বাড়ি > বায়োস্কোপ > ‘যদি তুই দেখতিস তোর ন্যায়বিচারের জন্য তোর ফ্যানেরা দুনিয়া ওলোট পালোট করে দিচ্ছে’: অভিষেক কাপুর
তিন বছর আগে আজকের দিনেই শুরু হয়েছিল কেদারনাথের শ্যুটিং 
তিন বছর আগে আজকের দিনেই শুরু হয়েছিল কেদারনাথের শ্যুটিং 

‘যদি তুই দেখতিস তোর ন্যায়বিচারের জন্য তোর ফ্যানেরা দুনিয়া ওলোট পালোট করে দিচ্ছে’: অভিষেক কাপুর

  • তিন বছর আগে আজকের দিনেই শুরু হয়েছিল কেদারনাথের শ্যুটিং। সুশান্তের স্মৃতিতে ডুক দিলেন ছবির পরিচালক অভিষেক কাপুর।

প্রয়াত অভিনেতা সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যু নিয়ে চলতে থাকা চাপান-উতোরের মধ্যেই কেদারনাথ ছবির সেটের স্মৃতি রোমন্থন করে হৃদয় ছুঁয়ে যাওয়া একটি ভিডিও শেয়ার করলেন পরিচালক অভিষেক কপুর । কারণ তিন বছর আগে আজকের দিনে অর্থাত্ ১১ সেপ্টেম্বর শুরু হয়েছিল কেদারনাথ ছবির শ্যুটিং।  ২০১৩ সালে অভিষেকের পরিচালনায় কাই পো চে ছবির সঙ্গে রুপোলি সফর শুরু করেছিলেন সুশান্ত । সেই থেকেই দুজনের মধ্যে গড়ে ওঠা প্রগাঢ় বন্ধুত্বের সম্পর্ক, স্থায়ী ছিল অভিনেতার জীবনের শেষ দিন পর্যন্ত । 

এই ছবিতে সুশান্তের নায়িকা ছিলেন সারা আলি খান। যাঁর সঙ্গে সুশান্তের সম্পর্ক নিয়ে সম্প্রতি কম চর্চা হয়নি। প্রয়াত অভিনেতার সঙ্গে কেদারনাথের শুটিংয়ের একাধিক মুহূর্তকে মন্তাজ আকারে এই ভিডিওতে তুলে ধরেছেন তিনি । চিরতরে হারিয়ে যাওয়া বন্ধুর স্মৃতিতে লিখেছেন, ‘ যদি তুই জানতে পারতিস তোর অনুরাগীরা তোকে কতটা ভালোবাসে....... , যদি কিছু বিষাক্ত মন তোকে এটা বিশ্বাস না করাত যে তোকে কেউ ভালোবাসে না।যদি তুই দেখতিস তোর ফ্যানেরা তোর ন্যায়বিচারের জন্য কত লড়াই করছে ......কিন্তু কিভাবে দেশের মানুষ তোমার জন্য আজ হাতে হাত রেখে লড়াইতে নেমেছে ....... তারা তোর জন্য রীতিমতো দুনিয়া ওলোট পালোট করে দিয়েছে, শুধু তোর জন্য। আর যদি আমি যেন স্পষ্ট শুনতে পাচ্ছি তুই বলছিস ....ছাড়ুন না স্যার ...আমার কাজ আমার হয়ে কথা বলবে’।

আশ্চার্যজনকভাবে সুশান্তের স্মরণে লেখা এই পোস্টে সারা আলি খানকে এড়িয়ে গিয়েছেন অভিষেক কাপুর। প্রযোজক সংস্থা, সহকারী প্রযোজক প্রজ্ঞা কাপুর, মিউজিক পরিচালক অমিত ত্রিবেদী, গীতিকার অমিতাভ ভট্টাচার্যকে নিজের পোস্টে ট্যাগ করলেও সারাকে ট্যাগ করেননি সুশান্তের গাট্টু স্যার। সর্তকভাবে নাকি অজান্তেই সারাকে এই পোস্ট থেকে দূরে রাখলেন অভিষেক তা জানা নেই।

পূর্বে সোমা চৌধুরীর এক ইন্টারভিউতে অভিষেক জানিয়েছিলেন সুশান্তের মতো প্রতিভাকে কিভাবে ইন্ডাস্ট্রি চিনতে না পেরে নষ্ট করেছে । তিনি জানান সুশান্ত অভিনেতা ছাড়াও একজন মেধাবী ইঞ্জিনিয়ার ছিলেন । কোয়ান্টাম ফিজিক্স , অস্ট্রোফিজিক্স নিয়ে পড়াশোনা করেছেন তিনি । কিন্তু শুধু মাত্র প্রচলিত চিরাচরিত বাক্সে বন্দি করা গেলো না বলে তাঁকে বাতিল করে দেওয়া হল । এই অবসাদ থেকেই একজন অভিনেতা নিজেকে ধীরে ধীরে গুটিয়ে নেন । তিনি উঠতি অভিনেতাদের সাবধান করেন কিন্তু গ্ল্যামার আলোর তীব্রতায় তাঁরা তখন তা দেখতে পান না । ধীরে ধীরে একসময় তাঁরাও হারিয়ে যান অন্তরালে ' ।

বন্ধ করুন