বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > ২০২০ সালে ভাই ঋষি আর রাজীবকে হারিয়েছিলেন, সেই দুঃখের থেকে বেরিয়ে আসার আগেই অসুস্থ হয়ে পড়লেন রণধীর কাপুর
বাবা রাজ কাপুর ও মা কৃষ্ণা কাপুরের সঙ্গে রণধীর, ঋষি ও রাজীব কাপুর। 
বাবা রাজ কাপুর ও মা কৃষ্ণা কাপুরের সঙ্গে রণধীর, ঋষি ও রাজীব কাপুর। 

২০২০ সালে ভাই ঋষি আর রাজীবকে হারিয়েছিলেন, সেই দুঃখের থেকে বেরিয়ে আসার আগেই অসুস্থ হয়ে পড়লেন রণধীর কাপুর

  • দুই ছোট ভাই চিন্টু আর চিম্পুর চলে যাওয়া গভীর ভাবে প্রভাব ফেলেছিল রণধীর কাপুরের মনে। একা হয়ে গিয়েছিলেন আরও। 

মুম্বইয়ের কোকিলাবেন হাসপাতালের কোভিড আইসিইউতে আছেন অভিনেতাকে। করোনা সংক্রমণের কারণে শ্বাসকষ্ট জনিত সমস্যায় ভুগছেন তিনি। অভিনেতার স্ত্রী প্রাক্তন অভিনেত্রী ববিতা কাপুর এবং তাঁদের দুই মেয়ে কারিশ্মা কাপুর এবং কারিনা কাপুর খান ঠিক আছেন। তাঁদের রিপোর্ট নেগেটিভ।

সম্পতি এক সাক্ষাৎকারে রণধীর কাপুর জানিয়েছিলেন, ২০২০ সালে ভাই ঋষি আর রাজীবের চলে যাওয়া মন থেকে মেনে নিতে পারেননি তিনি। ওটা তাঁর জীবনের সবথেকে কষ্টের একটা বছর!

বৃহস্পতিবার শ্বাসকষ্টের সমস্যা দেখা দিলে মুম্বইয়ের ওই বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি হন প্রবীন অভিনেতা। তাঁর করোনা রিপোর্টও পজিটিভ আসে। শুক্রবার সকালে কোভিড সংক্রান্ত আরো কিছু টেস্টের জন্য আইসিইউতে স্থানান্তরিত হয়েছে তাঁকে।

এক দৈনিক সংবাদপত্রকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে রণধীর জানিয়েছিলেন, ‘২০২০ আমারা কাছে সবচেয়ে কষ্টের একটা বছর। কষ্টের বললেও ভুল বলা হবে। আমার জীবনের সবথেকে খারাপ সময় এটি। মাত্র ১০ মাসের ব্যবধানে আমার দুই প্রিয় ভাই চিন্টু (ঋষি কাপুর) আর চিম্পু (রাজীব কাপুর) আমায় ছেড়ে চলে গিয়েছিল। আমার মা (কৃষ্ণা কাপুর) আর বোনকে (ঋতু নন্দা) হারিয়েছি গত আড়াই বছরে।’

প্রসঙ্গত, রণধীর কাপুরোর বাড়ির ৫ পরিচারকেরও করোনা রিপোর্ট পজিটিভ। তাঁরাও অভিনেতার সঙ্গেই কোকিলাবেন আম্বানি হাসপাতালে ভরতি আছেন। প্রয়াত অভিনেতা ও ছবি নির্মাতা রাজ কাপুরের বড় ছেলে রণধীর কাপুর। ২০১৪ সালে মুক্তি পাওয়া ‘সুপার নানি’তে তাঁকে শেষবার বড় পর্দায় দেখা গিয়েছিল।

বন্ধ করুন