড়ি তাঁকে আসতে হবে বলে মনে করছেন রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকরা। কারণ তিনি নিজেই ফোন করে সাংসদ শান্তনু ঠাকুরকে বলেছেন, ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে তিনি রাজ্যে আসবেন।

উল্লেখ্য, গত ১৬ জানুয়ারি দিল্লির কৃষ্ণমেনন মার্গে অমিত শাহের বাসভবনে রাজ্য নেতাদের নিয়ে বৈঠক হয়েছিল। দিলীপ, মুকুল, অমিতাভ, কৈলাস, শিবপ্রকাশরা সেই বৈঠকে থাকলেও ডাক পাননি শুভেন্দু। যদিও বিজেপি সূত্রে খবর, ওই বৈঠকে রাজ্যের প্রাক্তন মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারীর কথা আলোচনা হয়েছিল। দলের কোনও পদে না থাকলেও যে কোনও গুরুত্বপূর্ণ দলীয় বৈঠকে তাঁকে রাখার সিদ্ধান্তও হয়েছিল। তারপর কলকাতায় রাজ্য বিজেপির বিশেষ সাংগঠনিক বৈঠকেও ডাকা হয়েছিল শুভেন্দুকে। এবার তিনি ডাক পেলেন দিল্লির বৈঠকেও।

সম্প্রতি দলের সংগঠন ও সাধারণ মানুষের ফিডব্যাক নিয়ে জে পি নড্ডার কাছে বিস্তারিত রিপোর্ট জমা দিয়েছেন সাত কেন্দ্রীয় পর্যবেক্ষক। কলকাতার রিপোর্ট জমা দিয়েছেন গজেন্দ্র সিং শেখাওয়াত। হাওড়া ও হুগলির রিপোর্ট দিয়েছেন কেশবপ্রসাদ মৌর্য। পূর্ব মেদিনীপুর ও ঝাড়গ্রামের রিপোর্ট দিয়েছেন অর্জুন মুণ্ডা। হলদিয়ার রিপোর্ট পেশ করেছেন মনসুখ মাণ্ডব্য। মুর্শিদাবাদ ও নদিয়ার রিপোর্ট জমা দেন সঞ্জীব বালান। উত্তরবঙ্গের রিপোর্ট প্রহ্লাদ সিং প্যাটেল এবং বর্ধমান ও আসানসোলের রিপোর্ট বিজেপি সভাপতির কাছে জমা দেন নরোত্তম মিশ্র। তবে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নিজেকে নন্দীগ্রাম থেকে প্রার্থী ঘোষণা করে দেওয়ায় পরিস্থিতি অনেকটাই বদলে গিয়েছে এবং তাই শুভেন্দুকে বৈঠকে ডাকা হয়েছে বলে সূত্রের খবর৷

ত্রের খবর৷

বন্ধ করুন