রণজয় (ছবি-ইনস্টাগ্রাম)
রণজয় (ছবি-ইনস্টাগ্রাম)

লকডাউনে নিজেকে কীভাবে ব্যস্ত রাখছেন রণজয়?

অস্থির সময়! চারিদিকে মন খারাপের খবর! ভেঙে পড়লে চলবে না। নিজেকে শক্ত রেখে লড়াই চালিয়ে যেতে হবে করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে। এমনটাই মনে করেন অভিনেতা ও মডেল রণজয়। তিনি একজন চিত্রশিল্পীও বটে। এই সময় নিজেকে ব্যস্ত রেখেছেন ছবি আঁকার কাজে, এর ফাঁকে মন খুলে আড্ডা দিলেন HT Bangla-র সঙ্গে।

জন্মদিন থেকে পয়লা বৈশাখ টানা গৃহবন্দি--

প্রথমেই জানাই সকলকে পয়লা বৈশাখের শুভ কামনা। খুব তাড়াতাড়ি সব আবার ঠিক হবে সেই আশাই রাখি। যেদিন থেকে আমাদের রাজ্যে লকডাউন শুরু হল সেদিন ২২শে মার্চ, আমার জন্মদিন ছিল। এই রকম একটা পরিস্থিতিতে কোনও কিছুই ভালো লাগেনা, বাড়িতেই সারাদিন কেটেছিল। তখন ভেবেছিলাম আমাদের এখানে খুব একটা বাড়াবাড়ি হবে না, আক্রান্তের সংখ্যা কম বিষয়টা নিয়ন্ত্রণেই থাকবে। সেই সময় দেশের অন্যান্য রাজ্যে অলরেডি আতঙ্কের পরিবেশ! চারিদিক থেকে ভেসে আসছে মৃত্যুর সংবাদ! এদিকে আমাদের এখানেও প্রতিদিনই একটু একটু করে আক্রান্তের সংখ্যা বাড়তে লাগল! অতএব সব কিছু ভুলে, সব কিছু ছেড়ে সবার আগে কোভিড ১৯-এর সঙ্গে আমাদের লড়াই চালিয়ে যেতে হবে। পয়লা বৈশাখের দিন থেকে দ্বিতীয় পর্বের লকডাউনের ঘোষণা করলেন প্রধানমন্ত্রী! ৩-রা মে পর্যন্ত ফের ঘরবন্দি। এছাড়া কোনও উপায়ও তো নেই!

এই ভয়ঙ্কর ভাইরাসের গ্রাসে থেকেও পজিটিভ থাকার চেষ্টা —

প্রথম প্রথম কয়েক দিন তো কিছুই করিনি, ওয়ার্কআউটও করিনি। এখন আস্তে আস্তে আবার যতটা সম্ভব স্বাভাবিক নিয়মে থাকা যায় তার চেষ্টা করছি। অন্য সময় যেই কাজ গুলো করা হয় না সেগুলোও করছি। রান্না করছি, নতুন নতুন রেসিপি সংগ্রহ করে সেগুলো ট্রাই করছি। প্রচুর বই পড়ছি, সিনেমা দেখছি। বাড়িতে আটকে থেকেও নিজেকে যতটা কাজের মধ্যে ব্যস্ত রাখা যায় সেই চেষ্টাই করছি। কোভিড ১৯ কে আমাদের হারাতেই হবে। এই মানসিকতা রাখতে হবে।


'ছবি আঁকা আমার প্যাশন'--

আমার মনে হয় এটাই নিজেকে সমৃদ্ধ করার সবচেয়ে উপযুক্ত সময়। বাড়ির বাইরে যাওয়া চলবে না, ঘরে বসেই যুদ্ধ জয় করতে হবে। সুতরাং এই সময়টাকে কাজে লাগাও। আমি নিজে একজন অর্টিস্ট। অভিনয়, মডেলিং এই সব তো রয়েছেই, তাছাড়াও আমি একজন পেইন্টার। ছবি আঁকা আমার প্যাশন। এমনিতে সারাদিন শুটিং সেরে এখন আর তেমন ভাবে ছবি আঁকা হয়ে ওঠে না। এই সুযোগে তাই মন দিয়ে ছবি আঁকছি। খুব ভাল লাগছে ছবি আঁকায় মগ্ন হয়ে থাকতে। আসলে টিভিতে, সংবাদপত্রে, সোশ্যাল মিডিয়াতে, সর্বত্র অতঙ্কের খবর! আজ বড্ড অসহায় মানুষ! অস্থির লাগছে! তাই যতটা পজিটিভ থাকা যায় এই নেগেটভ আবহে সেই উপায় খুঁজে পাওয়া এই ছবি আঁকার মাধ্যমে।


নিজেকে বাঁচান, পরকেও বাঁচতে দিন--

আগামী ৩/৪ মাস আমার টানা শুটিং ছিল, আর এখন তো আগামী কয়েক মাস সব কাজকর্ম বন্ধ। ২১ মার্চ থেকে আমার দুটো বিগ বাজেট বাংলা ছবির কাজ শুরু হওয়ার কথা ছিল। পাশাপাশি বাংলাদেশেরও একটা কাজ শুরু হওয়ার কথা ছিল। কিছু বিজ্ঞাপনের শুট ছিল, সবই আপাতত বন্ধ। কিন্তু এখন তো নিশ্চিত করে কিছুই বলা যাচ্ছে না আবার কবে থেকে সব স্বাভাবিক হবে, সব ঠিকঠাক হলে তারপর নতুন করে শুটিং-এর প্ল্যানিং হবে। সবাইকে বলব, এই সময় শান্ত থাকুন, ধৈর্য্য ধরুন, সচেতন থাকুন, বাড়িতে থাকুন। নিজেকে বাঁচান, পরকেও বাঁচতে দিন।

রণজয়ের ফেসবুক পেজ থেকে
রণজয়ের ফেসবুক পেজ থেকে
বন্ধ করুন