বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > 83: ভিভ রিচার্ডসের বিরুদ্ধে বদলা চাই, কপিলের কাছে কাকুতি মিনতি করেছিলেন মদন লাল!
৮৩ ছবিতে কপিল দেব এবং মদন লাল-এর ভূমিকায় যথাক্রমে রণবীর সিং (বাঁ দিকে) এবং হার্ডি সান্ধু।
৮৩ ছবিতে কপিল দেব এবং মদন লাল-এর ভূমিকায় যথাক্রমে রণবীর সিং (বাঁ দিকে) এবং হার্ডি সান্ধু।

83: ভিভ রিচার্ডসের বিরুদ্ধে বদলা চাই, কপিলের কাছে কাকুতি মিনতি করেছিলেন মদন লাল!

  • ১৯৮৩ সালে ক্রিকেট বিশ্বকাপের ফাইনালে ওয়েস্ট ইন্ডিজের মতো শক্তিশালী একটা দলকে কীভাবে নাস্তানাবুদ করতে পেরেছিল ভারতীয় ক্রিকেটাররা, তারই এক একটি কিসসা এবার প্রকাশ্যে ফাঁস করছেন কপিল দেব, মদন লালরা।

আর মাত্র কয়েকদিন। তারপরেই বড়পর্দায় আছড়ে পড়তে চলেছে '৮৩'। ভারতের প্রথম ক্রিকেট বিশ্বকাপজয়ের যাত্রার খুঁটিনাটি, অজানা সব রোমহর্ষক ঘটনা নিয়ে তৈরি এই ছবি দেখার জন্য আগ্রহের পারদ ভালোমতোই চড়েছে দর্শকদের মধ্যে। ইতিমধ্যেই ছবির ট্রেলার হিট। ব্যাপকভাবে সাড়া পেয়েছে নেটপাড়াতেও। ১৯৮৩ সালে লর্ডসে ক্রিকেট বিশ্বকাপের ফাইনালে কীভাবে ওয়েস্ট ইন্ডিজ-কে হারিয়ে সেরার শিরোপা জিতে নিয়েছিল ভারত সেই ঘটনার প্রতিটি মুহূর্ত এই ছবিতে ফুটিয়ে তোলা হয়েছে। 

সম্প্রতি, '৮৩' ছবির পেজ থেকেই নেটপাড়ায় একটি টিজারের ভিডিয়ো শেয়ার করা হয়েছে। সেখানে দেখা যাচ্ছে লর্ডসে ফাইনালে সেদিন কীভাবে বিশ্ববিখ্যাত ব্যাটসম্যান তথা ওয়েস্ট ইন্ডিজের স্যার ভিভিয়ান রিচার্ডসের বিরুদ্ধে ‘বদলা’ নিয়েছিলেন ভারতের বিশ্বকাপজয়ী দলের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ বোলার মদন লাল! কীভাবে? সেই গল্পই এবার শেয়ার করলেন মদন লাল স্বয়ং। পাশাপাশি এই ছবিতে সেই ঘটনা যে রিক্রিয়েট করা হয়েছে তারও ঝলক দেখা গেল সেই ভিডিয়োতে। কপিল ও মদন লালের ভূমিকায় যথাক্রমে দেখা গেল রণবীর সিং এবং হার্ডি সান্ধু।

কিছুদিন আগে '৮৩' ছবির একটি প্রোমোশনাল ইভেন্টের আয়োজন করা হয়েছিল। সেখানে 'কিং ভিভ' এর বিরুদ্ধে সেই বদলার প্রসঙ্গ উঠল। কপিল জানালেন সেই ফাইনালের দিন মদন লালের করা বোলিং এক ওভারে ছিঁড়ে খেয়েছিলেন ভিভ। তবে নাকানি চোবানি খেয়েও হার মানেননি মদন লাল। ভিতরে যে জ্বলছিল প্রতিহিংসার আগুন। তাই তো আরও একটা স্পেল করার অদম্য ইচ্ছে চাগাড় দিয়েছিল তাঁর মনের মধ্যে। তবে ইচ্ছে হলেই তো হবে না, তার জন্য প্রয়োজন স্কিপার কপিল দেবের অনুমতি প্রয়োজন ছিল। ওদিকে কপিলও দিতে চাইছেন না। 

শেষপর্যন্ত কাকুতি মিনতি করে মদন বলে ছিলেন “ কপিল পা, আমাকে আর একটা ওভার বল করতে দাও। ভিভকে আমি আগেও আউট করেছি। আবারও করব।" যদিও কপিলের মন চাইছিল না মদনের হাতে আরও এক ওভারের জন্য বল তুলে দিতে। তবে শেষপর্যন্ত তাঁকে আরও একটা ওভার বল করার অনুমতি দেন তিনি। কথা রেখেছিলেন ১৯৮৩ সালের বিশ্বকাপে অন্যতম সফল বোলার। মদনের সেই ওভারেই আউট হন 'কিং ভিভ'। আর তাঁর সেই ক্যাচ ধরেছিলেন কপিল দেব স্বয়ং। আগামী ২৪ ডিসেম্বর হিন্দি, তামিল, তেলুগু, কন্নড় এবং মালয়ালম ভাষায় মুক্তি ‘৮৩’।

আর মাত্র কয়েকদিন। তারপরেই বড়পর্দায় আছড়ে পড়তে চলেছে '৮৩'। ভারতের প্রথম ক্রিকেট বিশ্বকাপজয়ের যাত্রার খুঁটিনাটি, অজানা সব রোমহর্ষক ঘটনা নিয়ে তৈরি এই ছবি দেখার জন্য আগ্রহের পারদ ভালোমতোই চড়েছে দর্শকদের মধ্যে। ইতিমধ্যেই ছবির ট্রেলার হিট। ব্যাপকভাবে সাড়া পেয়েছে নেটপাড়াতেও। ১৯৮৩ সালে লর্ডসে ক্রিকেট বিশ্বকাপের ফাইনালে কীভাবে ওয়েস্ট ইন্ডিজ-কে হারিয়ে সেরার শিরোপা জিতে নিয়েছিল ভারত সেই ঘটনার প্রতিটি মুহূর্ত এই ছবিতে ফুটিয়ে তোলা হয়েছে। ওয়েস্ট ইন্ডিজের মতো শক্তিশালী একটা দলকে কীভাবে নাস্তানাবুদ করতে পেরেছিল ভারতীয় ক্রিকেটাররা, তারই এক একটি কিসসা এবার প্রকাশ্যে ফাঁস করছেন কপিল দেব, মদন লালরা।

সম্প্রতি, '৮৩' ছবির পেজ থেকেই নেটপাড়ায় একটি ভিডিয়ো শেয়ার করা হয়েছে। সেখানে দেখা যাচ্ছে লর্ডসে ফাইনালে সেদিন কীভাবে বিশ্ববিখ্যাত ব্যাটসম্যান তথা ওয়েস্ট ইন্ডিজের স্যার ভিভিয়ান রিচার্ডসের বিরুদ্ধে ‘বদলা’ নিয়েছিলেন ভারতের বিশ্বকাপজয়ী দলের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ বোলার মদন লাল! কীভাবে? সেই গল্পই এবার শেয়ার করলেন মদন লাল স্বয়ং। পাশাপাশি এই ছবিতে সেই ঘটনা যে রিক্রিয়েট করা হয়েছে তারও ঝলক দেখা গেল সেই ভিডিয়োতে। কপিল ও মদন লালের ভূমিকায় যথাক্রমে দেখা গেল রণবীর সিং এবং হার্ডি সান্ধু।

কিছুদিন আগে '৮৩' ছবির একটি প্রোমোশনাল ইভেন্টের আয়োজন করা হয়েছিল। সেখানে 'কিং ভিভ' এর বিরুদ্ধে সেই বদলার প্রসঙ্গ উঠল। কপিল জানালেন সেই ফাইনালের দিন মদন লালের করা বোলিং এক ওভারে ছিঁড়ে খেয়েছিলেন ভিভ। তবে নাকানি চোবানি খেয়েও হার মানেননি মদন লাল। ভিতরে যে জ্বলছিল প্রতিহিংসার আগুন। তাই তো আরও একটা স্পেল করার অদম্য ইচ্ছে চাগাড় দিয়েছিল তাঁর মনের মধ্যে। তবে ইচ্ছে হলেই তো হবে না, তার জন্য প্রয়োজন স্কিপার কপিল দেবের অনুমতি প্রয়োজন ছিল। ওদিকে কপিলও দিতে চাইছেন না। শেষপর্যন্ত কাকুতি মিনতি করে মদন বলে ছিলেন “ কপিল পা, আমাকে আর একটা ওভার বল করতে দাও। ভিভকে আমি আগেও আউট করেছি। আবারও করব।" যদিও কপিলের মন চাইছিল না মদনের হাতে আরও এক ওভারের জন্য বল তুলে দিতে। তবে শেষপর্যন্ত তাঁকে আরও একটা ওভার বল করার অনুমতি দেন তিনি। কথা রেখেছিলেন ১৯৮৩ সালের বিশ্বকাপে অন্যতম সফল বোলার। মদনের সেই ওভারেই আউট হন 'কিং ভিভ'। আর তাঁর সেই ক্যাচ ধরেছিলেন কপিল দেব স্বয়ং। আগামী ২৪ ডিসেম্বর হিন্দি, তামিল, তেলুগু, কন্নড় এবং মালয়ালম ভাষায় মুক্তি ‘৮৩’।

|#+|

 

বন্ধ করুন