বাংলা নিউজ > ভোটযুদ্ধ ২০২১ > পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভা নির্বাচন 2021 > মমতাকে ব্ল্যাকমেল করছেন অনুব্রত, বিস্ফোরক দাবি ফিরহাদের
ফাইল ছবি
ফাইল ছবি

মমতাকে ব্ল্যাকমেল করছেন অনুব্রত, বিস্ফোরক দাবি ফিরহাদের

  • সোমবার বন্ধ করে এক দলীয় বৈঠকে ফিরহাদ হাকিমকে বলতে শোনা যায়, ‘মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যখন প্রার্থীতালিকা প্রকাশ করছিলেন তখন আমি পাশে বসে ছিলাম। আমি জানতামই না ওর নাম নেই।

দলের বীরভূম জেলা সভাপতি অনুব্রত মণ্ডলের বিরুদ্ধে এবার মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে ব্ল্যাকমেল করার অভিযোগ তুললেন তৃণমূল নেতা ফিরহাদ হাকিম। সোমবার কলকাতা বন্দর এলাকায় এক কর্মিসভায় মারাত্মক এই অভিযোগ করেন তিনি। তাঁর দাবি, ‘দিদিকে ব্ল্যাকমেল করে নলহাটির বিধায়ক মইনুদ্দিন শামসের নাম প্রার্থীতালিকা থেকে বাদ দিয়েছেন অনুব্রত।’

গত ৫ মার্চ তৃণমূলের প্রার্থীতালিকা ঘোষণা হলে দেখা যায় নলহাটি বিধানসভা কেন্দ্রের বিধায়ক মইনুদ্দিন শামসকে প্রার্থী করেনি দল। এর পরই সোশ্যাল মিডিয়ায় ক্ষোভে ফেটে পড়েন মইনুদ্দিন সাহেব। বলেন, টাকা তুলে দিতে না পারায় তাঁর নাম বাদ গিয়েছে। এর পর বাবা কলিমুদ্দিন সামসের দল ফরওয়ার্ড ব্লকের সঙ্গে যোগাযোগ করেন তিনি। কিন্তু কলকে পাননি। এই নিয়ে নলহাটিতে মইনুদ্দিন সাহেবের অনুগামীদের মধ্যে ক্ষোভ ছড়ায়। ক্ষোভ ছড়ায় কলকাতা বন্দর এলাকায়। কারণ সেখানে তৃণমূলের অন্যতম সংগঠন মইনুদ্দিন সাহেবের ভাই নিজামুদ্দিন শামস। 

সোমবার বন্ধ করে এক দলীয় বৈঠকে ফিরহাদ হাকিমকে বলতে শোনা যায়, ‘মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যখন প্রার্থীতালিকা প্রকাশ করছিলেন তখন আমি পাশে বসে ছিলাম। আমি জানতামই না ওর নাম নেই। যখন নাম ঘোষণা হল না তখন আমি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে জিজ্ঞাসা করলাম, এটা কী হল? তখন উনি বললেন, অনুব্রত আমাকে ব্ল্যাক মেল করছে। জবরদস্তি এর নাম কেটে অন্য নাম বসিয়েছে। আমি বললাম, আপনি দলের নেত্রী আপনি বলছেন? তখন উনি বললেন, আমাকে সবটা সামলাতে হচ্ছে। সবাইকে নিয়ে চলতে হচ্ছে। আমারও আফশোস হচ্ছে। বেচারা কোনও ঝামেলায় থাকত না। শুধু নিজের কাজ করতো, কিন্তু টিকিট পেল না।’

 

তবে ফিরহাদের এই বক্তব্য হজম হচ্ছে না অনেকের। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে অনুব্রত মণ্ডল ব্ল্যাকমেল করছেন। আর প্রার্থীতালিকা ঘোষণার আগে তা ফিরহাদের জানা ছিল না তা মানতে পারছেন না অনেকেই। অনেকের মতে, নিজামুদ্দিন সাহেব ও তাঁর অনুগামীদের ক্ষতে প্রলেপ দিতে হয়তো অনুব্রতকে কাঠগড়ায় তুলেছেন ফিরহাদ। পরে অবশ্য এরকম কথা বলেননি বলে দাবি করেন ফিরহাদ। তাঁর দাবি, তিনি শুধু বলেছেন টিকিটটা পেলে ভালো হত, কেন দেয়নি জানি না। অনুব্রত অন্যদিকে বলেন যে এলাকার মানুষ চায়নি বলেই টিকিট দেওয়া হয় নি। বিদায়ী বিধায়ক পাঁচ বছর মানুষের সঙ্গে মিশে কাজ করেননি বলে তাঁর দাবি। 

 

বন্ধ করুন