বাংলা নিউজ > ভোটের লড়াই > পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভা নির্বাচন 2021 > তৃণমূলে 'বাবাকে সাইড করা হয়েছিল' সিঙ্গুরের বিধায়কের ঘরেও ফুটছে পদ্ম!
রবীন্দ্রনাথ ভট্টাচার্য। (ফাইল ছবি, সৌজন্য ফেসবুক)
রবীন্দ্রনাথ ভট্টাচার্য। (ফাইল ছবি, সৌজন্য ফেসবুক)

তৃণমূলে 'বাবাকে সাইড করা হয়েছিল' সিঙ্গুরের বিধায়কের ঘরেও ফুটছে পদ্ম!

  • এবার সিঙ্গুরের বিধায়ক রবীন্দ্রনাথ ভট্টাচার্যের বাড়িতেও ফুটতে চলেছে পদ্ম।

বিধানসভা নির্বাচনের আগে এবার সিঙ্গুরের বিধায়ক রবীন্দ্রনাথ ভট্টাচার্যের বাড়িতেও ফুটতে চলেছে পদ্ম। রাজ্য–রাজনীতির অলিন্দে এখন এই প্রশ্নই উঠতে শুরু করেছে। কারণ, গেরুয়া শিবিরে নাম লেখাতে চলেছেন বিধায়ক পুত্র তুষার ভট্টাচার্য। কবে আনুষ্ঠানিকভাবে পদ্ম শিবিরে নাম লেখাবেন, সেকথাও জানালেন তিনি। কিছুটা ক্ষোভের সুরেই তিনি বলেন, ‘‌বাবাকে সাইড করা হয়েছিল। ২০১৬ সালের পর সেটা আরও বেশি করে শুরু হয়। সেটা তৃণমূল ছাড়ার যেমন কারণ, তেমন নরেন্দ্র মোদীর কাজ দেখেও আমি অনুপ্রাণিত হয়েছি।’‌

চন্দননগরে একটি সভা ছিল বিজেপি নেতা শুভেন্দু অধিকারীর। ওই মঞ্চ থেকে সিঙ্গুরের ‘মাস্টারমশাই’ রবীন্দ্রনাথ ভট্টাচার্যের ছেলের কথা তোলেন তিনি। ফোন করে বিধায়ক-পুত্র তুষার বিজেপিতে যোগ দেওয়ার ইচ্ছাপ্রকাশ করেছেন বলেই জানান। এবার সেকথায় সিলমোহর দিলেন খোদ তুষার। বিজেপিতে যোগ দেবেন বলেই জানালেন। তুষার বলেন, ‘‌শুভেন্দু দার সঙ্গে আমার অনেক দিনের যোগাযোগ। উনি বিজেপিতে যাওয়ার পর পরই আমি ওনাকে বলেছিলাম আমিও যোগ দিতে চাই। আমি নিজে দেখিনি, তবে শুনেছি উনি সভায় আমার কথা বলেছেন। উনি যেদিনই সিঙ্গুর আসবেন, সেদিন আমি যোগ দেব।’‌

তাঁর দাবি, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর তৎপরতায় ভারতে যথেষ্ট উন্নতি হয়েছে সেটাই বিজেপিতে যোগ দেওয়ার মূল অনুপ্রেরণা। এই বিষয়ে হুগলির তৃণমূলের জেলা সভাপতি দিলীপ যাদব বলেন, ‘‌এটা ওঁনার মত। তবু আমি কথা বলে দেখব। আমরা তো কখনই চাই না কেউ আমাদের দল ছেড়ে চলে যাক। ও আমায় কী বলে দেখি।’‌

ছেলে তুষারের দাবি, বাবা রবীন্দ্রনাথ ভট্টাচার্য তৃণমূল কংগ্রেসে যথেষ্ট সম্মান পাননি। ২০১১ সালে ক্ষমতায় আসার পর রবীন্দ্রনাথ ভট্টাচার্যকে মন্ত্রী করা হয়েছিল। তবে বর্তমানে তাঁর বাবার সঙ্গে ঘাসফুল শিবিরের ‘দূরত্ব’ তৈরি হয়েছে। সেই অভিমান থেকে গেরুয়া শিবিরে যোগ দেওয়ার সিদ্ধান্ত বলেও জানান তুষার। রবীন্দ্রনাথ ভট্টাচার্যও কি তবে দলবদল করতে চলেছেন?‌ এই বিষয়ে তুষারের দাবি, তাঁর বাবার যথেষ্ট বয়স হয়েছে। তাই বাবা রাজনীতি থেকে সরে আসুন, তেমনটাই চান তিনি। তবে এই মুহূর্তে রাজনীতি থেকে সন্ন্যাস নেওয়ার কোনও সিদ্ধান্ত নেই সিঙ্গুরের বিধায়কের।

উল্লেখ্য, আগামী ২৫ জানুয়ারি হুগলিতে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের আসার কথা রয়েছে। তার আগেই সিঙ্গুরের মাস্টারমশাইয়ের ছেলের বিজেপিতে যাওয়া নিয়ে শোরগোল পড়ে গিয়েছে। সিঙ্গুরের মাস্টারমশাইয়ের সঙ্গে বেচারাম মান্নার মতবিরোধও প্রকাশ্যে আসে বারবার। একসময় দল ছাড়ার ইঙ্গিত তিনি নিজেই দিয়েছিলেন। কখনও অভিযোগ করেছিলেন, যেমন খুশি কমিটি বদল করে কাজের নেতাদের বাদ দেওয়া হচ্ছে। কখনও বলেছেন, তিনি ‘সম্মান’ পাচ্ছেন না। এবার তুষার ভট্টাচার্যের কথায় জোর চর্চা শুরু হয়েছে।

বন্ধ করুন