বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > দেশ ছাড়তে দেওয়া হল না জ্যাকলিনকে, নায়িকার নামে ইডির লুক আউট নোটিশ জারি
জ্যাকলিন ফার্নান্ডেজ। (ছবি সৌজন্যে - টুইটার)

দেশ ছাড়তে দেওয়া হল না জ্যাকলিনকে, নায়িকার নামে ইডির লুক আউট নোটিশ জারি

  • নায়িকার চর্চিত প্রেমিক সুকেশ চন্দ্রশেখরের বিরুদ্ধে রয়েছে ২০০ কোটি টাকার প্রতারণার অভিযোগ। ক্রমেই অস্বস্তি বাড়ছে জ্যাকলিনের।  

আর্থিক তছরুপের মামলায় আগেই নাম জড়িয়েছে বলিউড অভিনেত্রী জ্যাকলিন ফার্নান্দেজের। এবার মুম্বই বিমানবন্দরে আটকে দেওয়া হল অভিনেত্রীকে। এনটিভি-র প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়ছে বিদেশ যাওয়ার পথে বাধা দেওয়া হয় জ্যাকনিনকে। কারণ নায়িকার নামে ইডি (এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট)-র তরফে লুক আউট নোটিস জারি হয়েছে।  জানা গেছে, একটি অনুষ্ঠানে পারফর্ম করার জন্যেই দুবাইয়ের উদ্দেশ্যে রওনা দিয়েছিলেন এই বলি-সুন্দরী। ইডি সূত্রের খবর, অভিনেত্রীকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নাকি এবার সরাসরি দিল্লি উড়িয়ে আনা হবে।

উল্লেখ্য, ২০০ কোটি টাকার প্রতারণার মামলায় অভিযুক্ত সুকেশ চন্দ্রশেখরের সঙ্গে জড়িয়েছে জ্যাকলিনের নাম। এর জেরে গত ৩০ অগস্ট ইডির দফতরে প্রায় ৫ ঘণ্টার ম্যারাথন জেরা চলেছিল তাঁকে নিয়ে। এরপর বেশ কয়েকবার কাজের অভিযোগে ইডির সমন এড়িয়ে গিয়েছেন নায়িকা। জানা গিয়েছে, ইডি-র চার্জশিটে উল্লেখ রয়েছে সুকেশ চন্দ্রশেখর নিজের মুখে কবুল করেছেন অভিনেত্রী জ্যাকলিন ফার্নান্ডেজকে ৫২ লক্ষ টাকা মূল্যের একটি ঘোড়া উপহার দিয়েছিলেন সুকেশ, এখানেই শেষ নয় বিড়ালপ্রেমী জ্যাকলিনের মন জিতকে নায়িকাকে একটি ৯ লাখ টাকার বিড়ালও কিনে দেন সুকেশ। ইতিমধ্যেই সোশ্যাল মিডিয়ায় এই প্রতারক ব্যবসায়ীর সঙ্গে জ্যাকলিনের অন্তরঙ্গ মুহূর্তের একাধিক ছবি ফাঁস হয়েছে। একটি ছবিতে বাথরুমের ভিতর আয়নার সামনে দাঁড়িয়ে সুকেশের গালে চুমু খেতে দেখা গিয়েছে জ্যাকলিনকে।

অভিযুক্ত সুকেশের আইনজীবী অনন্ত মালিক আগেই দাবি করেছেন, জ্যাকলিনের সঙ্গে প্রেম সম্পর্ক ছিল বিবাহিত ব্যবসায়ী সুকেশের। যদিও জ্যাকলিনের মুখপাত্র পালটা বিবৃতি দিয়ে জানান, ‘তদন্তকারীদের সঙ্গে সবরকম সহযোগিতা করছেন জ্যাকলিন, উনি এই মামলার অভিযুক্ত নন। ওনাকে সাক্ষী দেওয়ার জন্য ডাকা হয়েছে। জ্যাকলিনের সঙ্গে অভিযুক্তের ব্যক্তিগত সম্পর্কের খবর ভুয়ো ও ভিত্তিহীন’। কিন্তু জ্যাকলিনের দাবি কার্যত মিথ্যা প্রমাণ করে দিয়েছে এইসব ছবি। এই ছবিগুলি চলতি বছর এপ্রিল থেকে জুন মাসের মধ্যেকার, বলছে ইন্ডিয়া টুডে-তে প্রকাশিত এক রিপোর্ট।

সূত্রের খবর, প্রায় ১০০ জনেরও বেশি মানুষকে ঠকিয়ে তাঁদের থেকে কোটি কোটি টাকা তুলেছে চন্দ্রশেখর ওরফে বালাজি। সুকেশ এবং স্ত্রী লীনা পালও এর আগে ২০১১ সালে এক ব্যাঙ্ক জালিয়াতির মামলার অভিযুক্ত। গ্রেফতারও হয়েছিলে তারা, পরে জামিনে ছাড়া পায়। কিন্তু তা সত্ত্বেও স্বভাব পালটায়নি দুজনের।

বন্ধ করুন