বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > বুদ্ধিমান পুরুষ বিশ্ব সুন্দরীদের ভালোবাসে না, হর্ষ গোয়েঙ্কার দাবি ওড়ালেন অভিষেক
ঐশ্বর্য-অভিষেক (ছবি-ইনস্টাগ্রাম)
ঐশ্বর্য-অভিষেক (ছবি-ইনস্টাগ্রাম)

বুদ্ধিমান পুরুষ বিশ্ব সুন্দরীদের ভালোবাসে না, হর্ষ গোয়েঙ্কার দাবি ওড়ালেন অভিষেক

  • নিজের উদাহরণ টেনে অভিষেক মনে করালেন ‘বুদ্ধিমান’ পুরুষ অবশ্যই বিশ্বের সেরা সুন্দরীর প্রেমে পড়তে পারে। 

বিশ্বের অন্যতম সেরা সুন্দরীকে বিয়ে করেছেন অভিষেক বচ্চন, এই নিয়ে কোনও দ্বিমত থাকতেই পারেনা। ঐশ্বর্য রাইয়ের মাথায় বিশ্ব সুন্দরীর তাজ রয়েছে বলেই শুধু নয়, অ্যাশের রূপের জাদুতে দশকের পর দশক ধরে কাহিল হয়েছে গোটা দুনিয়া। বলিউড পেরিয়ে হলিউডেও চর্চা হয় ঐশ্বর্যর সৌন্দর্যের। নীল নয়না সুন্দরী রূপ এবং অভিনয়ের জাদুতে তো সকলেই মুগ্ধ তবে এর বাইরে  ঐশ্বর্য একজন দায়িত্বশীল মা এবং আদর্শ স্ত্রী। দেখতে দেখতে দাম্পত্য জীবনের ১৩ বছর পার করে ফেলেছেন অভিষেক-ঐশ্বর্য। তাই অভিষেক কখনই এই কথা মানতে পারবেন না ‘বুদ্ধিমান পুরুষেরা বিশ্ব সুন্দরীদের ভালোবাসে না’।

হ্যাঁ, সম্প্রতি নিজের উদাহরণ টেনে বিজনেস টাইকুন হর্ষ গোয়েঙ্কার এই দাবি নস্যাত্ করেছেন অভিষেক। এই বিলিয়নিয়ার সম্প্রতি টুইটারে দাবি করেন ‘বুদ্ধিমান পুরুষরা বিশ্ব সুন্দরীদের ভালোবাসে না, বরং তাঁরা সেই মহিলাকে ভালোবাসে যাঁরা তাঁদের দুনিয়াটা সবচেয়ে সুন্দর বানায়’।

এই টুইট দেখা মাত্র জবাবে অভিষেক লেখেন- ‘আহেম’, সঙ্গে হাত তোলা অবস্থার একটি ইমোজি পোস্ট করেন  অর্থাত্ গলা খাকারির শব্দ করে জুনিয়ার বি আরপিজি গ্রুপের চেয়ারম্যানকে বোঝাতে চান তিনি এই তালিকায় রয়েছেন। যিনি বুদ্ধিমান হয়েও বিশ্ব সুন্দরীকে ভালোবাসেন। 

অভিষেকের উত্তর নজর এড়ায়নি হর্ষ গোয়েঙ্কার তিনি নিজের দাবি থেকে না সরে এলেও বলেন-'হুম তুমি সেই সৌভাগ্যবান পুরুষ যাঁর কপালে দুটোই রয়েছে'।

এই কথায় সম্মতি প্রকাশ করেন অভিনেতা রোহিত রায়ও।

২০০৭ সালের ২০ এপ্রিল সাত পাকে বাঁধা পড়েছিলেন অভিষেক বচ্চন ও ঐশ্বর্য রাই। দেখতে দেখতে একসঙ্গে পথচলার ১৩ বছর অতিক্রান্ত। তবুও নীল নয়নার রূপের জাদুতে মুগ্ধ বচ্চন পুত্র। স্ত্রীর তারিফের কোনও সুযোগ হাতছাড়া করেন না অভিষেক। বরং খুঁজে নেন নিত্য নতুন বাহানা।

হিন্দুস্তান টাইমসে দেওয়া এক সাক্ষাত্কারে অভিষেক জানিয়েছিলেন- ‘ আমরা সবাই অ্যাশের কথা শুনেছি-আমিও ব্যতিক্রম নই। অভিনয়ে আসার আগেই ওর সম্পর্কে অনেক কথা শুনতাম। কোনও স্বর্গীয় অপ্সরার মতো দেখতে ঐশ্বর্যকে-এই কথাটা আমি শুরু থেকে শুনতাম। অনেকে হয়ত ভাবে ও মেঘের উপর ভেসে বেড়ায়-এমন কিছু একটা হবে। তবে বাস্তবটা একদম আলাদা। ও ভীষণ মাটির মানুষ. যাকে খুব সহজকেই আপনি মনের কথা বলতে পারেন। তখন আপনার মনে হবে- ‘আচ্ছা ও তো দারুণ কুল’।

বাস্তব জীবনের পাশাপাশি রুপোলি পর্দাতেও একাধিকবার জুটি বেঁধেছেন ঐশ্বর্য-অভিষেক। ২০০০ সালে 'ধাই অক্ষয় প্রেম কে' ছবি থেকেই শুরু এই জুটির সফরনামা। শোনা যায় ২০০৬ সালে উমরাওজান ছবির শ্যুটিংয়ের সময় থেকেই নাকি অভিষেক, ঐশ্বর্যর প্রেমে পড়েছিলেন। শেষ বার মণিরত্নমের রাবণ (২০১০) ছবিতে একসঙ্গে দেখা গিয়েছে এই রিয়েল লাইফ কপলকে। এক দশকের বেশি সময় ধরে সিলভার স্ক্রিন বঞ্চিত থেকেছে এই জুটির ম্যাজিক থেকে, শীঘ্রই এই আশা পূরণ হবে-এটাই প্রার্থনা অনুরাগীদের।

বন্ধ করুন