বাংলা নিউজ > ভোটযুদ্ধ ২০২১ > পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভা নির্বাচন 2021 > ওয়েবকাস্টিং বন্ধ ছিল শীতলকুচির বুথে, ছবি উদ্ধারে কমিশনের ভরসা এখন ক্যামেরার চিপ
Cooch Behar: Security personnel keep vigil at a polling station after Election Commission ordered of stopping the voting exercise at polling station number 126 in Sitalkuchi, where clashes erupted between locals and central forces, at Sitalkuchi in Cooch Behar district, Saturday, April 10, 2021. (PTI Photo)(PTI04_10_2021_000173B) (PTI)
Cooch Behar: Security personnel keep vigil at a polling station after Election Commission ordered of stopping the voting exercise at polling station number 126 in Sitalkuchi, where clashes erupted between locals and central forces, at Sitalkuchi in Cooch Behar district, Saturday, April 10, 2021. (PTI Photo)(PTI04_10_2021_000173B) (PTI)

ওয়েবকাস্টিং বন্ধ ছিল শীতলকুচির বুথে, ছবি উদ্ধারে কমিশনের ভরসা এখন ক্যামেরার চিপ

  • সেদিন জোড়পাটকির আমতলি বুথে কী হয়েছে জানতে খোঁজ পড়ে ফুটেজের। ঘটনার পর ৭২ ঘণ্টা কাটলেও কমিশনের তরফে কোনও ফুটেজ প্রকাশ করা হয়নি। কমিশন সূত্রের খবর, স্পর্শকাতর ওই বুথে ওয়েব কাস্টিংয়ের ব্যবস্থা ছিল। কিন্তু প্রযুক্তিগত কারণে তা সেদিন চালু হয়নি।

শীতলকুচিতে কেন্দ্রীয় বাহিনীর গুলিচালনার পর বিতর্কে রাজ্য রাজনীতি উত্তপ্ত হয়ে উঠলেও এখনও পর্যন্ত ঘটনার কোনও ছবি প্রকাশ করতে পারেনি কমিশন। কী পরিস্থিতিতে বাহিনীকে গুলি চালাতে হয়েছিল তা নিয়ে প্রশ্ন তুলে সরব হয়েছে তৃণমূল-সহ বেশ কয়েকটি দল। এরই মধ্যে কমিশন সূত্রের খবর, শীতলকুচির ১২৬ নম্বর বুথে শনিবার বন্ধ ছিল ওয়েবকাস্টিং। যার ফলে কমিশনের কাছে সরাসরি জমা পড়েনি কোনও ছবি। 

শনিবার শীতলকুচির জোড়পাটকিতে ১২৬ নম্বর বুথে কেন্দ্রীয় বাহিনীর গুলিতে মৃত্যু হয় ৪ জনের। বাহিনীর তরফে জানানো হয়েছে, আত্মরক্ষার্থেই গুলি চালিয়েছে তারা। স্থানীয়রা জওয়ানদের আগ্নেয়াস্ত্র ছিনিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করলে গুলি চালাতে বাধ্য হয় তারা। কিন্তু তৃণমূলের দাবি, বিনা প্ররোচনায় সেখানে গুলি চালিয়েছে বাহিনী। 

সেদিন জোড়পাটকির আমতলি বুথে কী হয়েছে জানতে খোঁজ পড়ে ফুটেজের। ঘটনার পর ৭২ ঘণ্টা কাটলেও কমিশনের তরফে কোনও ফুটেজ প্রকাশ করা হয়নি। কমিশন সূত্রের খবর, স্পর্শকাতর ওই বুথে ওয়েব কাস্টিংয়ের ব্যবস্থা ছিল। কিন্তু প্রযুক্তিগত কারণে তা সেদিন চালু হয়নি। ফলে ঘটনার যাবতীয় ফুটেজ করেছে ক্যামেরার চিপে। সেই চিপ থেকে ছবি উদ্ধারের চেষ্টা চালাচ্ছে কমিশন। 

ওই দিন গুলিচালনার কিছুক্ষণ পরেই বুথে ভোটগ্রহণ বন্ধ হয়ে যায়। সেখানে ভোটগ্রহণ স্থগিত ঘোষণা করে কমিশন। সেখানে কবে ফের ভোটগ্রহণ হবে তাও এখনো জানায়নি কমিশন। ফুটেজ হাতে এলে কমিশন এব্যাপারে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে। 

তবে বিশেষজ্ঞদের মতে ক্যামেরার ফুটেজ দেখে সেদিনের গোটা পরিস্থিতির আঁচ পাওয়া মুশকিল। কারণ, ওয়েবকাস্টিংয়ের ব্যবস্থা থাকে শুধু বুথের ভিতরে। বাইরে কী ঘটছে তা রেকর্ড করার কোনও ব্যবস্থা থাকে না। ফলে শুধুমাত্র বুথের ভিতরের ছবি দেখে পরিস্থিতির আঁচ পাওয়া মুশকিল।

 

বন্ধ করুন