বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > 'আমি মিচকে শয়তান হতে পারি, কিন্তু তোর মতো ধান্দাবাজ নই' রুদ্রনীলকে তোপ ভাস্করের
ভাস্কর চট্টোপাধ্যায়-রুদ্রনীল ঘোষ (ছবি ফেসবুক)
ভাস্কর চট্টোপাধ্যায়-রুদ্রনীল ঘোষ (ছবি ফেসবুক)

'আমি মিচকে শয়তান হতে পারি, কিন্তু তোর মতো ধান্দাবাজ নই' রুদ্রনীলকে তোপ ভাস্করের

  • ১৪ বছর আগে ঠিক কী ঘটেছিল ভাস্বরের সঙ্গে?

সামাজিক মাধ্যমে অভিনেতা তথা বিজেপি নেতা রুদ্রনীলের ওপর একরাশ ক্ষোভ উগড়ে দিলেন অভিনেতা ভাস্কর চট্টোপাধ্যায়। সোমবার দুপুরে ফেসবুক পোস্টে নাম তুলে রুদ্রনীলকে নিশানা করে ভাস্কর লেখেন, ‘২০০৭ সালে তুই সংবাদমাধ্যমে সাক্ষাৎকার দিয়ে বলেছিলি আমি মিচকে শয়তান। হতে পারে তোর চোখে আমি তাই কিন্তু আমি এতদিন একটা কথাও মিডিয়াতে তোর বিরুদ্ধে বলিনি। আমি আজ বলি, আমি আর যাই হই তোর মতো ধান্দাবাজ নই। তুই তো বড় মাপের অভিনেতা, কিন্তু জানিস তো অভিনেতা হোস বা নেতা আগে ভাল মানুষ হতে হয়। নাহলে লোকের মনোরঞ্জন বা মানুষের জন্য কাজ করবি কি করে? তুই হেরে গিয়ে একদিকে তোর জন্য মঙ্গল হয়েছে... আত্মপলব্ধি কর। ভাল মানুষ হয়ে ওঠ... দেখবি নিজেকেই নিজের ভাল লাগবে। তাড়াতাড়ি সুস্থ হয়ে ওঠ প্রিয়’।

প্রসঙ্গত, ১৪ বছর আগে দেবাংশু সেনগুপ্তের পরিচালনায় একটি টেলিফিল্ম রুদ্রনীলের সঙ্গে কাজ করেছিলেন অভিনেতা। সংবাদ মাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে ভাস্করের কটাক্ষ, ‘আমার সঙ্গে মাত্র একটি কাজ করেই রুদ্রনীল বুঝে গিয়েছিলেন আমি মিচকে শয়তান। সে কথা তিনি সংবামাধ্যমে ঢেঁড়া পিটিয়ে জানিয়েওছেন।’ সেই সময় যেমন অভিনেতা বিষয়টি নিয়ে নাড়াচাড়া করেননি। একুশে বিজেপি প্রার্থী হিসেবে রুদ্রনীলের পরাজয়ের পরই মুখ খোলেন ভাস্কর।

উল্লেখ্য, রবিবার একুশের বিধানসভার ফলাফল ঘোষণা হতেই সামাজিক মাধ্যমে নজরে আসছে একের পর এক পক্ষে-বিপক্ষে পোস্ট। যদিও একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে সরকার গড়তে চলেছে তৃণমূল। শাসক দলের জয়ের পর থেকে সেলেবকুলও নানা পোস্টের মাধ্যমে নজর কেড়েছেন। বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের ‘শিল্পীদের রগড়ে দেওয়া’ প্রসঙ্গ তুলে কটাক্ষ করতে দেখা যায় স্বস্তিকা, পরমব্রত, দেবলীনা কুমাকে। বাদ যাননি অন্যান্য তারকারাও।

অভিনেতা  ভাস্বর চট্টোপাধ্যায়তো গোটা একটা কবিতা লিখে ফেলেছেন। দিলীপ ঘোষকে ‘জেঠু’ তকমা দিয়ে তিনি লেখেন, ‘দিলীপ জেঠু, দিলীপ জেঠু তোমার বাড়ি যাব…দিলীপ জেঠু তুমি কি আর আমাদের কথা ভাব?’ তিনি আরো লিখেছেন, “… ভ্যানে বসে প্রচার করেছ এসি’র হাওয়া তলে, ভেবেছিলে বাংলা তুমি নেবে এক আঙুলে তুলে…আমি যে এক ভোটার ওগো আমি যে এক শিল্পী, বলেছিলেন রগড়ে মোদের বানিয়ে দেবেন কুলফি.... রাতে এখন ঘুমতে যাই অপার শান্তিতে, তোমার দেখা আর পাবোনা এই বাংলার জমিতে’।

যদিও ভাস্করের এই পোস্ট মনে ধরেছে ইন্ডাস্ট্রির তাঁর বহু সহকর্মীদের। অনেকেই সেই পোস্টে কমেন্টও করেছেন। ইতিমধ্যে সামাজিক মাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে সেই পোস্ট। 

টলি ইন্ডাস্ট্রিতে কবিতার ট্রেন্ড শুরু হয়েছে গত বছর লকডাউন থেকে। কবিতা ট্রেন্ড অবশ্য প্রথম শুরু করেন অভিনেতা তথা বিজেপি নেতা রুদ্রনীল ঘোষ। একুশের বিধনসভা নির্বাচনে ভবানীপুর কেন্দ্র থেকে বিজেপির হয়ে দাঁড়িয়েছিলেন তিনি। তবে পরাজয় হয় তাঁর। এক সংবাদ মাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে ভাস্করের এই কবিতা সম্পর্কে প্রশ্ন করা হলে রুদ্রনীলসের সাফ উত্তর, নির্বাচনে এগুলো তরতাজা বিষয়। ছিল আছে থাকবে। বিরোধীপক্ষের এই ধরণের মজার লেখা পড়তে তাঁর ভাল লাগে। ফলাফলে দিলীপ ঘোষ জিতলে এই ধরণের কবিতা তখন অন্যদের নিয়ে লিখতেন অনেকে। 

বন্ধ করুন