বাংলা নিউজ > ভোটযুদ্ধ ২০২১ > পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভা নির্বাচন 2021 > মমতা–প্রলয় ফোনে কথোপকথন, গর্বিত সুব্রত–কুণাল, খোঁচা দিলীপ–শুভেন্দুর
মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় অডিও ক্লিপ। (ফাইল ছবি, সৌজন্য পিটিআই)
মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় অডিও ক্লিপ। (ফাইল ছবি, সৌজন্য পিটিআই)

মমতা–প্রলয় ফোনে কথোপকথন, গর্বিত সুব্রত–কুণাল, খোঁচা দিলীপ–শুভেন্দুর

  • তবে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ই ফোন করেছিলেন পূর্ব মেদিনীপুরের বিজেপি জেলা সহ– সভাপতি প্রলয় রায়কে। সেকথা কার্যত স্বীকার করে নিল তৃণমূল কংগ্রেস।

বিধানসভা নির্বাচনের প্রথম দফায় সবচেয়ে চর্চিত বিষয় হয়ে উঠেছে, বঙ্গ রাজনীতিতে প্রলয় কাণ্ড। সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল একটি অডিও ক্লিপ। আর তা হল বিজেপি নেতার সঙ্গে তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কথোপকথন। যদিও এই অডিও এবং ভিডিও’‌র সত্যতা হিন্দুস্তান টাইমস ডিজিটাল বাংলা যাচাই করে দেখেনি। তবে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ই ফোন করেছিলেন পূর্ব মেদিনীপুরের বিজেপি জেলা সহ– সভাপতি প্রলয় কে। সেকথা কার্যত স্বীকার করে নিল তৃণমূল কংগ্রেস। তবে এতে অন্যায় বা মুখ লুকানোর মতো কিছু দেখছে না শাসকদল। বরং যেভাবে একটি দলের সুপ্রিমো হওয়ার সত্ত্বেও তিনি নিজের দলের প্রাক্তন কর্মীকে ফোন করেছেন এবং সৌজন্য দেখিয়েছেন, সেই বিষয়টি আসলে গর্বের। আর সংবাদমাধ্যমের একাংশই বিষয়টিকে অন্যভাবে উপস্থাপন করছে বলে সাংবাদিক বৈঠক দাবি করেছেন সুব্রত মুখোপাধ্যায়।

আর কুণাল ঘোষ দাবি করেছেন, ‘‌ফোন করে থাকলে বেশ করেছেন। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় দলের পুরনো কর্মীকে ফোন করতেই পারেন।’‌ যদিও ভোটভিক্ষা চাইছেন মমতা বলে খোঁচা দিলেন নন্দীগ্রামে বিজেপি প্রার্থী শুভেন্দু অধিকারী। এই প্রসঙ্গে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে তীব্র কটাক্ষ করলেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। সংবাদমাধ্যমে তিনি বলেন, ‘‌ওনার এখন দুর্দিন চলছে। যিনি একটা সময় চমকাতেন ধমকাতেন তিনি সেসব ছেড়ে আবেদন–নিবেদন করছেন।’‌ পাল্টা সুব্রত মুখোপাধ্যায় বলেন, ‘‌আজ আমি টিভি থেকে দেখেছি। তা দেখার পর মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উপর আমার শ্রদ্ধা আরও বেড়ে গিয়েছে। বিষয়টিকে যেভাবে পরিবেশন করা হচ্ছে তার আঙ্গিক ভিন্ন। তবে এতে আমাদের কোনও ক্ষতি হয়নি। এটা রেকর্ড করে সংবাদমাধ্যমে ছড়িয়ে দেওয়া হবে, কী ধরনের রাজনীতি! এমন দেখানোর চেষ্টা হচ্ছে যেন মমতা খুব দুর্বল হয়ে গিয়েছেন।’‌

এই প্রসঙ্গে ধোঁয়া দিয়ে যখন রাজ্য–রাজনীতিতে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে হেও প্রতিপন্ন করার চেষ্টা করছে বিজেপি তখন কুণাল ঘোষ বলেন, ‘‌অমিত মালব্য কী বলবে, তার উত্তর দেওয়ার প্রয়োজন নেই। তর্কের খাতিরে অডিও সত্য হলেও বেশ করেছেন। কথোপকথন শুনে বোঝা যাচ্ছে, ফোনের ওপারে রয়েছেন পুরনো দিনের তৃণমূল কংগ্রেসের কর্মী। কোনও একটা পরিবার মমতার হয়ে কাজ করেছেন। অমৃত তারা খেয়েছে, বিষয়টা দলের জন্য রেখে গিয়েছে। নন্দীগ্রাম আন্দোলনের জন্য কলকাতা থেকে দিল্লি কাঁপিয়ে বেরিয়েছেন মমতাই। মমতা ফোন করে থাকলে এটা তাঁর মহানুভবতা। উনি বিজেপি কর্মীকে ফোন করেননি। অভিমানে দল ছেড়েছেন এমন তৃণমূল কংগ্রেস কর্মীকে করেছেন।’‌

যদিও এই ব্যাখ্যা মানতে নারাজ শুভেন্দু অধিকারী। তিনি বলেন, ‘‌এটা তৃণমূল নেত্রীর হতাশা ও দেউলিয়ার বহিঃপ্রকাশ। প্রলয় পাল জেলার সহ–সভাপতি। ভোটের পাঁচদিন আগে বিরোধী দলের নেতাকে ফোন করে ভোটভিক্ষা চাইছেন। নন্দীগ্রামে পার্টির নিজের কর্মীদের উপরে ভরসা নেই ওঁর।’‌ পালটা হুঁশিয়ারি দিয়ে কুণাল বলেন, ‘‌যদি টেপের লড়াই শুরু হয়, তাহলে ধাপে ধাপে হোক। বিজেপির কোন নেতা তৃণমূল কংগ্রেসে ফিরতে চেয়ে দক্ষিণ কলকাতায় কোথায় বৈঠক করেছেন সেই টেপও তাহলে প্রকাশ করি। শিশির বাজোরিয়া ও মুকুল রায় বুথে এজেন্ট দেওয়া নিয়ে কী কথা বলছেন সেই টেপ ও সামনে আসবে।’‌

বন্ধ করুন