বাংলা নিউজ > ভোটের লড়াই > পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভা নির্বাচন 2021 > ‘আমারও ধৈর্যের সীমা আছে’, পদ হারিয়ে কাকে হুঁশিয়ারি দিলেন জিতেন্দ্র?
জিতেন্দ্র তিওয়ারি। ফাইল ছবি
জিতেন্দ্র তিওয়ারি। ফাইল ছবি

‘আমারও ধৈর্যের সীমা আছে’, পদ হারিয়ে কাকে হুঁশিয়ারি দিলেন জিতেন্দ্র?

  • গত ১৭ ডিসেম্বর দলের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ ঘোষণা করে তৃণমূলের জেলা সভাপতি ও আসানসোলের পুর প্রশাসকের পদ থেকে ইস্তফা দিয়েছিলেন জিতেন্দ্র। হাতে ছিল শুধু পাণ্ডবেশ্বরের বিধায়ক পদটি।

দলের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ ঘোষণা করে রাতারাতি তৃণমূলে ফিরলেও পদ ফিরে পাননি জিতেন্দ্র তিওয়ারি। তার পরই নানা ভাবে ইঙ্গিতপূর্ণ মন্তব্য করে চলেছেন তিনি। এবার নাম না করে দলীয় নেতৃত্বকে কার্যত হুঁশিয়ারি দিলেন তিনি। বললেন, ‘আমারও একটা ধৈর্যের সীমা আছে।’

গত ১৭ ডিসেম্বর দলের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ ঘোষণা করে তৃণমূলের জেলা সভাপতি ও আসানসোলের পুর প্রশাসকের পদ থেকে ইস্তফা দিয়েছিলেন জিতেন্দ্র। হাতে ছিল শুধু পাণ্ডবেশ্বরের বিধায়ক পদটি। রাতারাতি ভোল বদলে দলে ফিরলেও ছেড়ে যাওয়া ২ পদের কোনওটিই ফেরত পাননি তিনি। দলের সভাতেও ডাক পান না জিতেন্দ্র। এই নিয়ে প্রকাশ্য বিবৃতিতে সরাসরি বিতর্কিত কিছু না বললেও সোশ্যাল মিডিয়ায় ও জনসভায় নাম না করে তাঁর ক্ষোভের কথা জানিয়ে চলেছেন তিনি। 

সোমবরা অন্ডালে এক বস্ত্র বিতরণ অনুষ্ঠানে জিতেন্দ্র বলেন, ‘আমার ধৈর্যের একটা সীমা আছে। ভেঙে গেলে অনেকের সমস্যা হতে পারে।’ রাজনৈতিক মহলের মতে, জিতেন্দ্রর নিশানায় পাণ্ডবেশ্বর ব্লক তৃণমূল কংগ্রেস সভাপতি নরেন্দ্রনাথ চক্রবর্তী। জিতেন্দ্রর পদত্যাগের পর থেকেই এলাকায় তাঁর বিরুদ্ধে জনমত তৈরিতে সক্রিয় ভূমিকা নেন তিনি। বিধায়কের বিরুদ্ধে হয় বিক্ষোভ মিছিল। জিতেন্দ্রর কুশপুতুলও পোড়ানো হয়। নাম না করে জিতেন্দ্র তাঁর দিকেই নিশানা করেছেন বলে মনে করছেন অনেকে।

 

বন্ধ করুন