বাংলা নিউজ > ভোটযুদ্ধ ২০২১ > পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভা নির্বাচন 2021 > জামুরিয়ায় এসেও নজরুলের নাম করলেন না প্রধানমন্ত্রী, ক্ষোভে ফুঁসছে মানুষ
প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। ছবি: রয়টার্স
প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। ছবি: রয়টার্স

জামুরিয়ায় এসেও নজরুলের নাম করলেন না প্রধানমন্ত্রী, ক্ষোভে ফুঁসছে মানুষ

  • ভোট–পঞ্চমীর পর প্রশ্ন উঠে গেল, হবে তো?‌ যদি বিজেপি ক্ষমতায় আসে তাহলে বাংলার ভাল করবে তো?

বারবার প্রধানমন্ত্রীর মুখে শোনা যায় সোনার বাংলা গড়ার কথা। বিজেপির অন্যান্য মন্ত্রীরাও এই কথা বলে ভোট চাইছেন। কিন্তু ভোট–পঞ্চমীর পর প্রশ্ন উঠে গেল, হবে তো?‌ যদি বিজেপি ক্ষমতায় আসে তাহলে বাংলার ভাল করবে তো?‌ এই প্রশ্ন ওঠার কারণ হল, ‘সাম্যবাদী’ কবি নজরুল ইসলামের জন্মভিটে জামুড়িয়ায় শনিবার জনসভা করেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। কিন্তু কবির জন্মভিটের অদূরে এসে একবারও তাঁর মুখে শোনা গেল না বিদ্রোহী কবির নাম। এমনকী মূল মঞ্চে বিশাল ফ্লেক্সে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর–সহ নানা মনীষীর ছবি থাকলেও ব্রাত্যই থাকলেন কাজি নজরুল ইসলাম। যিনি লিখেছিলেন— ‘গাহি সাম্যের গান, যেখানে আসিয়া এক হয়ে গেছে সব বাধা ব্যবধান, যেখানে মিশছে হিন্দু, বৌদ্ধ, মুসলিম, ক্রিশ্চান’। এই ‘অমর্যাদা’ নিয়ে সরব হয়েছে নজরুল ইসলামের আত্মীয় থেকে সাধারণ মানুষ। আর তাতেই এখন প্রশ্ন উঠে গিয়েছে সোনার বাংলা নিয়ে।

কবির জন্মস্থান জামুড়িয়া বিধানসভা কেন্দ্রের চুরুলিয়া গ্রামে। চুরুলিয়ায় আজও রয়েছে তাঁর জন্মভিটে। গড়ে উঠেছে নজরুল অ্যাকাডেমি। আসানসোলে কবির নামে বিশ্ববিদ্যালয়ও গড়ে উঠেছে। ক্ষমতায় না আসতেই বাংলার এমন কবিকেই বিজেপি ‘অপমান’ করেছে বলে অভিযোগ তুলেছেন সাধারণ মানুষ। এটা ঘটবে ভাবতেও পারেননি জামুরিয়াবাসী। কারণ প্রধানমন্ত্রী এখন বাংলা নিয়ে চর্চা করেন। বাংলা ভাষায় বক্তব্য শুরু করেন। এমনকী বাংলার মুখ্যমন্ত্রীকে সরাবার জন্য আশীর্বাদ চান। তাঁর ব্যাকগ্রাউন্ডে কখনও দক্ষিণেশ্বর মন্দির, তো কখনও কোচবিহারের রাজবাড়ি দেখা যায়। রবি ঠাকুরের কবিতা আউড়াতেও দেখা গিয়েছে তাঁকে। অথচ নজরুলকে ব্রাত্য করে রাখলেন তিনি।

এদিন জামুড়িয়ার নিঘায় জনসভা থেকে অনেক কথা বলেন বিজেপির ‘মুখ’ নরেন্দ্র মোদী। কিন্তু তাঁর ভাষণে একবারের জন্যও আসেনি কবির নাম। বাঙালি রবীন্দ্র, নজরুলকে কোনওদিনই আলাদা করে দেখেননি। বিভিন্ন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে রবীন্দ্র, নজরুল গীতি পরিবেশিত হয়। এই বিষয়ে নজরুল অ্যাকাডেমির সাধারণ সম্পাদক তথা কবির ভাইপো কাজি রেজাউল করিম বলেন, ‘‌কোনও জায়গাতেই প্রধানমন্ত্রী নজরুল ইসলামের নাম নেন না। জামুড়িয়ায় এসে অন্তত কবির মর্যাদাটুকু দেবেন আশা করেছিলাম। কিন্তু হল না। আমরা অত্যন্ত ব্যথিত।’‌

সিপিএমের জেলা সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য পার্থ মুখোপাধ্যায় বলেন, ‘‌বাংলার নিজস্ব সংস্কৃতি সম্পর্কে এদের কোনও ধারণাই নেই।’‌ তৃণমূল কংগ্রেসের ব্লক সভাপতি সাধন রায় বলেন, ‘‌এই ঘটনার তীব্র ধিক্কার জানাচ্ছি।’‌ জামুড়িয়ার বিজেপি প্রার্থী তাপস রায়ের সাফাই, ‘‌প্রধানমন্ত্রী এদিন কোনও মনীষীর কথা বলেননি। তাই কবি নজরুল ইসলামের নামও আসেনি।’‌

বন্ধ করুন