বাংলা নিউজ > ভোটযুদ্ধ ২০২১ > পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভা নির্বাচন 2021 > মক পোলের মধ্যেই ‘‌জয় শ্রীরাম’ থার্ড পোলিং অফিসারের, সরিয়ে দিল কমিশন
ছবিটি প্রতীকী (সৌজন্য নির্বাচন কমিশন)
ছবিটি প্রতীকী (সৌজন্য নির্বাচন কমিশন)

মক পোলের মধ্যেই ‘‌জয় শ্রীরাম’ থার্ড পোলিং অফিসারের, সরিয়ে দিল কমিশন

  • তৃণমূল প্রার্থী বলেন, ‘‌যদি ওঁর বিরুদ্ধে কোনও ব্যবস্থা না নেওয়া হয়, তাহলে আমি সমস্ত বুথে গিয়ে জয় বাংলা বলব।’

ভোট ষষ্ঠীর শুরুর আগেই ঘটল বিপত্তি। বুথে মক পোলিং চলছিল। তা শেষ হতেই খোদ থার্ড পোলিং অফিসার বলে বসলেন, ‘‌জয় শ্রীরাম’, সবকিছু ঠিকঠাক হয়ে গিয়েছে!‌’‌ ভোট প্রক্রিয়ার মধ্যে থার্ড পোলিং অফিসারের মুখে ‘‌জয় শ্রীরাম’‌ ধ্বনি নিয়ে চরম বিতর্কের সৃষ্টি হল পূর্বস্থলী দক্ষিণে। সেজন্য ওই থার্ড পোলিং অফিসারকে বুথ থেকে সরিয়ে দিয়েছে কমিশন। বৃহস্পতিবার সকালে পূর্বস্থলীর এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে রাতনৈতিক চাপানউতোর শুরু হয় ওই এলাকায়।

ঘটনার খবর পেয়ে ওই বুথ পরিদর্শনে যান বিদায়ী মন্ত্রী তথা পূর্বস্থলী দক্ষিণ বিধানসভা কেন্দ্রের তৃণমূল প্রার্থী স্বপন দেবনাথ। স্বপন বলেন, ‘‌যদি ওঁর বিরুদ্ধে কোনও ব্যবস্থা না—নেওয়া হয়, তাহলে আমি সমস্ত বুথে গিয়ে জয় বাংলা বলব।’‌

পালটা বিজেপি প্রার্থী রাজীবকুমার ভৌমিক বলেন, ‘‌জয় শ্রীরাম বলা তো কোনও অপরাধ নয়। এটা কোনও রাজনৈতিক স্লোগানও নয়। এতে ভোট প্রক্রিয়া প্রভাবিত হওয়ার কথাও নয়।’‌ স্বপন দেবনাথের প্রতিক্রিয়ায় প্রসঙ্গে বিজেপি প্রার্থীর মন্তব্য, ‘‌জয় বাংলা স্লোগান তো এ দেশের নয়। সেটা বাংলাদেশের স্লোগান। উনি সেই সংস্কৃতি এখানে প্রতিষ্ঠা করতে চাইলে, আমার কোনও আপত্তি নেই।’‌ ঘটনা প্রসঙ্গে বুথের প্রিসাইডিং অফিসার সুদীপ্ত সিনহা বলেন, ‘‌মক পোলিং চলাকালীন থার্ড পোলিং অফিসার জয় শ্রীরাম বলেছিলেন। সঙ্গে সঙ্গে ওঁকে সরিয়ে দেওয়া হয়।’‌

ভোট শুরু হওয়ার আগে এদিন পূর্বস্থলী ১ নম্বর দোলগোবিন্দপুর জিএসপিএ প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৩৫ নম্বর বুথে মক পোলিং চলছিল। সেই সময় হঠাৎই নির্বাচনের দায়িত্বে থাকা থার্ড পোলিং অফিসার ‘জয় শ্রীরাম’ স্লোগান দেন বলে অভিযোগ। ঘটনার পরই চাঞ্চল্য ছ‌ড়িয়ে পড়ে। জানা গিয়েছে, থার্ড পোলিং অফিসার সৌম্যজিৎ ভট্টাচার্য মকপোল শেষে বলেন, ‘‌জয় শ্রীরাম‌ সবকিছু ঠিকঠাক হয়ে গিয়েছে।’‌ এই কথা বলার পরই উপস্থিত তৃণমূলের বুথ এজেন্ট আপত্তি জানান। সঙ্গে সঙ্গে অভিযুক্ত ওই থার্ড পোলিং অফিসারকে সরিয়ে দেন নির্বাচন কমিশনের আধিকারিকরা।

বন্ধ করুন