বাংলা নিউজ > ভোটযুদ্ধ ২০২১ > পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভা নির্বাচন 2021 > রানাঘাট দক্ষিণ বিধানসভা কেন্দ্র ২০২১ : ভোটের প্রার্থী, অতীতের ফলাফল - একনজরে সব তথ্য
১৭ এপ্রিল রানাঘাট দক্ষিণে ভোটগ্রহণ। (নিজস্ব ছবি)
১৭ এপ্রিল রানাঘাট দক্ষিণে ভোটগ্রহণ। (নিজস্ব ছবি)

রানাঘাট দক্ষিণ বিধানসভা কেন্দ্র ২০২১ : ভোটের প্রার্থী, অতীতের ফলাফল - একনজরে সব তথ্য

  • ১৭ এপ্রিল রানাঘাট দক্ষিণে ভোটগ্রহণ।

এই তফসিলি জাতি কেন্দ্রে এবারের তৃণমূল কংগ্রেসের প্রার্থী হলেন বর্ণালী দে। এই আসনে বিজেপির তরফে দাঁড়াচ্ছেন মুকুটমণি অধিকারী। অন্যদিকে, বাম-কংগ্রেস-ইন্ডিয়ান সেকুলার ফ্রন্টের (আইএসএফ) তরফে এই কেন্দ্রে দাঁড়াচ্ছেন সিপিএমের রমা বিশ্বাস।

রানাঘাট চুর্ণী নদীর তীরে অবস্থিত একটি প্রাচীন জনপদ। রানাঘাটের রেল জংশনটি দেশভাগের আগে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ছিল। নদিয়া জেলার একটি মহকুমা শহর ও পৌরসভা এলাকা হল রানাঘাট। এটি শিয়ালদহ-লালগোলা শাখার একটি গুরুত্বপূর্ণ রেলওয়ে জংশন স্টেশন। এই শহরে পৌরসভা তৈরি হয় ১৮৬৪ সালে। মহকুমা শাসক ছিলেন বিখ্যাত কবি নবীনচন্দ্র সেন। শহরের প্রথিতযশা মানুষদের মধ্যে রয়েছেন রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের জীবনীকার প্রভাতকুমার মুখোপাধ্যায়, বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ কালীময় ঘটক, নদিয়া কাহিনীর রচয়িতা কুমুদনাথ মল্লিক, কলকাতার প্রাক্তন মেয়র সন্তোষকুমার বসু, অলিম্পিয়ান ফুটবলার নিখিল নন্দী, অনিল নন্দী, অজিত নন্দী-সহ প্রমুখ। শিল্প-সংস্কৃতির চর্চায় রাণাঘাটের জমিদার পালচৌধুরীদের বড় অবদান আছে। খেলাধুলো, নাটক, সাহিত্য পত্রিকা, বিজ্ঞান আন্দোলন এবং সংগীত জগতের নিজস্ব ঘরানাতে রানাঘাটের মানুষ বাংলার সংস্কৃতি জগতে অবদান রেখেছেন।

ভারতের সীমানা পুনর্নির্ধারণ কমিশনের নির্দেশিকা অনুসারে, ৯০ নম্বর রানাঘাট দক্ষিণ (তফসিলি জাতি) বিধানসভা কেন্দ্রটি অনিশমালি, বৈদ্যপুর-১, বৈদ্যপুর-২, দেবগ্রাম, মাঝেরগ্রাম, নোকারি, শ্যামনগর ও রঘুনাথপুর হিজুলি-১ গ্রাম পঞ্চায়েতগুলি রানাঘাট-২ সমষ্টি উন্নয়ন ব্লক এবং আনুলিয়া, হাবিবপুর, নওপাড়া মাসুন্ডা, পায়রাডাঙ্গা, রামনগর-২ ও তারাপুর গ্রাম পঞ্চায়েতগুলি রানাঘাট-১ সমষ্টি উন্নয়ন ব্লক এবং কুপার্স ক্যাম্প নির্দিষ্ট এলাকা এর অন্তর্গত। রানাঘাট দক্ষিণ বিধানসভা কেন্দ্রটি ১৩ নম্বর রানাঘাট লোকসভা কেন্দ্র (তফসিলি জাতি)’‌র অন্তর্গত। রানাঘাট পূর্ব ও পশ্চিম কেন্দ্রটি আগে নবদ্বীপ লোকসভা কেন্দ্রের অন্তর্গত ছিল।

২০১৬ সালের বিধানসভা নির্বাচনে সিপিএমের রমা বিশ্বাস তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী তৃণমূলের আবিররঞ্জন বিশ্বাসকে পরাজিত করেছিলেন। রমা বিশ্বাসের প্রাপ্ত ভোট ছিল ১০৪,১৫৯৷ দ্বিতীয় স্থানে ছিলেন তৃণমূল কংগ্রেস প্রার্থী আবিররঞ্জন বিশ্বাস। তাঁর প্রাপ্ত ভোট সংখ্যা ৮৬,৯০৬৷ সিপিএমের রমা বিশ্বাস তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী তৃণমূল কংগ্রেস প্রার্থী আবিররঞ্জন বিশ্বাসকে ১৭,২৫৩ ভোটে পরাজিত করেছিলেন। ২০১১ সালের নির্বাচনে তৃণমূল কংগ্রেসের আবিররঞ্জন বিশ্বাস তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী সিপিআইএমের আলোক দাসকে পরাজিত করেছিলেন।

বন্ধ করুন