বাংলা নিউজ > ভোটযুদ্ধ ২০২১ > পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভা নির্বাচন 2021 > কমিশন তৎপর হতেই কেন্দ্রীয় বাহিনী নিয়ে সুর খাদে নামালেন মমতা
ভোটপ্রচারে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।  (HT_PRINT)
ভোটপ্রচারে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।  (HT_PRINT)

কমিশন তৎপর হতেই কেন্দ্রীয় বাহিনী নিয়ে সুর খাদে নামালেন মমতা

  • বুধবার কোচবিহারে এক জনসভা থেকে মমতা বলেন, ‘সিআরপিএফ কোথাও গন্ডগোল করার চেষ্টা করলে মহিলারা ঘেরাও করবেন। তাই বলে সবাই মিলে ঘেরাও করে বসে থাকবেন না।

বুধবার কোচবিহারে CRPF নিয়ে তাঁর মন্তব্যের প্রেক্ষিতে রিপোর্ট তলব করেছে কমিশন। তার পর দিনই কেন্দ্রীয় বাহিনী নিয়ে সুর খাদে নামালেন তৃণমূলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বৃহস্পতিবার হুগলির বলাগড়ে মমতা বললেন, কেন্দ্রীয় বাহিনীর কোনও দোষ নেই। যত দোষ বিজেপির। 

বৃহস্পতিবার বলাগড়ে ছিল ভোটপ্রচারের শেষ দিন। সেদিন সভা করতে গিয়ে বুধবারের বক্তব্য থেকে ১৮০ ডিগ্রি ঘুরে গেলেন মমতা। এদিন তৃণমূলনেত্রী বলেন, ‘বিজেপির নির্দেশে কেন্দ্রীয় বাহিনীর জওয়ানরা অনেক কিছ করতে বাধ্য হচ্ছেন। ওদের কোনও দোষ নেই।’

বুধবার কোচবিহারে এক জনসভা থেকে মমতা বলেন, ‘সিআরপিএফ কোথাও গন্ডগোল করার চেষ্টা করলে মহিলারা ঘেরাও করবেন। তাই বলে সবাই মিলে ঘেরাও করে বসে থাকবেন না। ৫ জন ঘেরাও করবেন আর ৫ জন ভোট দিতে যাবেন। এটা বিজেপির চাল। সিআরপিএফকে ঘেরাও করতে গিয়ে যেন আপনারা ভোট না দিতে পারেন।’

মমতার এই বক্তব্যের সমালোচনায় একযোগে সরব হয় বিরোধী দলগুলি। বিজেপির তরফে কমিশনে অভিযোগ দায়ের করে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে ভোটপ্রচারে নিষিদ্ধ করার দাবি জানানো হয়। একই সঙ্গে তৃণমূল কংগ্রেসের রাজনৈতিক দলের স্বীকৃতিও বাতিল করার দাবি তোলে তারা। 

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মন্তব্যের বিরোধিতা করে সিপিএমও। সিপিএম নেতা রবীন দেব বলেন, ‘মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এখনো বিরোধী নেত্রীর মতো আচরণ করছেন। সংবিধানের শপথ নিয়ে এই ধরণের মন্তব্য করা যায় না। ওনার কোনও অভিযোগ থাকলে তা জানানোর সুনির্দিষ্ট পদ্ধতি রয়েছে।’

বিজেপির অভিযোগ পেয়ে বুধবার সন্ধ্যায় জেলা প্রশাসনের কাছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মন্তব্য সম্পর্কে রিপোর্ট তলব করে কমিশন। ওদিকে তারকেশ্বরে এক সভায় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে জাতি – ধর্মের ভিত্তিতে ভোট চাওয়ার অভিযোগে বুধবারই নোটিশ পাঠিয়েছে কমিশন। চার দিকে চাপের মুখে অবশেষে কেন্দ্রীয় বাহিনীর প্রতি আক্রমণের ঝাঁঝ কিছুটা কমালেন তৃণমূলনেত্রী।

 

বন্ধ করুন