বাংলা নিউজ > ভোটের লড়াই > পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভা নির্বাচন 2021 > মহুয়ার উপর 'নজরদারি' সরকারের দুর্বলতা, মমতা সাহসের সঙ্গে লড়াই করছেন : শিবসেনা মুখপাত্র
মহুয়া মৈত্র এবং মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। (ফাইল ছবি, সৌজন্য ইনস্টাগ্রাম mahuamoitraofficial)
মহুয়া মৈত্র এবং মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। (ফাইল ছবি, সৌজন্য ইনস্টাগ্রাম mahuamoitraofficial)

মহুয়ার উপর 'নজরদারি' সরকারের দুর্বলতা, মমতা সাহসের সঙ্গে লড়াই করছেন : শিবসেনা মুখপাত্র

এবার সেই বিষয়টি নিয়ে নরেন্দ্র মোদী সরকারকে তুলোধনা করল শিবসেনা।

দিল্লিতে বাড়ির বাইরে বিএসএফ তাঁর উপর নজর রাখছে। কয়েকদিন আগে এই অভিযোগ করেছেন তৃণমূল কংগ্রেস সাংসদ মহুয়া মৈত্রের। এবার সেই বিষয়টি নরেন্দ্র মোদী সরকারকে তুলোধনা করল শিবসেনা। দলের মুখপত্র সামনা‌য় যে সম্পাদকীয় প্রকাশিত হয়েছে, তাতে লেখা হয়েছে এটা সরকারের একনায়কতন্ত্র এবং দুর্বলতাকে প্রকাশ করে। তাই এই ঘটনা ঘটেছে।

এই সম্পাদকীয়তে শুধু নরেন্দ্র মোদী সরকারকে তুলোধনা করেই ক্ষান্ত হয়নি সামনা‌, প্রশংসাও করেছে মহুয়া মৈত্রের। মোদী সরকার এক মহিলাকে ভয় পাচ্ছেন বলেও উল্লেখ করা হযেছে। সম্প্রতি দিল্লিতে তাঁর বাড়ির বাইরে মোতায়েন করা হয়েছে সশস্ত্র নিরাপত্তারক্ষী বলে দাবি করেছিলেন তৃণমূল কংগ্রেস সাংসদ মহুয়া মৈত্র৷ কৃষ্ণনগরের সাংসদের অভিযোগ, তাঁর উপরে নজরদারি চালানো হচ্ছে৷ দিল্লিতে তাঁর বাসভবনের বাইরে বিএসএফের তিনজন সশস্ত্র নিরাপত্তারক্ষী মোতায়েন করে রাখা হয়েছে৷ দিল্লির পুলিশ কমিশনারকে চিঠি দিয়ে অবিলম্বে এই নিরাপত্তারক্ষীদের প্রত্যাহার করার জন্য অনুরোধ করেছিলেন মহুয়া৷ টুইটারে সেই চিঠির ছবি পোস্টও করেছিলেন তিনি৷

এই বিষয়ে শিবসেনার সাংসদ তথা মুখপাত্র সঞ্জয় রাউত বলেন, ‘‌কেন্দ্র তৃতীয় চোখ রেখেছে মহুয়া মৈত্রের উপর। কারণ তিনি বিজেপির জারিজুরি ফাঁস করে দিয়েছিলেন সংসদে। গত ৮ ফেব্রুয়ারি সংসদে দাঁড়িয়ে তিনি বলেছেন, দেশ একটা অঘোষিত জরুরি অবস্থার মধ্যে দাঁড়িয়ে আছে।’‌ এছাড়া মুখপত্রে আরও লেখা হয়েছে, ‘‌রাজনীতিতে কী ধরনের সংস্কৃতি নিয়ে আসতে চলেছে বিজেপি?‌ যদি সরকার হুমকির পথ ধরে চলে তাহলে কেউ তাদের গ্রহণ করবে না। তখন তারা বুঝতে পারবে মানুষের রায়। আর যাঁরা সাহসের সঙ্গে লড়াই করছেন—মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, উদ্ধব ঠাকরে, শরদ পাওয়ার, বাদল, রাজেশ তিকাইত, তাঁদের উপর নজরদারি চালালে এই যুদ্ধ থেমে থাকবে না।’‌ এই পদক্ষেপ যে গোপনীয়তা ভঙ্গের মধ্যে পড়ে তাও উল্লেখ করা হয়েছে সম্পাদকীয়তে।

বন্ধ করুন